Web bengali.cri.cn   
• হামবুর্গ চীন-জার্মান দ্বিভাষিক কিন্ডারগার্টেনে ভবিষ্যত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নে সহায়তা করে
জার্মানির উত্তরের বন্দরশহর হামবুর্গ 'বিশ্বের প্রবেশদ্বার' হিসাবে পরিচিত। এটিও চীন ও ইউরোপের প্রবেশদ্বারও বটে। তা ছাড়া 'এক অঞ্চল, এক পথ' নির্মাণেও একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। শহরটিতে প্রথম চীন-জার্মান দ্বিভাষিক কিন্ডারগার্টেন হিসাবে, হামবুর্গ চীন-জার্মান কিন্ডারগার্টেন ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে চালু হয় এবং শিক্ষার্থীদের তালিকাভুক্ত শুরু করে। বর্তমানে এখানে ৬৫জন শিক্ষার্থী রয়েছে।
• হামবুর্গ চীন-জার্মান দ্বিভাষিক কিন্ডারগার্টেনে ভবিষ্যত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নে সহায়তা করে • ছিংহাই প্রদেশের বেশ কয়েকটি শিল্প ও কৃষি পণ্য বেইজিংয়ে প্রদর্শিত
• চীন-মার্কিন বন্ধুত্বের উন্নয়নের সাক্ষী ফিলাডেলফিয়া সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা • চীনের চ্যচিয়াং প্রদেশের হাংচৌ শহরের 'লিয়াংঝু প্রাচীন শহর ধ্বংসাবশেষ' বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকাভুক্ত হয়েছে
• নাইজেরিয়ান সাহিত্য ও শিল্পমহল চীনা "সভ্যতার বিনিময় এবং পারস্পরিক শিক্ষা" ধারণার প্রশংসা করে • সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষায় উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ইতালি
• জাতীয় দিবসের ৭০তম বার্ষিকী উদযাপন, সিডনিতে চীনা কনস্যুলেট জেনারেল একটি কর্ম দিবসে ইভেন্ট আয়োজন করে • ৩০তম হংকং বইমেলা উদ্বোধন
• "ছাংআন থেকে রোম পর্যন্ত" ১০০ পর্বের ফোরকে মাইক্রো-প্রামাণ্যচিত্রর ইতালিতে অনুষ্ঠিত • "দ্য লিয়ন কিং"-এর নতুন ডিজনি সংস্করণটি চীনে প্রকাশিত
More>>

হামবুর্গ চীন-জার্মান দ্বিভাষিক কিন্ডারগার্টেনে ভবিষ্যত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নে সহায়তা করে
জার্মানির উত্তরের বন্দরশহর হামবুর্গ 'বিশ্বের প্রবেশদ্বার' হিসাবে পরিচিত। এটিও চীন ও ইউরোপের প্রবেশদ্বারও বটে। তা ছাড়া 'এক অঞ্চল, এক পথ' নির্মাণেও একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। শহরটিতে প্রথম চীন-জার্মান দ্বিভাষিক কিন্ডারগার্টেন হিসাবে, হামবুর্গ চীন-জার্মান কিন্ডারগার্টেন ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে চালু হয় এবং শিক্ষার্থীদের তালিকাভুক্ত শুরু করে। বর্তমানে এখানে ৬৫জন শিক্ষার্থী রয়েছে।

ছিংহাই প্রদেশের বেশ কয়েকটি শিল্প ও কৃষি পণ্য বেইজিংয়ে প্রদর্শিত

ছিংহাই-তিব্বত মালভূমির উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত ছিংহাই প্রদেশ। এটি তিব্বতি, থু, মঙ্গোলীয় এবং সালার জাতির সংখ্যালঘু মানুষের বসবাসের অঞ্চল। সব জাতিগোষ্ঠীর নিজস্ব বৈশিষ্ট্যময় সংস্কৃতি ও শিল্প-সম্পদ রয়েছে। সূচিকর্ম শিল্প তাদের মধ্যে অন্যতম। একটি জাতির একটি সূচিকর্ম পদ্ধতি, প্রতিটি জাতির সমৃদ্ধি সাংস্কৃতিক প্রকাশকে মূর্ত করে তোলে।


চীন-মার্কিন বন্ধুত্বের উন্নয়নের সাক্ষী ফিলাডেলফিয়া সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা

যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচটি প্রধান সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার মধ্যে 'ফিলাডেলফিয়া সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা' অন্যতম একটি। সম্প্রতি ফিলাডেলফিয়া সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ৪০ তম বার্ষিকী উদযাপন করে। এরপর অর্কেস্ট্রাটি চীনা ও বিদেশি গণমাধ্যমে সাক্ষাত্কার দেয়। এটি স্মরণ করিয়ে দেয় যে, ১৯৭৩ সালে চীনে প্রথম ঐতিহাসিক ভ্রমণ করে ফিলাডেলফিয়া অর্কেস্ট্রা।এর পর থেকে চীনের সাথে গভীর বন্ধুত্ব তৈরি হয় এই অর্কেস্ট্রার।


চীনের চ্যচিয়াং প্রদেশের হাংচৌ শহরের 'লিয়াংঝু প্রাচীন শহর ধ্বংসাবশেষ' বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকাভুক্ত হয়েছে

"লিয়াংঝু বিশ্বকে একটি ভিন্ন সভ্যতার মডেল দিয়েছে। এটি বিশ্বকে বলে জানায়, কীভাবে ধান চাষ করে একটি দেশ গড়ে তুলতে হয়, খাদ্য সমস্যা দূর করতে হয়। তবে, লিয়াংঝু সমাজ ও এর আগের সংস্কৃতির মধ্যে বিশাল পার্থক্য রয়েছে। লিয়াংঝুর সামাজিক অর্থনীতির জীবনধারা চালের উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে।"


নাইজেরিয়ান সাহিত্য ও শিল্পমহল চীনা "সভ্যতার বিনিময় এবং পারস্পরিক শিক্ষা" ধারণার প্রশংসা করে
'এশীয় সভ্যতা সংলাপ' বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত হয়। নাইজেরিয়ান সাহিত্য ও শিল্পের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ এতে অংশ নেন। নাইজেরিয়ার জাতীয় শিল্প ও সংস্কৃতি পরিষদের সভাপতি ওতুনবা সেগুনও এশীয় সভ্যতা সম্মেলনে যোগ দেন। দেশে ফিরে যাওয়ার পর তিনি বিভিন্ন উপলক্ষ্যে এশিয়ান সভ্যতা সংলাপ সম্মেলনের ফলাফল তুলে ধরেন এবং চীনের "সভ্যতা বিনিময় এবং পারস্পরিক শিক্ষা, যৌথভাবে মানবজাতির অভিন্ন লক্ষ্যের কমিউনিটি প্রতিষ্ঠা" ধারণার প্রশংসা করেন। ওতুনবা সেগুন এশীয় সভ্যতা সংলাপের 'সংস্কৃতি, পর্যটন ও সাংস্কৃতিক বিনিময়' ফোরামে অংশ নেন। তিনি মনে করেন, এবারের সম্মেলন এশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাংস্কৃতিক বিনিময় ও সভ্যতা সংলাপের ওপর গভীর ও দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলবে।

সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষায় উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ইতালি
বর্তমানে চীনের পরই ইতালিতে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীনতম দেশগুলির মধ্যে একটি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষাকারী দেশ ইতালি। নিখুঁত সাংস্কৃতিক পুরাকীর্তি সুরক্ষা আইন, একটি সুন্দর ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি, ইতালি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষাকারী শক্তিশালী একটি দেশ। এক্ষেত্রে একটি নেতৃস্থানীয় অবস্থান বজায় রেখেছে দেশটি। সম্প্রতি সিআরআইয়ের সংবাদদাতা ইতালিয়ান ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ নিউ টেকনোলজি, জ্বালানি ও টেকসই ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট ব্যুরো সফর করে পুরাকীর্তি সুরক্ষা খাতে সর্বশেষ প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে পারেন।
More>>
© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040