Web bengali.cri.cn   
চীনের হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
  2017-09-04 19:10:50  cri

 


সুপ্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা,আপনারা ভালো আছেন?সুদূর বেইজিং থেকে আপনাদের সবাইকে আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আমাদের নিয়মিত সাপ্তাহিক আয়োজন 'বিদ্যাবার্তা' অনুষ্ঠানটি। আর এ আয়োজনে আপনাদের সঙ্গে রয়েছি সুবর্ণা ও টুটুল।

আজকের অনুষ্ঠানের শুরুতে আপনারা শিক্ষাসম্পর্কিত খবর শুনবেন। আর এরপর শুনবেন চীনের হুপেই প্রদেশের উহান শহরের হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু তথ্য।

তাহলে প্রথমেই শিক্ষাসম্পর্কিত খবর শোনা যাক, কেমন?

১. চীনের বিভিন্ন স্কুলে পেশাদার শিক্ষকের সংখ্যা ১ কোটি ৫৭ লাখেরও বেশি

চীনের শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের শেষ নাগাদ চীনের স্কুলগুলোতে পেশাদার শিক্ষকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৫৭ লাখ ৮০ হাজারেরও বেশি, যা ২০১২ সালের তুলনায় প্রায় ১১ লাখ ৬০ হাজারেরও বেশি।

গত ৫ বছরে চীনের শিক্ষকের সংখ্যা অনেক বেড়েছে এবং এ সময়ে তাদের পেশাগত দক্ষতাও অনেক উন্নত হয়েছে। এছাড়া, শিক্ষকদের পেশাগত কাঠামো অনেক উন্নত হয়েছে, বেড়েছে যুবক ও মধ্যবয়সী শিক্ষকের সংখ্যাও।

গত বছরের শেষ নাগাদ দেখা যায়, উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৫ বছর বয়সের চেয়ে কম শিক্ষকের সংখ্যা ৬৯.৮৩ শতাংশ আর প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলে এমন শিক্ষকের সংখ্যা ছিলো ৭০.৪৯ শতাংশ।

বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষকদের শিক্ষাগত যোগ্যতাও ব্যাপকভাবে বেড়েছে। ৯৩.৬৫ শতাংশ প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক কলেজ বা স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেছেন আর মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষকদের স্নাতকোত্তর ডিগ্রির হার ৮২.৪৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

২. চীনের ২০১৭ সালের স্নাতকোত্তর পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশিত

পয়লা সেপ্টেম্বর চীনের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র স্যু মেই জানান, চীনের ২০১৭ সালের স্নাতকোত্তর পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে, যা চলতি বছরের ২৩ থেকে ২৪ ডিসেম্বরের মধ্যে শুরু হবে।

জানা গেছে, স্নাতকোত্তর পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা দুইভাবে পরীক্ষার জন্য নিবন্ধন করেছেন। একটি হলো ইন্টারনেটের মাধ্যমে আরেকটি নিজস্বভাবে উপস্থিত থেকে। যারা ইন্টারনেটের মাধ্যমে নাম নিবন্ধন করেছেন তাদেরকে বিভিন্ন পরীক্ষার রুমে নিজের ছবিসহ ব্যক্তিগত তথ্য জমা দিতে হবে।

বন্ধুরা, এতক্ষণ আপনারা শিক্ষাসম্পর্কিত খবর শুনলেন। এবার তাহলে শোনা যাক চীনের হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য।

চীনের হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

চীনের হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাস্ট) চীনের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বাধীন শীর্ষ পর্যায়ের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অন্যতম। এই বিশ্ববিদ্যালয় হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কলেজ, থংচি মেডিকেল কলেজ ও উহান শহর নির্মাণ একাডেমির সমন্বয়ে নির্মিত নতুন একটি বিশ্ববিদ্যালয়, যা ২০০০ সালের ২৬ মে আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। ৪৭০ হেক্টর আয়তনের বিশাল এলাকা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত। সারা ক্যাম্পাস সারি সারি গাছ, ছোট ছোট হ্রদ আর নানান রঙের ফুলে পরিপূর্ণ। ক্যাম্পাসের ভিতরে প্রবেশ করলে এক স্নিগ্ধ শিহরণ কাজ করে মনের মধ্যে। শান্ত, স্নিগ্ধ ছায়াঘেরা এই বিশ্ববিদ্যালয়টিতে যেন এক স্বর্গীয় প্রশান্তি বিরাজমান।

বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইনফরমেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, টেলিকমিউনিকেশন অ্যান্ড ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, লাইফ সাইন্সেস অ্যান্ড টেকনোলজি স্কুল, কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল, মেকানিক্যাল সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল, শিপ অ্যান্ড সি ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড মেকানিক্স স্কুল, পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন স্কুল ও ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রোনিক ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুলসহ বহু স্কুল ও বিভাগ রয়েছে। এসব স্কুলের আওতায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে প্রায় শতাধিক বিভাগ।

হাস্টে শিক্ষকের সংখ্যা ৩০০০ জনেরও বেশি,তাদের মধ্যে অধ্যাপকের সংখ্যা ১০০০ জনেরও বেশি, আর সহযোগী অধ্যাপকের সংখ্যা ১৩০০ জনেরও বেশি।

হাস্ট মূলত বহু ব্যবস্থা নিয়ে শিক্ষার সংস্কার চালু করার মধ্যে দিয়ে নিজেকে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলেছে। গত কয়েক দশকে ৪ লাখেরও বেশি শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে হাস্ট। এক কথায় নিজেকে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অন্যতম একটি হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়েছে যাচ্ছে হাস্ট।

হাস্টের ইতিহাস থেকে বোঝা যায়, ১৯৫২ সালে চীনের ব্যাপক অর্থনৈতিক উন্নয়নের উদ্দেশ্যে বিশেষ করে শিল্পের উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব্যক্তিদের প্রশিক্ষণে উহানে হুয়াচোং শিল্প একাডেমি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়। তখন উহান বিশ্ববিদ্যালয়, কুয়াংসি বিশ্ববিদ্যালয় ও নানছাং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল ও বিদ্যুত্ প্রকৌশলসহ চীনের শ্রেষ্ঠ প্রকৌশলবিষয়ক প্রধান বিভাগের সমন্বয়ে নতুন শিল্পভিত্তিক একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯৬০ সালে হুয়াচোং শিল্প একাডেমি চীনের শ্রেষ্ঠ একাডেমির অন্যতম একটিতে পরিণত হয়। ১৯৮৮ সালের জানুয়ারিতে এই শিল্প একাডেমির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় হুয়াচোং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাস্ট)।

হাস্টের আন্তর্জাতিক শিক্ষা একাডেমি ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়, যা বিশ্ববিদ্যালয়টির নেতৃত্বাধীন শাখা একাডেমির অন্যতম। এই একাডেমি দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া ও প্রশিক্ষণের পাশাপাশি বিদেশে কনফুসিয়াস ইনস্টিটিউটের কাজের দায়িত্ব পালন করে থাকে।

বর্তমানে এ একাডেমিতে বিদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩৩০০ জনেরও বেশি। এদের মধ্যে চীনের হংকং, ম্যাকাও ও তাইওয়ানের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২০০ জনেরও বেশি।

বিশ্বের ১৩০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা হাস্টে লেখাপড়া করেছেন। প্রতি বছর আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী বিনিময় প্রকল্পের মধ্য দিয়ে হাস্টের ৫০০ জনেরও বেশি শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী বিদেশে গিয়ে লেখাপড়া করে থাকেন।

হাস্ট যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ড ও ব্রাজিলের সাথে সহযোগিতা করে মোট ৩টি কনফুসিয়াস ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছে। বর্তমানে হাস্টের ৯ জন শিক্ষক চীনা ভাষা ও সংস্কৃতি প্রচার সংস্থা হানবানের ৫৭ জন স্বেচ্ছাসেবককে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, থাইল্যান্ড ও দক্ষিণ কোরিয়াসহ বিশ্বের ১০টি দেশে চীনা ভাষা শেখানোর দায়িত্ব পালন করছেন।

চীনে লেখাপড়ার পরিকল্পনা অনুসারে হাস্ট বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীদের নিজ ক্যাম্পাসে স্বাগত জানায়। চীনের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনে হাস্টের আন্তর্জাতিক শিক্ষা একাডেমিতে চীনা ও বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য বিদেশে লেখাপড়াবিষয়ক পরিসেবা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, যা শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের বিদেশে লেখাপড়ার বিষয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকে।


1  2  
© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040