Web bengali.cri.cn   
চায়না মিডিয়া গ্রুপের মহাপরিচালক ২০২০ সাল উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছাবাণী দিয়েছেন
  2020-01-01 15:53:03  cri


২০২০ সালের ১ জানুয়ারি, চায়না মিডিয়া গ্রুপের মহাপরিচালক শেন হাই সিয়োং চীন আন্তর্জাতিক বেতার ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে সারা বিশ্বে চায়না মিডিয়া গ্রুপের শ্রোতা ও দর্শকদের খ্রিষ্টীয় নববর্ষের শুভেচ্ছাবাণী দিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য এখানে তুলে ধরা হলো।

প্রিয় বন্ধুরা,

২০২০, একটি শুভ ও সুন্দর সংখ্যা। চীনা ভাষায় এর উচ্চারণ 'আরলিং আরলিং' যা অনেকটা 'আইনি আইনি'-এর মতো শোনায়। এর অর্থ তোমাকে ভালোবাসি, তোমাকে ভালোবাসি। ২০২০ সাল উপলক্ষ্যে আমি চায়না মিডিয়া গ্রুপের পক্ষে বেইজিং থেকে আপনাদের নতুন বছরের শুভকামনা জানাচ্ছি।

মানব ইতিহাস একটি একটি করে মুহূর্ত দিয়ে তৈরি হয়। ২০১৯ সালের অনেকগুলো মুহূর্ত ইতোমধ্যে চিরদিনের স্মৃতিতে পরিণত হয়েছে। ১ অক্টোবর আমরা আড়ম্বরপূর্ণভাবে গণপ্রজাতন্ত্রী চীন প্রতিষ্ঠার ৭০ বছর পূর্তি উদযাপন করেছি। বন্ধুরা, চায়না মিডিয়া গ্রুপের বহুভাষী তথ্যচিত্র 'হিস্টোরিক জার্নি', ফোর-কে'র ইউএচডি'র সরাসরি প্রচার চলচ্চিত্র 'চীনের জাতীয় দিবসের সামরিক কুচকাওয়াজ, ২০১৯' ইত্যাদি নিশ্চয়ই উপভোগ করেছেন। বন্ধুরা, আপনারা নয়া চীন প্রতিষ্ঠার ৭০তম বার্ষিকীর অসাধারণ অনুভূতি শেয়ার করেছেন। আমি অনেক মানুষের আন্তরিক শুভেচ্ছা পেয়েছি। ইতালির চীনবিষয়ক বিশেষজ্ঞ ফ্রান্সেস্কো মারিনজিও ই-মেইলে লিখেছিলেন: 'আমি নয়া চীন প্রতিষ্ঠার পর ৭০ বছরে অর্জিত উজ্জ্বল সাফল্য পছন্দ করি। আমি মনে করি, চীনা জনগণের এজন্য গর্বিত হওয়ার যৌক্তিক কারণ আছে।'

গেল বছর আমরা চীনের উন্নয়ন পথের প্রতিটি চমত্কার মুহূর্ত তুলে ধরার চেষ্টা করেছি, বিশ্বের কাছে একটি সত্য, সার্বিক, ত্রিমাত্রিক নতুন যুগের চীনকে তুলে ধরেছি। আমরা ৫জি+৪কে/৮কে+এআইসহ বিভিন্ন প্রচার প্রযুক্তি ও পদ্ধতিতে সফলভাবে 'এক অঞ্চল, এক পথ' আন্তর্জাতিক সহযোগিতা শীর্ষ ফোরাম, এশীয় সভ্যতার সংলাপ সম্মেলন, ম্যাকাওয়ের চীনের কোলে ফিরে আসার ২০ বছর পূর্তি উদযাপনসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম প্রচার করেছি। আমাদের তৈরি করা বহুভাষী তথ্যচিত্র 'সি চিন পিংয়ের প্রিয় উদ্ধৃতি' এবং 'প্রতিটি রাষ্ট্রীয় সম্পদের গল্প রয়েছে' ইত্যাদি, বন্ধুদের গভীরভাবে চীনের সুদীর্ঘ ইতিহাস ও সংস্কৃতি এবং নতুন যুগে চীনের চিন্তাধারা উপলব্ধি করার ক্ষেত্রে একটি জানালা খুলে দিয়েছে। 'চীনের সঙ্গে যাবো' শীর্ষক বিশ্বব্যাপী শ্রোতা ও দর্শকের কার্যক্রম, 'আনন্দময় চীন ও রাশিয়া' কার্যক্রম, বিভিন্ন ভাষার 'বিখ্যাত অনলাইন উপস্থাপক' ইত্যাদি কার্যক্রমের মাধ্যমে আরো বেশি বন্ধু 'চীনের ভক্তে' পরিণত হয়েছেন।

মাত্র দুই বছর হলো চায়না মিডিয়া গ্রুপ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তবে, আমরা গভীরভাবে উপলব্ধি করেছি যে, বর্তমান ইন্টারনেটের যুগে উন্নত না হওয়া মানে পিছিয়ে পড়া; ধীর গতিতে উন্নয়নই হলো পিছিয়ে পড়া। আমরা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের 'ঐতিহ্যের ভিত্তিতে উদ্ভাবন করা, নতুন গণমাধ্যম এবং নতুন মঞ্চ ভালোভাবে তৈরি করা এবং ব্যবহার করার' নির্দেশকে দৃঢ়ভাবে মনে রাখি, আমরা উদ্ভাবনের মাধ্যমে বিশ্বের প্রথম শ্রেণীর নতুন ধরনের প্রধান গণমাধ্যমের দিকে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছি। এই বছর আমরা চীনের একমাত্র ইউএচডি ভিডিও অডিও প্রযোজনা ও প্রচারের রাষ্ট্রীয় প্রধান পরীক্ষাগার নির্মাণ শুরু করেছি, আমরা 'ইয়াংসিভিন' নামে ৫জি'র নতুন মিডিয়া মঞ্চ স্থাপন করেছি, আমরা সার্বিকভাবে উচ্চ মানের উন্নত সংস্কার চালু করে ২ শতাধিক শ্রেষ্ঠ মানের অনুষ্ঠান তৈরি করেছি। আমরা ব্যবহারকারীদের পছন্দ অনুযায়ী ভালো অনুষ্ঠান তৈরির জন্যও চেষ্টা করছি।

সার্বিক ও ন্যায়সঙ্গতভাবে এবং বৈষয়িক বিশ্বের খবর প্রচার করা হলো আমাদের নিয়ম; আমরা সবসময় এই নিয়মে অবিচল রয়েছি। আমরা উন্মুক্ত এবং সহযোগিতার মনোভাব পোষণ করে দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমের সঙ্গে সমভাবে বিনিময় করি। এ বছর আমি যথাক্রমে দি আসোসিয়েটেড প্রেস (এপি), রয়টার্স, এজেন্সি ফ্রান্স প্রেস (এএফপি) এবং ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন (বিবিসি)-সহ ১৫০টিরও বেশি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের দায়িত্বশীল কর্মকর্তার সঙ্গে মতবিনিময় ও আলাপ করেছি, পারস্পরিক মতৈক্য জোরদার করেছি। এভাবে আমাদের বন্ধুমহল বাড়ছে।

তবে, খুব পরিতাপের বিষয় হলো, কিছু পাশ্চাত্য গণমাধ্যম, জানি না কী কারণে, চীন সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে 'স্পষ্ট অন্ধত্ব' বজায় রেখেছে। তারা গুজব ও মিথ্যাচারকে খবরের মতো করে প্রচার করছে, কিছু খবর ইতোমধ্যে উপন্যাসের মতো হয়েছে। আমরা সবাই মনে করি, সত্যতা হলো খবরের প্রাণ। যদি কল্পনা থেকে খবর প্রচার করি, খবরকে গল্প-উপন্যাস মনে করি, তা যে কোনো গণমাধ্যমের প্রতি মানুষের বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট করবে। আমরা প্রত্যেক পেশার ক্ষেত্রেই এ বিষয়কে সতর্ক করব।

ব্রিটেনের ১৮ শতকের লেখক উইলিয়াম হাজলিট একটি কথা বলেছিলেন: 'পক্ষপাতিত্ব হল অজ্ঞতার সন্তান'। আন্তর্জাতিক পরিস্থিতিতে, সত্য অনুসরণ করা, পক্ষপাতিত্ব না করা, কত গুরুত্বপূর্ণ! চায়না মিডিয়া গ্রুপ অব্যাহতভাবে বৈষয়িক ও ন্যায়সঙ্গত অবস্থান থেকে আন্তর্জাতিক সমাজে সত্য প্রচার করবে, ন্যায়ের কণ্ঠ প্রচার করবে।

চীনের থাং রাজবংশের কবি চাং জিউ লিং বলেন: 'দূরত্ব বন্ধুত্বকে ক্ষতি করতে পারে না, মৈত্রী থাকলে হাজার মাইল দূর থেকেও প্রতিবেশীর মতো অনুভূতি তৈরি হয়'।

আমরা এই পৃথিবীতে সহাবস্থান করছি ও পরিচিত হয়েছি। এটি এক ধরনের বিশেষ সম্পর্ক। ঠিক যেন ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা সফরের সময়, বিস্ময় ও আনন্দের সঙ্গে জাছারান্ডা ও বৌগাইনভিলা ফুল দেখেছি; যা আগে চীনের কুয়াংতুং প্রদেশে দেখেছিলাম। ঠিক যেন কুয়াংতুংয়ের মতোই! আমি এক ধরনের পাখি 'ক্যাটবার্ডের' কণ্ঠ শুনেছি। ইতালি ও স্পেনে ঘরে ফেরার সময় স্থানীয় গণমাধ্যমের সঙ্গে আমার জন্মস্থান চ্যচিয়াং প্রদেশের আঠালো ভাতের মদ এবং কাটা হ্যাম খেয়েছি। 'বৈশ্বিক গ্রাম'-এর ধারণা এতটাই বিস্তৃত! এই 'গ্রামের' বাসিন্দাদের বিনিময়, আলোচনা ও মিলমিশ না হওয়ার কোনো যুক্তি নেই। আমি সবসময় মনে করি, গণমাধ্যমের বিনিময় নিঃসঙ্গতা ও পক্ষপাতিত্ব দূর করতে পারে, এর মাধ্যমে আরো বেশি মানুষ ভালো বন্ধু হতে পারে।

২০২০ সাল হলো চীনের সার্বিক সচ্ছল সমাজ গড়ে তোলার চূড়ান্ত বছর। এ বছর ১৪০ কোটি জনসংখ্যার দেশ চীন মানব ইতিহাসে অভূতপূর্বভাবে দেশ থেকে পুরোপুরি চরম দারিদ্র্যকে বিদায় জানাবে। চায়না মিডিয়া গ্রুপ নিখুঁত কাজ করার পেশাদারী মানদণ্ড নিয়ে এই যুগকে ধারণ করবে, বন্ধুদেরকে চীন ও বিশ্বের আরও বেশি গল্প বলবে এবং মানবজাতির অভিন্ন ভাগ্যের কমিউনিটি গড়ে তোলা জোরদারে আরও বেশি ইতিবাচক শক্তি যোগাবে।

২০২০ সালে পৃথিবীতে ভালোবাসা ভরে থাকুক!

চীনকে শুভকামনা, বিশ্বকে শুভেচ্ছা, আপনাদেরকে শুভকামনা!

(শুয়েই/তৌহিদ/সুবর্ণা)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040