Web bengali.cri.cn   
২০২০ সাল উপলক্ষ্যে চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের শুভেচ্ছাবাণী
  2019-12-31 19:50:50  cri


কমরেডস, বন্ধুগণ ও সুধীবৃন্দ,

২০২০ সাল ঘনিয়ে আসছে; আমি চীনের রাজধানী বেইজিং থেকে সবাইকে নববর্ষের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

২০১৯ সালে আমরা ঘাম ঝড়িয়ে অনেক অর্জন করেছি, পরিশ্রমের সঙ্গে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। চীনের উচ্চ মানের উন্নয়ন স্থিতিশীল রয়েছে এবং দেশের জিডিপি ১০০ ট্রিলিয়ন ইউয়ানের কাছাকাছি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। জনগণের গড়পড়তা আয় ১০ হাজার মার্কিন ডলারের নতুন পর্যায়ে উন্নীত হবে। তিনটি প্রধান কাজে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। বেইজিং-থিয়ানচিন-হ্যপেই সমন্বয় উন্নয়ন প্রকল্প, ইয়াংসি নদীর অর্থনৈতিক এলাকার উন্নয়ন, কুয়াংতুং-হংকং-ম্যাকাও বৃহত্তর উপসাগরীয় অঞ্চল নির্মাণ, ইয়াংসি নদীর বদ্বীপ অঞ্চল একীকরণ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। হলুদ নদীর প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা এবং উচ্চ মানের উন্নয়ন দেশের কৌশলে পরিণত হয়েছে। চীনে প্রায় ৩৪০টি দরিদ্র জেলা এবং ১ কোটিরও বেশি মানুষ দারিদ্র্যমুক্ত হবে। ছাংএ্য ৪ মানব ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চাঁদের অন্ধকারাচ্ছন্ন পৃষ্ঠে অবতরণ করেছে। লংমার্চ ৫ নং-এর ইয়াও ৩ নং পরিবাহক রকেট সফলভাবে মহাকাশে পাঠানো হয়েছে, সুয়েই লং ২ নং প্রথমবারের মতো দক্ষিণ মেরুতে যাত্রা করেছে, পেইতৌ নেভিগেশন ব্যবস্থা বিশ্বজুড়ে নেটওয়ার্ক গঠনের কেন্দ্রীয় অংশের কাজ শুরু করেছে, ৫জি নেটওয়ার্কের বাণিজ্যিক ব্যবহার দ্রুতগতিতে চালু হয়েছে, বেইজিংয়ের তাসিং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর 'ফিনিক্সের মতো আকাশে উড়ে যাচ্ছে'....এসব সাফল্য নতুন যুগে চীনাদের চেষ্টার প্রতিফলন, চীনের অসাধারণ ভাবমূর্তি ও শক্তির প্রতিফলন।

এক বছরে, সংস্কার ও উন্মুক্তকরণ অব্যাহতভাবে উন্নয়নের নতুন শক্তি অর্জন করেছে। চীনের কমিউনিস্ট পার্টি এবং দেশীয় সংস্থার সংস্কার সফলভাবে শেষ হয়েছে। নতুন দফা অবাধ বাণিজ্যের পরীক্ষামূলক এলাকা এবং শাংহাই অবাধ বাণিজ্যের পরীক্ষামূলক এলাকা নিয়ে নতুন জোন গড়ে উঠেছে। স্টারমার্কেট সাফল্যের সঙ্গে চালু হয়েছে। হ্রাসকৃত করের মোট পরিমাণ ২ ট্রিলিয়ন ইউয়ান ছাড়িয়েছে। ব্যক্তিগত আয়করমুক্ত সীমা বেড়েছে, জনগণের নিয়মিত ব্যবহৃত ওষুধগুলোর দাম কমেছে, ইন্টারনেটের গতি দ্রুত হয়েছে ও খরচ কমেছে এবং বর্জ্য পদার্থ শ্রেণীবিন্যাসের মাধ্যমে পরিবেশবান্ধব জীবনের নতুন দিক উন্মোচিত হয়েছে। 'তৃণমূল পর্যায়ের বোঝা কমানো বর্ষের' কারণে তৃণমূল পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কাজ আগের চেয়ে আরও সুষ্ঠু হয়েছে। চীনের বিভিন্ন জায়গায় দৃষ্টি দিয়ে নতুন পরিবর্তন ও নতুন পরিস্থিতি দেখা যায়।

এক বছরে, প্রতিরক্ষা ও সেনাবাহিনীর সংস্কার কার্যকরভাবে জোরদার হচ্ছে। গণবাহিনী নতুন যুগের শক্তিশালী বাহিনী হয়ে উঠেছে। আমরা জাতীয় দিবসে বড় আকারের কুচকাওয়াজ আয়োজন করেছি; নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনী স্থাপনের ৭০তম বার্ষিকী উদযাপন করেছি, সপ্তম বিশ্ব সামরিক গেমস আয়োজন করেছি। চীনের তৈরি প্রথম বিমানবাহী জাহাজ আনুষ্ঠানিকভাবে বাহিনীতে যোগ দিয়েছে। চীনা সেনারা সবসময় দেশ রক্ষাকারী লৌহ-মহাপ্রাচীর, আমরা দেশ রক্ষাকারী বিশ্বস্ত সেনাদের শ্রদ্ধা জানাই।

২০১৯ সালে সবচেয়ে অবিস্মরণীয় ব্যাপার হলো নয়া চীন প্রতিষ্ঠার ৭০তম বার্ষিকী উদযাপন। আমরা ৭০ বছরে চীনের অর্জিত উজ্জ্বল সাফল্যের জন্য উল্লসিত, দেশপ্রেমে মন আজ উজ্জীবিত। কুচকাওয়াজের সেনাদল গর্বিত, জনগণের সমাবেশ আগেবপ্রবণ এবং থিয়ান-আন-মেন মহাচত্বর আনন্দ-সমুদ্রে পরিণত হয়েছে। উত্তর থেকে দক্ষিণ পর্যন্ত গোটা চীন লাল রংয়ের জাঁকজমক কাপড় পরেছে। জনগণের মুখে আজ গর্বের হাসি। 'আমি ও আমার মাতৃভূমি' গানটি মানুষের মুখে মুখে শোনা যায়। দেশপ্রেমের অনুভূতিতে সবার চোখ সজল হয়ে উঠেছে। দেশপ্রেমের চেতনা জাতির মেরুদণ্ড গড়ে তুলেছে। এর মাধ্যমে নতুন চীনের প্রশংসা করা ও নতুন যুগে চেষ্টা চালানোর প্রবণতা তৈরি হয়েছে; যা আমাদের অসীম শক্তি যুগিয়েছে।

এক বছরে, আমি অনেক জায়গায় গিয়েছি। সিয়োং'আন নতুন অঞ্চল উন্নত হচ্ছে, থিয়ানচিন বন্দর সমৃদ্ধ হচ্ছে, বেইজিং শহরের উপকেন্দ্র খুব প্রাণচঞ্চল হয়ে উঠছে, ইনারমঙ্গোলিয়ার তৃণভূমি ঝলমল করছে, হ্যসি করিডোর হাজার বছর পরও আকর্ষণীয় চেহারা ধরে রেখেছে। হলুদ নদীর দৃশ্য অসাধারণ, হুয়াংফু নদীর দু'তীরের জনগণের জীবন খুব সমৃদ্ধ হয়েছে। চীনের বিভিন্ন জায়গায় সমৃদ্ধ দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। আমি চীনের বিপ্লব-যাত্রা পরিদর্শন করেছি। চিয়াংসি প্রদেশের ইয়ুতুতে লাল ফৌজের লংমার্চ রওনার স্থান থেকে হ্যনান প্রদেশের সিন জেলার 'হুপেই-হ্যনান-আনহুই সোভিয়েত অঞ্চলের রাজধানীর বিপ্লব জাদুঘর' পর্যন্ত, কানসু প্রদেশের কাও থাই পশ্চিম বাহিনীর স্মৃতিসৌধ থেকে বেইজিংয়ের 'সিয়াংশান বিপ্লবী স্মৃতি স্থান' পর্যন্ত, প্রতিটি জায়গা নিয়ে আমি অনেক চিন্তা করেছি। শুরুর দিকের সরল লক্ষ্য ও কর্তব্য হলো আমাদের নতুন যুগের লংমার্চ সফলতার নিরলস চালিকাশক্তি।

অনেক ব্যস্ততা থাকলেও আমি আগের মতো জনসাধারণের মধ্যে গিয়েছি ও তাদের খোঁজখবর নেওয়ার চেষ্টা করেছি। সবাই আমাকে মনের কথা বলেছেন; আমি সব মনে রেখেছি। ইয়ুননান প্রদেশের কুংশানের তুলং জাতির মানুষ, ফুচিয়ান প্রদেশের সৌনিং জেলার সিয়াতাং গ্রামবাসী, 'ওয়াংচিয়ে' নামক দলের সব সেনা, বেইজিং ক্রীড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর চ্যাম্পিয়ন ক্লাসের ছাত্রছাত্রীরা, ম্যাকাওয়ের শিশু ও স্বেচ্ছাসেবক বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা আমাকে চিঠি লিখেছেন। আমি তাঁদেরকে লেখা চিঠিতে সবার অর্জিত সাফল্যের স্বীকৃতি দিয়েছি ও সুন্দর শুভেচ্ছা জানিয়েছি।

এক বছরে, অনেক মানুষ ও অনেক বিষয় আমাদেরকে মুগ্ধ করেছে। সারা জীবন নিজের গৌরব ও সাফল্য না বলে কাজ করেছেন চাং ফু ছিং নামের ব্যক্তি, নিজের যৌবন ও জীবনকে দারিদ্র্যবিমোচনের কাজে উত্সর্গ করা হুয়াং ওয়েন সিউ, অগ্নিকাণ্ডে নিহত হওয়া সিছুয়ান প্রদেশের মুলির ৩১জন দমকলকর্মী, নিজের শরীর দিয়ে সহযোদ্ধাকে রক্ষাকারী দু ফু কুও, টানা ১১বার বিশ্বকাপ জয়ী চীনা নারী ভলিবল দল...অনেক সাধারণ মানুষ; কিন্তু তারা নিঃশর্তভাবে জনসাধারণের জন্য অসাধারণ বীরত্বের উদাহরণ তৈরি করেছেন।

২০১৯ সালে চীন অব্যাহতভাবে বিশ্বকে আলিঙ্গন করেছে। আমরা দ্বিতীয় 'এক অঞ্চল, এক পথ' আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিষয়ক শীর্ষ ফোরাম, বেইজিং বিশ্ব উদ্যান মেলা, এশীয় সভ্যতার সংলাপ সম্মেলন, দ্বিতীয় চীন আন্তর্জাতিক আমদানি মেলা আয়োজন করেছি এবং বিশ্বকে একটি সভ্যতা, উন্মুক্ত ও সহনশীল চীন দেখিয়েছি। আমি অনেক দেশের শীর্ষনেতা ও সরকার প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক করেছি, চীনের প্রস্তাব ভাগাভাগি করেছি, এর মাধ্যমে মৈত্রী জোরদার হয়েছে, মতৈক্য বেড়েছে। বিশ্বে আরও কিছু দেশ চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনকারী দেশের সংখ্যা ১৮০টিতে পৌঁছেছে, সারা বিশ্বে আমাদের বন্ধুরা আছে।

২০২০ সাল একটি তাত্পর্যপূর্ণ মাইলফলক! আমরা সার্বিক সচ্ছল সমাজ গড়ে তুলবো, 'প্রথম শত বছরের লক্ষ্য' বাস্তবায়ন করবো। ২০২০ সালও দারিদ্রবিমোচনের গুরুত্বপূর্ণ বর্ষ। বিউগলের আওয়াজ শোনা যাচ্ছে। আমাদের উচিত ঐক্যবদ্ধ চেষ্টা করা, কঠিনকে পরাজিত করে দৃঢ়ভাবে সামনে এগিয়ে যাওয়া, নিজের দুর্বলতা দূর করা, ভিত্তি মজবুত করা, দৃঢ়ভাবে দারিদ্র্যবিমোচনের যুদ্ধ জয় করা, সময় মতো চলমান মানদণ্ড অনুযায়ী গ্রামের দরিদ্রতা দূর করা এবং সব দরিদ্র জেলায় দারিদ্র্যমুক্তির লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা।

কিছুদিন আগে আমি ম্যাকাওয়ের চীনে ফিরে আসার ২০তম বার্ষিকীর উদযাপনী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলাম। ম্যাকাওয়ের সমৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতার জন্য আমি গর্ব বোধ করি। ম্যাকাওয়ের সফল অভিজ্ঞতা প্রমাণ করে যে, 'এক দেশ, দুই ব্যবস্থা' পুরোপুরি কার্যকর হয়েছে এবং তা জনগণের মন জয় করতে পারবে। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে হংকং বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চলের ওপর সবাই দৃষ্টি রেখেছে। সুষম ও স্থিতিশীল পরিবেশ ছাড়া সহাবস্থান ও সমৃদ্ধ গৃহ হয় না। আন্তরিকভাবে আশা করি, হংকং ভালো থাকবে, হংকংবাসী ভালো থাকবে। হংকংয়ের সমৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতা হলো হংকংবাসীদের আকাঙ্ক্ষা, তা মাতৃভূমির প্রতিটি মানুষের আকাঙ্ক্ষা।

ইতিহাসের নদীর স্রোত সামনে এগিয়ে চলছে। তাতে শান্ত ঢেউ আছে, বড় ঢেউও আছে! আমরা বাতাস ও বৃষ্টিকে ভয় পাবো না, কঠিনকেও ভয় পাবো না। চীন দৃঢ়ভাবে শান্তিপূর্ণ উন্নয়নের পথে অবিচল থাকবে, বিশ্বের শান্তি রক্ষা ও অভিন্ন উন্নয়ন জোরদারে অবিচল থাকবে। আমরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষের সঙ্গে হাতে হাত রেখে সক্রিয়ভাবে 'এক অঞ্চল, এক পথ' উদ্যোগ নির্মাণ করতে, মানবজাতির অভিন্ন লক্ষ্যের কমিউনিটি গড়ে তুলতে এবং মানবজাতির সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য নিরলস চেষ্টা চালাতে ইচ্ছুক।

এ মুহূর্তে আরও অনেকেই নিজের কাজ করছেন, অনেকেই শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষা করছেন, অনেকেই পরিশ্রমের কাজ করছেন; আপনাদের পরিশ্রমের জন্য ধন্যবাদ ও শ্রদ্ধা জানাই।

আসুন আমরা সবাই সময়কে সযত্নে লালন করি এবং একসঙ্গে ২০২০ সালকে স্বাগত জানাই।

সবাইকে শুভ নববর্ষ!

(শুয়েই/তৌহিদ/সুবর্ণা)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040