Web bengali.cri.cn   
চীনের সীমান্তরক্ষী নারী পুলিশের গল্প
  2019-11-08 13:43:21  cri

চীনের সীমান্তরক্ষী নারী পুলিশের গল্প

তাঁরা মাদকদ্রব্য ও মাদকপাচারকারীর সঙ্গে লড়াই করেন; তাঁরা মানুষের অর্থলোভী চরিত্রের বিরুদ্ধেও যুদ্ধ করেন। তাঁরা সীমান্তরক্ষী পুলিশ। আর, আজকের অনুষ্ঠানে থাকবে ঝুঁকিপূর্ণ ও মহান এই কাজের সঙ্গে জড়িত কিছু নারী পুলিশের জীবনের গল্প। বিনিদ্র রজনী যারা দেশের মূল-ভূখণ্ডের অধিবাসী ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য নীরবে কাজ করে যান!

মুখাং বীর পোস্ট

মুখাং চেক পোস্ট চীনের ইয়ুননান প্রদেশে অবস্থিত। এর পুরো নাম 'মুখাং সীমান্ত চেক পোস্ট। ১৯৭৮ সালে এটি তৈরি হয়। এটি হলো সীমান্তে মাদকদ্রব্য চীনে প্রবেশের প্রথম প্রতিরোধ লাইন। অপরাধীদের বাইরে পালিয়ে যাওয়া, চোরাচালান, মাদকদ্রব্য ও অস্ত্র পাচারসহ সব কিছুই চেক করা হয় এই পোস্টে।

২২ বছর বয়সে ইয়ুননানের মেয়ে ফেং ইয়ান জীবনে দু'টি সুখবর পান। একটি হলো, তিনি মুখাং চেক পোস্টে কাজ করতে যাবেন। পুলিশবাহিনীতে যোগ দেওয়ার ছয় মাসে তিনি মুখাং চেক পোস্ট সম্পর্কে অনেক ভিডিও দেখেছেন এবং সে সম্পর্কে অনেক বীরের গল্প শুনেছেন। এটি খুব গর্বের একটি পোস্ট। আরেকটি ভালো খবর হলো, ফেং ইয়ানকে পোস্টের প্রথম দলে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, তার দলের প্রধান চা ইং ভেং। ফেং ইয়ান তখনকার কথা স্মরণ করে বলেন, আমি এই খবর শুনে খুব খুশি হই এবং নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে করি।

কেন?

কারণ তার দলের প্রধান একজন মহাবীর। একবার কর্তব্য পালনের সময় পাচারকারী ব্যক্তি তার গায়ে সাতবার ছুরিকাঘাত করলেও তিনি তার হাত ছেড়ে দেন নি। অবশেষে সেই মাদকপাচারকারী গ্রেফতার হয়।

যখন ফেং ইয়ান মুখাং পোস্টের কাজ শুরু করেন, তখন প্রতিদিন তিনি সীমান্ত থেকে চীনের মূল ভূভাগে যাওয়া প্রধান সড়কে যাতায়াতকারী গাড়িগুলো চেক করতেন। তিনি সুষ্ঠুভাবে গাড়ি ও তার যাত্রীদের চেক করতেন। সাধারণত গাড়ির ট্যাংক, ইঞ্জিন, গাড়ির জানালার কাঠামো, স্টিয়ারিং হুইল এবং যাত্রীদের লাগেজ চেক করতে হয়। যেসব গাড়িকে সন্দেহ হয়, সেসব গাড়িকে অনেক সময় ধরে চেক করতে হয়। একটি ছোট গাড়ি চেক করতে ২০ মিনিট লাগে। আর বড় বাস চেক করতে প্রয়োজন হয় এক ঘণ্টা!

মাদকদ্রব্য লুকানোর জায়গা খুব অদ্ভুত। যেমন চেয়ারে, প্রসাধন সামগ্রীর কৌটার ভেতরে, কৃত্রিমভাবে তৈরি গোপন প্রকোষ্ঠে কিংবা বইয়ের ভিতরে। খুবই অদ্ভুত সব জায়গা।

মুখাং পোস্টে আসার প্রথম বছর, ফেং ইয়ান এক গ্রাম মাদকদ্রব্যও উদ্ধার করতে পারেন নি। তার খুব আফসোস হতো, অন্যরা মাদকদ্রব্য খুঁজে পায়, তিনি কেন পান না! তিনি কি তাদের চেয়ে দুর্বল?

একবার ফেং ইয়ান একটি বাস চেক করে সেটি ছেড়ে দিতে চাইলেন। তবে তার দলের প্রধান তাকে বললো, আরো ভালোভাবে চেক করো। ফেং ইয়ান তখন গাড়ির সব জায়গা খুঁজে দেখলেন। তার দলের প্রধান তাকে বললো, গাড়ির ছাদে খুঁজে দেখো। এরপর দেখা গেলো, গাড়ির ছাদে চালের ব্যাগে সত্যিই মাদকদ্রব্য লুকিয়ে রাখা হয়েছে!

দুই ধরনের মানুষ মুখাং চেক পোস্টে মাদকদ্রব্য খুঁজতে পারেন। প্রথমত, যারা খুব অভিজ্ঞ মানুষ; যেমন চেং চাও রুই নামের একজন পুলিশ।

মুখাং চেক পোস্টের সবাই চেং চাও রুই-এর প্রশংসা করে। কারণ, মাদকদ্রব্য উদ্ধার ও মাদকদমনে তাঁর দারুণ প্রতিভা আছে। নারী পুলিশ ফেং ইয়ান বলেন, চেং চাও রুই গাড়িতে উঠে একবার দেখলেই বুঝতে পারেন এই গাড়িতে মাদকদ্রব্য লুকানো আছে কি না! কোন ঋতুতে কোন ধরনের গাড়ি বেশি, কোন ধরনের দ্রব্য পাঠাতে কোন ধরনের গাড়ি ব্যবহার করতে হয়, তিনি সব জানেন।

মানুষের সঙ্গে বিনিময় করার চেয়ে পণ্য চেক করতে অনেক বেশি পছন্দ করেন চেং চাও রুই। তিনি বলেন, যখন তিনি প্রথম মুখাং চেক পোস্টে আসেন, তখন তার খুব খারাপ লাগত। অন্যরা মাদকদ্রব্য খুঁজে বের করতে পারে, তিনি ছয় মাসে একবারও মাদকদ্রব্য খুঁজে পান। তিনি বলেন, প্রতিদিন আমি শুধুই ভালোভাবে মাদক প্রতিরোধের কাজ করতে চাই। তাই আরো বেশি পণ্য চেক করি, হাজার হাজার গাড়ি চেক করলে নিশ্চয়ই কিছু পাওয়া যাবে।

মুখাং চেক পোস্টে গাড়িকে চেক করার কাজ

যারা খুব পরিশ্রমী, তারা মুখাং পোস্টে মাদকদ্রব্য খুঁজে পায়। যেমন, তরুণ ফেং ইয়ান। বেশি বেশি গাড়ি আটকে রাখা, বেশি করে গাড়ি চেক করা, যে গাড়ির প্রতি সন্দেহ হয়, সেই গাড়িকে আটকে রেখে তল্লাসি চালায়।

মুখাং ইয়ুননান প্রদেশে অবস্থিত, এই চেক পোস্টের নিজস্ব শব্দ আছে, যেমন পাখির শব্দ, গাছের পাতা ঘেঁসে বাতাস বয়ে যাওয়ার শব্দ। কিন্তু তখন ফেং ইয়ান এসব শব্দ শুনতে পান না, তার কানে শুধু গাড়ির শব্দ।

২০১৩ সালে ফেং ইয়ান একটি গাড়ির ট্যাংকে ১১টি বোতল খুঁজে পান। ওই ১১টি বোতলে ছিল ৪ কেজি মাদকদ্রব্য। তিনি প্রথমবার সেই মাদকদ্রব্য খুঁজে পেয়েছিলেন।

প্রথম দুই বছরে ফেং ইয়ান অনেক বার কেঁদেছেন। গাড়ির চালক তার কাজে বিরক্ত হয়ে তাকে গালি দিত। তখন ফেং ইয়ানের মনে খুব কষ্ট লাগত। তিনি বলেন, আমরা সবাই এই কাজের জন্য বাসা থেকে অনেক দূরে আছি, সারা বছরই কাজের জন্য ব্যস্ত থাকি, প্রতি বছর শুধু একবার বাসায় ফিরে যাই। এত কষ্ট করি, কেন তারা আমাদেরকে বুঝতে পারে না?

একবার তিনি এক সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করার সময় বিপদেও পরেন। এত দুঃখ, কষ্ট, রাগ-ক্ষোভ প্রতিদিনের কাজের মাধ্যমে দূর হয়ে যায়। আস্তে আস্তে ফেং ইয়ান মুখাং চেক পোস্টের খুব দক্ষ এবং প্রধান কর্মীর দায়িত্ব পান।

তিনি মনে করেন, সত্যিকার অর্থে অভিজ্ঞ মাদকদমনকারী পুলিশ মানে, অনেক বড় ঝুঁকি। দায়িত্ব পালনের সময় বিভিন্ন ধরনের মানুষ, বিভিন্ন ধরনের সমস্যা আসতে পারে। এমন অবস্থায় মাথা ঠান্ডা রাখতে হয়।

ফেং ইয়ানের জীবন

ফেং ইয়ান জানেন, যে কাজ তিনি করেন, তা ন্যায়সঙ্গত। প্রতিবার অপরাধীকে কারা হেফাজতে পাঠানোর সময় তাঁর মনে গর্বের অনুভূতি হয়। সীমান্ত এলাকার কোনো গ্রামে মাদকদমন করতে পারলে মূল ভূভাগের কষ্ট ও ক্ষতি কিছুটা কম হয়; এই আনন্দ তাকে খুশি করে।

তবে এই কাজ সত্যি অনেক ক্লান্তিকর! তিনি বলেন, ডিউটি শেষ করলে শরীর ও মন প্রচণ্ড ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এমন একটা সময় তিনি হোস্টেলে একা বসে কাঁদতে শুরু করেন। কাঁদলে মনে কিছু শান্তি পাওয়া যায়।

চেক পোস্টে নারী পুলিশ সদস্য খুব কম। ফেং ইয়ানের সঙ্গে একই রুমে থাকা আরেকজন মেয়ে আছে, তিন মাস পর এই মেয়েকে অন্য অফিসে নিয়োগ দেওয়া হলে সে চলে যায়। এরপর আরেকজন মেয়ে সহকর্মী আসে। তবে তাদের দু'জনের একবারও দেখা হয় না। কারণ যখন ফেং ইয়ানের কাজ শেষ হয়, তখন ওই নারী সহকর্মীর কাজ শুরু হয়। আবার যখন ফেং ইয়ানের কাজ শুরু হয়, তখন সেই নারী সহকর্মীর কাজ শেষ হয়!

ছোটবেলায় ফেং ইয়ান এমন প্রতিশ্রুত দিয়েছিল যে, কখনওই পুলিশের চাকরি করবে না, কখনওই পুলিশকে বিয়ে করবে না! কারণ সে তার বাবার ওপর ভীষণ রাগ করেছিল। ফেং ইয়ানের বাবা একজন পুলিশ, ফেং ইয়াং বাবাকে দেখার সুযোগ পেত না। ছোটবেলায় ফেং ইয়ান খুব অসুস্থ হলে মাকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে কেঁদে বলত, আমি বাবাকে চাই। কিন্তু তার পরও তার বাবা বাসায় ফিরতে পারত না। তবে, উচ্চ বিদ্যালয়ে উঠে ফেং ইয়ান হঠাত্ বাবার কাজ বুঝতে পারেন। সে বুঝতে পারে, তার বাবার চাকরি খুব গর্বের এবং মহান একটি পেশা।

ফেং ইয়ান মুখাং পোস্টের একজন পুলিশকে বিয়ে করেছে। তিনি বলেন, বিয়ের সিদ্ধান্ত ছিল তার জন্য খুব বড় একটি ব্যাপার।

২০১৫ সালের শেষ নাগাদ ফেং ইয়ানকে মুখাং চেক পোস্ট থেকে মাংসি সীমান্ত পরিচালনা দলে নিয়োগ দেওয়া হয়। সেখানে তিনি অব্যাহতভাবে মাদকদ্রব্য প্রতিরোধের কাজ করতে থাকেন। শুধু তা-ই নয়, তিনি মামলা তদন্তও করেন।

মাদকদ্রব্য চোরাচালান-বিরোধী পুলিশ হওয়া আসলেই খুব বিপজ্জনক। প্রতিবার দায়িত্ব পালনের সময় দলের নেতা একটি কথা বার বার বলেন, 'নিরাপত্তার ওপর অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়া উচিত।' তবে কিছু দুর্ঘটনা হঠাত্ করেই হয়। কেউ তা আগাম জানতে পারে না। যেমন, একবার একটি বাসে পুলিশ চেক করতে উঠলে, হঠাত্ এক যাত্রী ছুরিকাঘাতে এক পুলিশকে হত্যা করে!

নারী পুলিশের জন্য মাদকবিরোধী কাজ করা আরও কষ্টকর! দায়িত্ব পালনের জন্য টানা কয়েকদিন বাসায় ফিরে যাওয়া সম্ভব হয় না। কখন কাজ থেকে ছুটি হবে, তা-ও জানা যায় না! হয়ত টানা কয়েক রাত ধরে জেগে থাকতে হয়, শুধুই কিছু প্রমাণের জন্য! একবার চীনের ঐতিহ্যিক বসন্ত উত্সবের সময়, নারী পুলিশ চৌ ছিয়ানের বাবার জন্মদিন ছিল। তিনি বাসার জন্মদিন উদযাপনের জন্য অনেক আগে থেকেই রেস্তরাঁয় টেবিল বুকিং দিয়ে রেখেছিলেন। তবে হঠাত্ সেদিন তাকে কাজের জন্য বাইরে যেতে হয়। তিনি দু'দিন পর বাসায় ফিরে গিয়েছেন।

এ-কাজ করার আগে, ফেং ইয়ান এবং চৌ ছিয়ানের মতো নারী পুলিশ কেউই জানত না মাদকদ্রব্য কী জিনিস! ফেং ইয়ান বলেন, সীমান্ত এলাকায় এসে হঠাত্ বুঝতে পারলাম- মূল ভূভাগের জীবন কত সুখের! তিনি বলেন, আগের জীবন সত্যিই খুব...খুব...খুব সহজ ছিল। এই কাজে যোগ দেওয়ার পর আমি সবচেয়ে অন্ধকার জগত সম্পর্কে জানতে পেরেছি।

মাদকদ্রব্য দলে আসার পর চৌ ছিয়ান নামের নারী পুলিশ নিজেকে সত্যিই একজন পুলিশ হিসেবে মনে করতে শুরু করেন। চৌ ছিয়ান বলেন, আমি জানি নিজে কী করছি; প্রতিদিন অনুভব করি আমার কাজ কত গুরুত্বপূর্ণ! হয়ত একদিন নিজের সন্তানের কাছে বলতে পারব: ন্যায় সবসময় দুষ্ট শক্তিকে পরাজিত করতে পারে। সমাজে অন্ধকার দিক থাকলেও, ন্যায় সবসময় তার সঙ্গে আছে।

মাদকবিরোধী পুলিশ হওয়া মানে সহজ সুন্দর জীবনকে বিদায় জানানো। ২০১৯ সালে ইয়ুননান প্রদেশের দ্যহুং সীমান্ত পরিচালনা দল ২১৮ টি মাদকদ্রব্য সম্পর্কিত মামলা দায়ের করে। ১৯৭জন অপরাধীকে গ্রেফতার করে এবং ৮০৭ কেজি মাদকদ্রব্য উদ্ধার করে; যা সত্যিই একটি বিরাট সাফল্য।

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040