Web bengali.cri.cn   
রোববারের আলাপন-191124
  2019-11-24 15:21:17  cri






আকাশ: সুপ্রিয় শ্রোতা, সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি চীন আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলা অনুষ্ঠানে। আপনাদের আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আমাদের সাপ্তাহিক আয়োজন 'রোববারের আলাপন'। আপনাদের সঙ্গে আছি এনামুল হক টুটুল এবং শিয়েনান আকাশ।

আকাশ: বন্ধুরা, ২০১৯ সালের নারী ভলিবল বিশ্বকাপ ১৪ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর জাপানে আয়োজিত হয়। এতে চীনা দলটি একটানা ১১টি ম্যাচে জয় লাভ করে এবং সাফল্যের সাথে আবার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়।

বন্ধুরা, আমি আসলে চীনের নারী ভলিবল দলের খেলোয়াড় বিশেষ করে তাদের কোচ লাং পিং'র অধ্যবসায়ের স্পিরিটের জন্য আমি অনেক মুগ্ধ, উত্সাহিত এবং অনুপ্রাণিত। তারা আমাদের মধ্যেও স্পিরিট তৈরি করেছেন। তাদের এ স্পিরিট আমাদের শ্রেষ্ঠ উপহার। বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানে, আমরা চীনের নারী ভলিবল দলটির খেলোয়াড় চু থিংয়ের কিছু গল্প আপনাদের সাথে শেয়ার করবো, কেমন?

টুটুল: বন্ধুরা, ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিক গেমসে, চীনা নারী ভলিবল দল স্বর্ণপদক অর্জন করে। চু থিং 'সবচেয়ে মূল্যবান খেলোয়াড়'-এর খেতাব লাভ করেন। এবারের নারী বিশ্বকাপেও তিনি এ খেতাব পেয়েছেন। তিনি ইতোমধ্যে চীনের খেলোয়াড় ইয়াও মিং, লিউ শিয়াংয়ের পর আরেকজন আন্তর্জাতিক তারকা খেলোয়াড়ে পরিণত হয়েছেন।

কিন্তু এ গৌরবের পিছনে অনেক গল্প রয়েছে। আমরা আজ তাহলে একসাথে তার গল্প শুনবো।

চু থিং ১৯৯৪ সালের নভেম্বরে চীনের হ্য নান প্রদেশের চৌ খৌ শহরের এক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা চু আন লিয়াং ও মা ইয়াং শুয়ে লান হচ্ছেন কৃষক। তার একজন বড় ও ছোট বোন আছে। তার বাবা কৃষি ও মোটর গাড়ি মেরামতের কাজ করতেন। চু থিংয়ের বাবার উচ্চতা ১.৮৬ মিটার, মায়ের উচ্চতা ১.৭৯ মিটার। এজন্য চু থিংয়ের যখন ১২ বছর বয়স তখনই তার উচ্চতা ১.৭২ মিটার। ২০০৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্কুলের নতুন সেমিস্টার শুরুর সময়, তার বাবা চু থিংকে বলেন,

আকাশ: "তোমার বড় বোনের লেখাপড়ার ফলাফল তোমার চেয়ে ভালো, তুমি আর স্কুলে যাবে না।"

চু থিং পিতাকে অনুরোধ করে বলেন:

আকাশ: বাবা, প্লিজ, আমি লেখাপড়া করতে চাই, যখন আমার ছুটি হয়, তখনই আমি টিউশন ফি উপার্জনের জন্য কাজ করবো, কেমন?"

কিন্তু তার বাবা তার কথা শোনেন না।

এরপর চু থিং ব্যাগ নিয়ে চুপি চুপি আবার স্কুলে যায়। স্কুলের শিক্ষক এ অবস্থা জানার পর তার বাবাকে বলেন,

আকাশ:"চু থিংয়ের বয়স এত কম, লেখাপড়া বন্ধ করবেন না।তার উচ্চতা অনেক বেশি, খেলাধুলার জন্য উপযুক্ত। আপনি তাকে নিয়ে চৌ খৌ শহরের স্পোর্টস স্কুলে একটু যোগাযোগ করুন, কেমন?

১৩ ফেব্রুয়ারি, চু থিংকে নিয়ে বাবা চু আন লিয়াং চৌ খৌ শহরের স্পোর্টস স্কুলের দিকে যাত্রা শুরু করেন। ফেব্রুয়ারি মাসে হ্য নান প্রদেশে তীব্র শীত থাকে। চু থিংয়ের মা তাকে অনেক পোশাক পড়িয়ে দেন এবং একটা স্কার্ফের মাধ্যমে পুরো মাখাও ঢেকে দেন।

চৌ খৌ শহরের স্পোর্টস স্কুলের কোচ চু থিংকে দেখে অনেক সন্তুষ্ট হন। কিছু পরীক্ষার পর কোচ খুব আনন্দে  চু আন লিয়াংকে বলেন,

আকাশ: ভলিবল খেলার খাতে চু থিংয়ের অনেক মেধা রয়েছে, আমরা এই মেয়ে চাই!।

চু থিং এ খবর শুনে অনেক আনন্দিত। কিন্তু, ১০ হাজার ইউয়ানের টিউশন ফি'র কথা শুনে চু থিং বাবাকে বলেন,

আকাশ: বাবা, আমি স্পোর্টস স্কুলে যেতে চাই না, আমরা বাসায় ফিরে যাবো, কেমন?

বাবা তার কথা শোনেন না।  বাসায় এত অর্থ নেই। দ্বিতীয় দিন, চু আন লিয়াং ও তার স্ত্রী উপহার হিসেবে কিছু খাবার তৈরি করে আত্মীয়স্বজনের কাছে যান কিছু অর্থ ঋণ নেয়ার জন্য। তাদের আত্মীয়স্বজন সবাই গ্রামে থাকে, বেশি অর্থ নেই। তারপরও ৫০০ ইউয়ান, ১০০০ ইউয়ান এরকম সবাই চেষ্টা করে অর্থ সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করলেন। ৩ দিন পর, অবশেষে চু আন লিয়াং ও তার স্ত্রী টিউশন ফি সংগ্রহ করলেন।

মনে অনেক আশা নিয়ে তারা চু থিং'কে চৌ খৌ শহরের স্পোর্টস স্কুলে পাঠান।

কিন্তু কিছু দিন পর একদিন সকালে, চু আন লিয়াং কৃষি গাড়ি মেরামত করার সময় মারাত্মকভাবে আহত হন। তার কোমরের হাড় ভেঙ্গে যায়। তাকে জরুরি অপারেশন করার প্রয়োজন পড়ে। 

চু আন লিয়াং দারুণ ব্যথা সহ্য করে পরিবারের সবাইকে বলেন, এ খবর চু থিং'কে জানাবে না। নাহলে সে বাবার জন্য দুশ্চিন্তা করবে এবং এটি তার প্রশিক্ষণে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। অপারেশনে এক লাখেরও বেশি ইউয়ান দরকার হয়। তার জন্য বাসার সব দামি জিনিস বিক্রি করা হয় ।এতে ৩০ হাজার ইউয়ান পাওয়া যায়। বাকি টাকা তারা আবার আত্মীয়স্বজনদের কাছ থেকে ঋণ নেন। অবশেষে অপারেশনের টাকা সংগ্রহ হয়।

মার্চ মাসে, চু থিং'র মা ইয়াং শুয়ে লান একটি গাড়ি ভাড়া করে স্বামীকে হাসপাতাল থেকে বাসায় নিয়ে আসেন। চু আন লিয়াং বাসায় বিশ্রাম নেয়ার সময় চু থিং'র বড় বোন লেখাপড়া বন্ধ করে দেন। ঋণ ফেরত দেয়ার জন্য তিনি উ শি শহরে গিয়ে চাকরি শুরু করেন। চু আন লিয়াং আবার স্ত্রীকে ও বড় মেয়েকে স্মরণ করিয়ে দেন যে, এ অবস্থা চু থিং'কে জানাবে না।

কঠোর প্রশিক্ষণের কারণে চু থিং'র সারা শরীর অনেক ব্যথা করে।  তিনি মাঝে মাঝে টেলিফোনে বাবাকে বলেন,

আকাশ:" বাবা, আমি আর স্পোর্টস স্কুলে পড়তে চাই না"।

তাঁর বাবা চু আন লিয়াং তা শুনে মনে অনেক দুশ্চিন্তা ও অস্থির বোধ করেন।

মে ১১, চু আন লিয়াং কোচের টেলিফোন পান। কোচ তাকে জানান,

আকাশ: চু থিং এখন প্রশিক্ষণে অনেক নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করে। আমি তাকে কিছু বকা দেয়ার পর, সে স্কুল ত্যাগ করে বাসায় ফিরে গিয়েছে।" টেলিফোনে এ কথা শুনে চু আন লিয়াংয়ের মাথা ঘুরে যায় এবং রক্ত চাপ বেড়ে যায়।

বিকালে, চু থিং লাগেজ নিয়ে বাসায় ফিরে আসে। ঘরে প্রবেশের পর দেখে তার মা অনেক চিন্তিত ও ক্লান্ত। বাবা বিছানায় শুয়ে আছেন, অনেক চিকন হয়ে গেছেন এবং চুলও সাদা হয়ে গেছে অনেক। চু থিং কাঁদতে শুরু করে বাবাকে জিজ্ঞাস করে,

আকাশ: বাবা তোমার কি হয়েছে? "

চু থিং'র মাও কাঁদতে শুরু করেন। চোখের পানি পড়তে পড়তে তাকে পরিবারের দুর্ঘটনা সব জানান। এ কথা শুনে চু থিং আরো জোরে কাঁদতে শুরু করে। তার বাবা চু আন লিয়াং কাঁদতে কাঁদতে তাকে বলেন,

আকাশ: মা, তোমার প্রশিক্ষণে যেন নেতিবাচক প্রভাব না পড়ে সেজন্য তোমাকে জানাই নি। আশা করি তুমি ভাল করতে পারবে ভবিষ্যতে। এখন তুমি হচ্ছো পরিবারের একমাত্র আশা। যদি তুমি স্কুল ত্যাগ করো তাহলে আমি এবং তোমার মা এ জীবনে আর কি আশা করতে পারি? চিকিত্সক আমাকে বলেছেন, আমার অপারেশন সফল হয়েছে, বাসায় কিছুদিন বিশ্রাম নেয়ার পর সব ঠিক হয়ে যাবে। তুমি চিন্তা করবে না, কেমন?"

এ মুহূর্তে, চু থিং বাবাকে পুরোপুরি বুঝতে পারে। সে বুঝতে পারে বাবার মিথ্যা কথার পিছনে রয়েছে তাঁর মনে ও শরীরের বেদনা ও চু থিং'র প্রতি আশা।

চু থিং'র চোখ দিয়ে পানি পড়তে থাকে। সে অনেক অনুশোচনা করে এবং নিজেকে দোষারোপ করে।  চু থিং বলে,

আকাশ: আব্বু, আম্মু, সব আমার দোষ, তোমাদেরকে অনেক কষ্ট দিয়েছি আমি। আব্বু, তুমি ভালভাবে বিশ্রাম নেবে, শরীরের প্রতি যত্ন নেবে। কাজ করার সময় শরীরের প্রতি খেয়াল রাখবে। আম্মু, তুমি আব্বুকে ভালভাবে যত্ন নেবে। কোনো চিন্তা করবে না, এখন থেকে আমি তোমাদেরকে আর হতাশ করবো না।

দ্বিতীয় দিন, চু থিং স্পোর্টস স্কুলে ফিরে যায়। নিজের ও পরিবারের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য পরিশ্রম করে চেষ্টা চালাতে শুরু করে।

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040