Web bengali.cri.cn   
একজন স্বেচ্ছাসেবক প্রতিবন্ধীর গল্প
  2019-10-23 14:37:48  cri

২০১৯ সালের ৮ মে বিকালে ক্লাস শেষ হওয়ার পর, সিছুয়ান প্রদেশের ইবিন শহরের ইউছাই মিডল স্কুলের জুনিয়র প্রথম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হ্যে ইউ স্যিন একজন ব্যক্তির আগমনের অপেক্ষা করছে। ‌এ ব্যক্তিটি হলেন গু ইয়ং ছিয়ং। গু ইয়ং ছিয়ং ৩০ বছর ধরে দুর্বল ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের সহায়তা করে আসছেন। এ ছাড়া, তিনি সেসব প্রবীণকে সহায়তা করে থাকেন, যাদের কেউ নাই। জনকল্যাণের পথ তিনি কখনো ত্যাগ করেননি। আজকের অনুষ্ঠানে আমি আপনাদেরকে গু ইয়ং ছিয়ংয়ের গল্প শোনাবো।

৫২ বছর বয়সী গু ইয়ং ছিয়ং হলেন ইবিন শহরের হেংশান স্বেচ্ছাসেবক সমিতির চেয়ারম্যান ও ছুনস্যিয়া শিশু যত্ন স্বেচ্ছাসেবক সমিতির তদারককারী। তিন বছর বয়সে গু ইয়ং ছিয়ং এক গাড়ি দুর্ঘটনায় পা হারান এবং একজন প্রতিবন্ধী মানুষে পরিণত হ। শিশুকালে তাঁর শিক্ষকরা ও বন্ধুরা তাঁকে অনেক যত্ন ও সহায়তা দিয়েছিল। এ সম্পর্কে গু ইয়ং ছিয়ং বলেন,

"ছোটবেলায় আমার বন্ধুরা আমার অনেক যত্ন নিত। আমি তাদের সঙ্গে স্কুলে যেতাম। তাঁরা নিয়মিত আমার ব্যাগ বহন করতো। কিন্তু আমি আমার অক্ষমতার জন্য ছোটবেলা থেকেই লজ্জা পেতাম। আমার শিক্ষকরা ও বন্ধুরা অবশ্য আমার কষ্ট দূর করতে অনেককিছু করেছে। সেজন্য আমি বড় হওয়ার পর অন্যের যত্ন করতে চাই।"

বড় হওয়ার পর গু ইয়ং ছিয়ং সিছুয়ান প্রদেশের প্রতিবন্ধী ফেডারেশনের একটি গাড়ি মেরামত কেন্দ্রে কাজ নেন। কেন্দ্রের সাবেক প্রধান গু ইয়ং ছিংকে অনেক সহায়তা করেছেন। তখন থেকে গু ইয়ং ছিয়ং অন্যকে সহায়তা করতে নিজের কাছে নিজে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন। ১৯৮৯ সালে তিনি ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা ইবিন শহরে জিংস্যিন গাড়ি মেরামত কারখানা প্রতিষ্ঠা করে।

২০১৪ সালে 'দি লেফ্ট-বিহাইন্ড চিল্ড্রেন' গণকল্যাণ সংস্থা ছুনস্যিয়া শিশু যত্ন স্বেচ্ছাসেবক সমিতি প্রতিষ্ঠা করে। গু ইয়ং ছিয়ং সংস্থায় যোগ দেন। তিনি ৪০ জনেরও বেশি শিশুকে সহায়তা দিতে থাকেন। তিনি প্রতিমাসে শিশুদের কাছে গিয়ে তাদের জন্য রান্না করতেন। তিনি যেন শিশুদের মা-এর মতন।

৪০ জনেরও বেশি শিশুর মধ্যে হ্যে ইউ স্যিন হলেন একজন। হ্যে ইউ স্যিন জয়েইস্যি থানায় থাকে। থানাটি ইবিন শহরের উপকন্ঠে পাড়াহি এলাকায় অবস্থিত। থানায় পরিবহন-ব্যবস্থা ভাল না। গাড়ি অনেক কষ্টে থানায় প্রবেশ করতে পারে। কিন্তু গু ইয়ং ছিয়ং মনে করেন দরিদ্র এলাকার শিশুদের বেশি সহায়তা করা উচিত। প্রথম দিকে কোনো কোনো শিশু তাঁর যত্নের মর্যাদা বুঝতে পারেনি। কিন্তু গু ইয়ং ছিয়ং মায়ের মত তাদেরকে যত্ন করতে থাকেন। এ সম্পর্কে হ্যে ইউ স্যিন বলেন, "আন্টি গু প্রতি মাসে আমাদের কাছে আসেন; এক বা দুই বার। আন্টি গু খুবই দয়াবান। তিনি আমাদের জন্য পোষাক কেনেন এবং গান শেখান। আমাদের কাছে তিনি মায়ের মতন।"

গু ইয়ং ছিয়ংয়ের মেয়ে ছেন ওয়েন চু স্মৃতিচারণ করে বলেন, তিনি ও তাঁর ছোট ভাই ছেন ছিয়ান'র ছোটবেলায়ও তাঁদের মা সবসময় স্বেচ্ছাসেবকের কাজ করতেন। তখন তাঁরা মাকে বুঝতেন না। কারণ, তিনি অন্যান্য শিশু'র মায়ের মতো নিজের শিশুদের কাছে থাকতেন না। এ ছাড়া, তাঁদের মা একজন প্রতিবন্ধী মানুষ। কিন্তু সবসময় স্বেচ্ছাসেবকের কাজ করেন রাত পর্যন্ত। গু ইয়ং ছিয়ংয়ের পরিবারের সবাই তাঁকে নিয়ে চিন্তিত থাকতেন। বড় হওয়ার পর ছেন ওয়েন চু ও ছেন ছিয়ান মায়ের মত স্বেচ্ছাসেবকের কাজে অংশ নেন। আস্তে আস্তে তাঁরা মাকে বুঝতে শেখেন। এ সম্পর্কে ছেন ওয়েন চু বলেন, "শিশুরা সহায়তা পেয়েছে এবং সাফল্যের সাথে তাদের পড়াশোনা শেষ করেছে। তাঁদের জীবন পরিবর্তন হয়েছে। আমার মনে হয়, আমাদের মা একজন মহান মানুষ। সেজন্য আমিও স্বেচ্ছাসেবকের কাজে অংশ নিয়েছি।'

গু ইয়ং ছিয়ং নিজের গাড়ি মেরামত কারখানার আয় দিয়ে গণকল্যাণের কাজ করেন। কিন্তু তাঁর সহকর্মীরা তাঁকে সমর্থন করেন এবং তাঁর গণকল্যাণমূলক কাজে অংশ নেন। তিনি বাইরের কোনো সাহায্য ছাড়াই ৩৮০ জন শিশুর পড়াশোনার দায়িত্ব বহন করেছেন।

২০১৮ সালের মে মাসে গু ইয়ং ছিয়ং অন্য কয়েক বন্ধুর সঙ্গে 'হেংশান স্বেচ্ছাসেবক সমিতি' গড়ে তোলেন। এক বছরেরও কম সময়ে ২৪৮ জন স্বেচ্ছাসেবক সমিতিতে নাম নিবন্ধন করান। সমিতি অনাথ গ্রামীণ শিশুদের সহায়তা করে থাকে। এ সম্পর্কে স্বেচ্ছাসেবক চাং ছুয়ান খ্যে বলেন, আমরা সবাই গু ইয়ং ছিয়ংয়ের প্রভাবে গণকল্যাণের কাজ শুরু করি। তিনি অনেক মানুষকে সহায়তা করেছেন। আমরা তাঁর সঙ্গে অন্যকে সহায়তা করার চেষ্টা করতে চাই।"

গু ইয়ং ছিয়ংয়ের সন্তানরা, সহকর্মীবৃন্দ এবং তিনি যে-সব শিশুকে সহায়তা করেছেন—তারাও তার দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল। তাঁরা স্বেচ্ছাসেবকের কাজে অংশ নিচ্ছেন। এ সম্পর্কে জিংস্যিন গাড়ি মেরামত কারখানার কর্মী লি জুন বলেন, "আমরা অন্যকে সহায়তা করার চেষ্টা করি ও তাদের মাধ্যমে আরও বেশি লোককে উত্সাহিত করার চেষ্টা করি। এতে আমার আনন্দ হয় এবং আমি তৃপ্তি পাই। সেজন্য গু ইয়ং ছিয়ংয়ের নেতৃত্বে আমি দশ বছর ধরে গণকল্যাণের কাজ করছি। আমি তাঁকে সমর্থন করি।"

গু ইয়ং ছিয়ং মনে করেন, জনকল্যাণমূলক কাজে যে সুখ অর্জন করা যায়, তা তুলনাহীন। এ সম্পর্কে মাদাম গু বলেন, "যখন বাচ্চাগুলো আমার ওপর পুরোপুরি নির্ভর করে, তখন আমার মনে হয়, এটি ব্যবসায়ীর সাফল্যের চেয়ে আরও মূল্যবান। আমি সবসময় আমার সন্তানদেরকে বলি, এ ধরনের ভালবাসা ও যত্নের প্রচার হওয়া উচিত।"

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040