Web bengali.cri.cn   
আজকের টপিক: চীনের বিভিন্ন খাতে উন্নয়নের শুরু হয়েছিল যেভাবে
  2019-10-02 14:42:59  cri

 

হয়তো অনেক শ্রোতা ইতোমধ্যেই জেনেছেন যে, চলতি বছর হলো গণপ্রজাতন্ত্রী চীন প্রতিষ্ঠার ৭০তম বার্ষিকী।1204 ৭০ বছরে অসংখ্য নতুন জিনিস চীনের মাটিতে জন্ম নিয়েছে, বেড়ে উঠেছে, শক্তিশালী হয়েছে।

১৯৫০ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের নিজস্ব প্রযুক্তিতে প্রথম সাইকেল উত্পাদন করে থিয়েন চিন সাইকেল কোম্পানি। সেই সময় ছিলো বিশ্ব শান্তি আন্দোলনের সময়। তাই চীনের প্রথম সাইকেলের পরিচিত হয় 'ফেইকো' নামে। 'ফেইকো' মানে উড়ন্ত কবুতর আর চীনারা কবুতরকে শান্তির প্রতীক মনে করে।

১৯৫২ সালের পয়লা জুলাই চীনের ছেংতু থেকে ছোংছিং পর্যন্ত রেলপথের নির্মাণকাজ শেষ হয় এবং সেই রেলপথে ট্রেন চলাচল শুরু করে। রেলপথের মোট দৈর্ঘ্য ছিল ৫০৫ কিলোমিটার। গণপ্রজাতন্ত্রী চীন প্রতিষ্ঠার পর নির্মিত প্রথম রেলপথ এটি। এরপর চীনের রেলপথ নেটওয়ার্ক ধাপে ধাপে চার দিকে বিস্তৃত হয়েছে এবং এখনও যাচ্ছে।

১৯৫৩ সালের ২৭ অক্টোবর চীনে প্রথম ইস্পাতের রড সাফল্যের সঙ্গে চীনের আনশান শহরে উত্পাদিত হয়। ইস্পাতের রড নির্মাণ-শিল্পের জন্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ইস্পাতের রড উত্পাদনে সক্ষম হওয়ায় চীন রূপান্তরের পথে বড় এক পদক্ষেপ নিতে সক্ষম হয়।

১৯৫৩ সালে 'পা ই হাও' নামক গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের প্রথম বাষ্প ইঞ্জিনচালিত রেলগাড়ি চীনের ছিংতাও শহরে পরীক্ষামূলকভাবে উত্পাদিত হয়।

১৯৫৪ সালে নয়াচীনের প্রথম বিমানের গবেষণা ও উত্পাদনের কাজ শেষ হয় এবং নানছাং পরীক্ষামূলকভাবে উড্ডয়ন হয়। তখন থেকে চীনের বিমান শিল্পের উন্নয়নে নতুন অধ্যায় উন্মোচিত হয়।

১৯৫৫ সালের ২৪ মার্চ মাসে নয়াচীনের প্রথম ঘড়ি থিয়েন চিন শহরে উত্পাদিত হয়। তখন থেকে চীনের নিজস্ব ব্রান্ডের ঘড়ি উত্পাদন শুরু হয়।

১৯৫৬ সালের ১৩ জুলাই 'চিয়েনফাং' নামে নয়াচীনের প্রথম চার টনের ট্রাক ছাংছুন শহরে উত্পাদিত হয়। এর মাধ্যমে চীনের নিজস্ব ব্রান্ডে গাড়ি উত্পাদনের নয়া যুগ শুরু হয়।

১৯৫৭ সালে নয়াচীনের 'ইয়াংজি নদীর প্রথম সেতু' হিসেবে পরিচিত উহান ইয়াংজি নদীর সেতুতে ট্র্যাফিক চলাচল শুরু হয়। ফলে নয়াচীন সেতু নির্মাণের নতুন যুগে প্রবেশ করে।

১৯৫৮ সালে নয়াচীনে প্রথম নিজস্ব ব্রান্ডের টিভি সেট উত্পাদিত হয়।

১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই চীনাদের উত্পাদিত প্রথম ট্র্যাক্টর উত্পন্ন হয়। এতে হাজার হাজার বছর ধরে গরু-মহিষের মাধ্যমে জমিচাষের যুগের অবসান ঘটার প্রক্রিয়া শুরু হয়।

১৯৬৮ সালে নানচিং ইয়াংজি নদীর সেতু নির্মিত হয়। এটি ইয়াংজি নদীর উপরে চীনের নিজস্ব ডিজাইনে উত্পাদিত হয় চীনের প্রথম ডাবল লেয়ার সেতু। এই সেতু চীনের সেতু নির্মাণের উন্ন মানের প্রমাণ বহন করে।

১৯৬৯ সালের পহেলা অক্টোবর বেইজিং সাবওয়ের এক নম্বর লাইনের নির্মাণকাজ শুরু হয়। এটি গোটা চীনের প্রথম পাতাল রেললাইন।

১৯৮৮ সালের ৩১ অক্টোবর চীনের প্রথম দ্রুতগতির মহাসড়কের নির্মাণকাজ শেষ।

২০০৮ সালের পহেলা অগাস্ট চীনের সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তিতে বিশ্বের প্রথমশ্রেণীর দ্রুতগতির রেলপথ 'বেইজিং-থিয়েনচিন রেলপথ' চালু হয়। তখন থেকে চীনের রেল-যোগাযোগ খাতে বিপ্লবের শুরু।

২০১২ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর চীনের প্রথম বিমানবাহী রণতরী আনুষ্ঠানিকভাবে নৌবাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। এর মাধ্যমে চীনাদের বিমানবাহী রণতরীর শত বছরের স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়।

২০১৭ সালের ৫ মে চীনের নিজস্ব গবেষণা ও নকশায় প্রথম সুপরিসর যাত্রীবাহী বিমান সাফল্যের সঙ্গে আকাশে ওড়ে। বেসামরিক বিমান চলাচল খাতে এটা ছিল চীনের উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ একটি মাইলফলক। (লিলি/আলিম)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040