Web bengali.cri.cn   
পরিবর্তিত বিশ্বে এগিয়ে যাচ্ছে চীন
  2019-09-04 09:52:05  cri

নতুন শতাব্দীর তৃতীয় দশক শুরু হতে যাচ্ছে। আর এমন একটা সময়ে আমাদের বিশ্ব যেন পেছন দিকে হাঁটছে। আন্তর্জাতিক আর্থিক সংকট পাশ্চাত্যের উদারনীতির ওপর আঘাত হানছে; বিশ্বায়ন প্রক্রিয়া হচ্ছে বাধাগ্রস্ত। নতুন প্রযুক্তি ও শিল্পের প্রভাবে উন্নয়নের ধারণা ও পদ্ধতি গভীরভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে। পাশাপাশি, সন্ত্রাসবাদের হুমকি এখনও রয়ে গেছে; কোথাও কোথাও চলছে আঞ্চলিক যুদ্ধ। এ বিশ্ব কোন দিকে যাচ্ছে? সম্প্রতি চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং বলেছেন: 'বর্তমান বিশ্বে সাম্প্রতিককালে যে-পরিবর্তন ঘটেছে, তা বিগত একশ বছরেও ঘটেনি'। বস্তুত, চীনে উন্নয়নের গতি এবং বিশ্বব্যাপী তার প্রভাব বৃদ্ধির গতি অভূতপূর্ব। চীন এখন উন্নয়নের যুগে রয়েছে।

উন্নয়নশীল দেশগুলোর পুনরুত্থান এবং বিশ্ব পরিস্থিতি রূপান্তরকাল

১৯১৯ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষ হবার পর, প্যারিসে শান্তি-আলোচনায় অংশগ্রহণকারী দেশের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৭টি। এখন জাতিসংঘের সদস্যদেশ ১৯৩টি। ২০১৮ সালে বিশ্ব অর্থনীতির মোট পরিমাণে উদীয়মান বাজারদেশ ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর অবদান ছিল ৪০ শতাংশ এবং বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধিতে তাদের অবদান ছিল ৮০ শতাংশ। এভাবে চললে, আগামী দশ বছরে উন্নয়নশীল দেশগুলো বিশ্বের অর্থনীতির অর্ধেকের অধিকারী হবে।

জাতিসংঘের আনুমানিক হিসেব অনুযায়ী, ২০৫০ সালে বিশ্বের লোকসংখ্যা হবে ১০০০ কোটি এবং এর মধ্যে ৮৫০ কোটি হবে উদীয়মান বাজারদেশ ও উন্নয়নশীল দেশের মানুষ। উদীয়মান বাজারদেশ ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর পুনরুত্থানের কারণে আন্তর্জাতিক শক্তির ভারসাম্য পরিবর্তিত হয়েছে।

গত ১০০ বছরে এশিয়ার ১০০ কোটি মানুষ এশিয়ার চেহারা পাল্টে দিয়েছে। এশিয়া ঔপনিবেশিক মহাদেশ থেকে নতুন বিশ্বের কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। আফ্রিকা মরিয়া মহাদেশ থেকে আশাবাদী মহাদেশে পরিণত হয়েছে এবং ল্যাটিন আমেরিকা পশ্চিমাদের 'নতুন বিশ্ব' থেকে স্বাধীন আধুনিক উন্নয়নশীল অঞ্চলে পরিণত হয়েছে।

উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনৈতিক সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে ২০০৮ সালের আন্তর্জাতিক আর্থিক সংকটের পর, প্রধান উন্নয়শীল দেশগুলো জি-টোয়েন্টির আওতায় দিন দিন আরও প্রভাবশালী হয়েছে।

আগে মানুষ পর্যায়ক্রমে বাষ্পীয় ইঞ্জিন যুগ, বৈদ্যুতিক যুগ, ও তথ্যযুগে প্রবেশ করে। এখন চলছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, দূষণ-বিহীন জ্বালানি ও বায়োটেকনোলজির চতুর্থ বিপ্লব। এক্ষেত্রে উন্নয়নশীল ও শিল্পোন্নত দেশগুলো একই কাতারে এসে দাঁড়িয়েছে।

পরিবর্তনে দেখা যায় অনিশ্চয়তাও। যেমন, আধিপত্যবাদ ও শক্তির রাজনীতি, একতরফাবাদ ও সংরক্ষণবাদ, জাতীয়তাবাদ এবং বহুপক্ষবাদ। ইউরোপ একীকরণ ও বিছিন্নতার মধ্যে আসা-যাওয়া করছে; মধ্যপ্রাচ্য ও ল্যাটিন আমেরিকায় প্রায়ই আঞ্চলিক সংঘাত ঘটছে। বিশ্ব অর্থনীতির উন্নয়নের গতি হয়ে গেছে শ্লথ।

পাশাপাশি, বিশ্বব্যাপী বৈষম্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। ধনী-গরীবের ব্যবধান বাড়ছে। প্রযুক্তির বিপ্লব সৃষ্টি করছে ওভার ক্যাপাসিটি। সন্ত্রাসবাদ, সাইবার নিরাপত্তা, গুরুতর সংক্রামক রোগ, জলবায়ু পরিবর্তনসহ অপ্রথাগত নিরাপত্তা-হুমকির বিস্তার ঘটছে। মানবজাতি অভিন্ন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীণ হচ্ছে। আরও উদ্বেগের ব্যাপার হল, বড় দেশগুলোর মধ্যে সম্পর্ক অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র একসময় আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলার স্রষ্টা ছিল। এখন সেই যুক্তরাষ্ট্র আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলাকে নষ্ট করছে। পাশাপাশি, যুক্তরাষ্ট্র চীনকে তার কৌশলগত প্রতিযোগী হিসেবে মনে করে এবং গেল এক বছর ধরে চীনের বিরুদ্ধে বাণিজ্য-যুদ্ধ চালিয়ে আসছে। শক্তিশালী পাশ্চাত্য দেশগুলো উন্নয়নশীল দেশগুলোর পুনরুত্থান দেখে ভয় পাচ্ছে। অথচ সুযোগ পেতে ও ধরতে চাইলে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়। সংকট সুযোগ সৃষ্টি করে। সংকটকে সুযোগে পরিণত করা উচিত।

যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চুক্তি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছে এবং নিজের চারপাশে 'দেওয়াল' তৈরি করছে। অথচ শান্তি ও সুন্দর জীবন মানুষের অভিন্ন প্রত্যাশা। আর শান্তি ও সুন্দর জীবনের জন্য আঞ্চলিক সহযোগিতা জোরদার করা ও বহুপক্ষবাদকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া জরুরি। এ অবস্থায় বিশ্বের জন্য এখন আরও দায়িত্বশীল বড় দেশ প্রয়োজন। নতুন দফা আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলা তৈরির মাধ্যমে আরও ন্যায্য ও যুক্তিযুক্ত বৈশ্বিক প্রশাসনব্যবস্থা ও আন্তর্জাতিক নিয়ম গড়ে তুলতে এর বিকল্প নেই।

এমনি প্রেক্ষাপটে, চীনের সংস্কার ও উন্মুক্তকরণ নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করেছে এবং চীনের পরিশ্রম ও বিশ্বের ভবিষ্যত এ মুহূর্তে এক বিন্দুতে এসে মিলেছে। চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং বলেন, শান্তি ও উন্নয়নের জন্য মানবজাতির অভিন্ন কমিউনিটির ধারণা বাস্তবায়ন করতে হবে, মানবজাতির অভিন্ন বাসস্থান সংরক্ষণ করতে হবে। অপেক্ষার চেয়ে বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণ শ্রেয়। মানবজাতির ভাগ্য নিজের হাতে রাখতে চেষ্টা করতে হবে।

বিশ্বের শান্তির নির্মাতা, বিশ্বের উন্নয়নে অবদানকারী, আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলার রক্ষী হতে চায় চীন। চীন যেটা বিশ্বাস করে, ঠিক সেইভাবে কাজ করে। মানবজাতির অভিন্ন লক্ষ্যের কমিউনিটি, 'এক অঞ্চল, এক পথ', এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংক, রেমপথ তহবিল, আন্তর্জাতিক আমদানি মেলা, সভ্যতা সংলাপ, বাস্তব সহযোগিতা ইত্যাদি বিশ্ব ও নিজের জন্য চীনের উদ্যোগ। চীন নিজের উন্নয়নের পাশাপাশি, এভাবেই বিশ্বের উন্নয়ন চায়।

একটি আন্তর্জাতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিভিন্ন খাতে চীনের অবদান অনস্বীকার্য। বৈশ্বিক রাজনীতি ও অর্থনীতির উন্নয়নে চীন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। বতর্মানে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে চীন ধৈর্য সহকারে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। চীন জানে যে, ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ আরও জটিল হবে এবং এতে সুযোগও সৃষ্টি হবে। আন্তর্জাতিক পরিস্থিতিতে যতই পরিবর্তন ঘটুক না কেন, শান্তি, উন্নয়ন, সহযোগিতা ও সকলের কল্যাণের মূল প্রবণতা বজায় থাকবে এবং চ্যালেঞ্জের চেয়ে সুযোগ সবসময়ই বেশি হবে বলে চীন বিশ্বাস করে।

বিশ্বের পরিবর্তনে চীন ভয় পায় না। চীন বরাবরের মতোই দৃঢ়ভাবে সামনে এগিয়ে যাবে। চীন বিশ্বের নানা দেশের জনগণের সঙ্গে একযোগে মানবজাতির অভিন্ন লক্ষ্যের কমিউনিটি গঠন করবে এবং একসাথে আরও সুন্দর বিশ্ব গড়ে তুলবে। (শিশির/আলিম/রুবি)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040