Web bengali.cri.cn   
নির্বাক রেস্টুরেন্ট
  2019-05-22 09:17:01  cri

আজব রেস্টুরেন্ট। এখানে প্রবেশ করলে কেউ আপনাকে মুখে স্বাগত জানাবে না; বরং হাত নেড়ে ও মুখের হাসি দিয়ে আপনাকে স্বাগত জানানো হবে। হ্যাঁ, এমন একটি রেস্টুরেন্টের নাম 'চু ফু ক্য'। এটি একটি নির্বাক রেস্টুরেন্টে। এখনও যারা বিষয়টা বুঝতে পারেননি, তাদের জন্য বলছি: রেস্টুরেন্টের ওয়েটার-ওয়েট্রেসরা সবাই বধির। তাঁরা কারও কথা শোনেন না। তাদের ভাষা হচ্ছে ইশারা-ভাষা।

রাত ৮টা। শেষ কাষ্টমার চলে গেছেন। রেস্টুরেন্টের ওয়েটাররা অসবর সময় পেয়েছেন। সবাই বসে ইশারা ভাষায় আড্ডা দিচ্ছেন। ওয়ান সুয়ে হুয়া ওয়েটার ও কাষ্টমারের মধ্যে 'অনুবাদক' হিসেবে কাজ করেন। শুরুতে অনুবাদক হিসেবে ওয়ান সুয়ে হুয়ার সময় সুখকর ছিল না। এ ব্যাপারে তার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ ছিল না। তিনি সাংবাদিককে জানান, রেস্টুরেন্ট চালুর প্রথম ছয় মাসে তার গলার খুব খারাপ অবস্থা হয়। কাষ্টমার হয়তো ডাকছেন, কিন্তু বধির ওয়েটার শুনতে পাচ্ছেন না। তখন হয়তো তিনি কাস্টমারের হয়ে জোরে জোরে চিত্কার করে ওয়েটারকে ডাকেন। এতে আবার যে তেমন একটা কাজ হতো তা-ও না! বধির ওয়েটারদের আবার কাজের অভিজ্ঞতা ছিল না। রেস্টুরেন্টে কীভাবে সেবা দিতে হয়, তা তাদের শিখিয়ে দিতে হয়েছে। ওয়ান সুয়ে হুয়া এই কাজটি করেছেন। অবসর সময়ে ওয়ান সুয়ে হুয়া কাগজে লিখে তাদের প্রশিক্ষণ দিতেন। তবে কাজটা তার জন্য কঠিন ছিল। তবে, ওয়েটারদের আন্তরিকতা ও শেখার আগ্রহ তাকে এই কষ্ট করতে উত্সাহিত করে।

৪০ বছর বয়সি হু ইয়ান বধির ওয়েটারদের একজন। তিনি খুব ইতিবাচক ও আশাবাদী একজন মানুষ। তিনি সাংবাদিককে বলেন, তার জন্য এ চাকরি যেন একটি উপহার। এই চাকরি তার আত্নবিশ্বাস বাড়িয়েছে।

মিঃ ছেন এ রেস্টুরেন্টের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি এ পদ্ধতির মাধ্যমে বধির প্রতিবন্ধী মানুষের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে। তিনি আশা করেন, এর মাধ্যমে সাধারণ মানুষের সঙ্গে বধির মানুষদের যোগাযোগ বাড়বে এবং সাধারণ মানুষ বধিরদের আরও ভালোভাবে বুঝতে পারবে। ২০১৭ সালে তিনি বেইজিংয়ে প্রথমবারের মতো দেখেন একটি নির্বাক রেস্টুরেন্ট এবং তিনি আবিষ্কার করেন যদিও ওয়েটাররা কথা বলতে পারেন না, তবে তারা অর্ডার গ্রহণ করতে পারেন। তখন তিনি নিজের জন্মস্থান নান ছাং শহরে এমন একটি রেন্টুরেন্ট খুলতে আগ্রহী হলেন।

তিনি স্থানীয় প্রতিবন্ধী কমিটির সঙ্গে যোগাযোগ করে ১০ জন বধির মানুষ নিয়োগ করেন। তবে শুরুতে ব্যবসা ভালো ছিল না। কর্মীরা শুরুর দিকে প্রতিনিয়ত থালাবাসন ভেঙে ফেলত। কখনও কখনও তারা কাষ্টমারের সঙ্গে ঠিকমতো যোগাযোগ করতে পারতো না বলে কাষ্টমাররা রেস্টুরেন্ট ছেড়ে চলে যেতেন।

তবে মিঃ ছেন আশা ছাড়েননি।। তিনি কিছু টোকেন তৈরি করলেন,আ যেগুলো ব্যবহার করে কাষ্টমার অর্ডার দিতে পারেন। অন্যদিকে প্রতিটি টেবিলে স্থাপন করা হয় একটি করে বেল। বেলটি আবার বধির ওয়েটারদের কব্জির সঙ্গে আটকানো একটি যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত। কাস্টমার বেল বাজালে কব্জির যন্ত্র কম্পন সৃষ্টি করে। এভাবে ধীরে ধীরে ব্যবসা জমে যায়। এখন সব বধির ওয়েটার খুব ভাল কাজ করতে পারেন এবং কাষ্টামার তাদের আন্তরিকতা দেখে তাদের ছোটখাটো সীমাবদ্ধতাকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখেন।

যেদিন আমাদের সংবাদিক রেস্টুরেন্ট পরিদর্শনে যান, সেদিন দু'জন ওয়েটারের জন্মদিন ছিল। রাতে দিনের কাজশেষে সবাই একসাথে বসে কেক কেটে দু'টি মেয়ে ওয়েটারের জন্মদিন উদযাপন করে। এ উদযাপন অনুষ্ঠান একটু বিশেষ, কারণ অনুষ্ঠানও নির্বাক। তারা জন্মদিনের গান গায়, তবে কানের বদলে মনের মাধ্যমে শুনতে পায়! দুটি মেয়ে মোমবাতির আলো নিভিয়ে জন্মদিন পালন করে।

দুটি মেয়ের মধ্যে একজন ৩১ বছর বয়সি ছেন সিয়াও ইয়ান এবং অন্য একজন ২৯ বছর বয়সি চৌ থিং। তারা শুরু থেকে এ রেন্টুরেন্টে কাজ করছেন। চৌ থিং বলেন, এখানে তার অনেক বন্ধু হয়েছে এবং কখনও নিঃসঙ্গ লাগে না তার। তিনি বলেন, রেস্টুরেন্টের কাস্টমারদের অনেকেই এখন তার পরিচিত। তারা নিয়মিত এখানে আসেন। ব্যস্ত সময়ে কাষ্টমাররা অনেক সময় ওয়েটারদের না-ডেকে নিজেরাই খাবার সংগ্রহ করেন কাউন্টার থেকে। ওয়েটারদের ছোটখাটো ভুল তারা উপেক্ষা করেন।

মিঃ ছেন বলেন, তিনি কাষ্টমারদেরকে ধন্যবাদ জানাতে চান। কারণ, তাদের এমন আচরণ ওয়েটারদের আত্মসম্মান এবং আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়। মিঃ ছেন এখন রন্ধন সমিতির সঙ্গে যোগাযোগ করছেন এবং অন্য বড় হোটেল বা রেস্টুরেন্টে নির্বাক এলাকা চালু করতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

নিজের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বধির মানুষের জন্য আরও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে চান তিনি। তিনি চান, তারাও নিজের হাত দুটো দিয়ে সুন্দর জীবন গড়ে তুলুক।

নান ছাং শহরের শ্রম ইউনিয়ানের সিপিসির উপ-সম্পাদক লি লিন মনে করেন, প্রতিবন্ধী মানুষের কর্মসংস্থান সবসময় একটি সমস্যা, বিশেষ করে বধির মানুষের জন্য। নির্বাক রেস্টুরেন্ট ভাল একটি উদ্যোগ। এতে বধির মানুষ শুধু একটি কাজ পায় তা নয়, এতে তাদের শরীর ও মনের অবস্থাও উন্নত হয়। তাদের জন্য সবার ভালবাসা প্রয়োজন। তবে, তাদেরকে জীবনের সৌন্দর্য দেখানো আরও গুরুত্বপূর্ণ এক ব্যাপার।(শিশির/আলিম)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040