Web bengali.cri.cn   
হান হুং
  2019-05-15 09:56:19  cri

হান হুং সুরকার, গায়িকা, গীতিকার, সঙ্গীত-প্রযোজক, পরিচালক, উপস্থাপিকা, চীনের জাতীয় রাজনৈতিক পরামর্শ সম্মেলনের সদস্য, চীনের প্রথম শ্রেণীর অভিনেত্রী। হান হুং দাতব্য তহবিলের প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। এ ছাড়া তিনি হলেন হুয়ালুপাইনা বিনোদন কোম্পানির সিইও। ২০১৬ সালে চীনের দাতব্যকাজে নিবেদিত ব্যক্তিদের তালিকায় তিনি প্রথম স্থানে ছিলেন। হান হুং চায়না কনসার্ভাটারি অব মিউজিক থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন।

১৯৭১ সালে হান হুং একটি শিল্প-পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ৫ বছর বয়সে হান হুং গায়কদলে যোগ দেন। ১৯৮০ সালে যখন হান হুং-এর বয়স ৯ বছর, তখন তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে শিশু-গায়কদলে যোগ দেন এবং আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেন।

১৯৮৭ সালে হান হুং চীনের মুক্তিফৌজের দ্বিতীয় গোলন্দাজ বাহিনীর শিল্পদলে যোগ দেন। ১৯৯৩ সালে হান হুং গান রচনা শুরু করেন। ১৯৯৫ সালে হান হুং চিনের গণমুক্তি ফৌজের শিল্প ইন্সটিটিউটের সঙ্গীত বিভাগে ভর্তি হন।

১৯৯৬ সালে চীনের তালিয়ানে চীনের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের আয়োজিত চীনের কন্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতায় হান হুং চ্যাম্পিয়ন হন। একই বছর চীনের সংস্কৃতিক মন্ত্রণালয় 'খুং ফান সেন' নামে সঙ্গীত প্রতিযোগিতা আয়োজন করে। হান হুং এতে গীতিকার ক্যাটাগরি এবং গায়ক ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন হন।

১৯৯৬ সাল থেকে হান হুং অন্যান্য কন্ঠশিল্পীর জন্য গান রচনা এবং অ্যালবাম প্রযোজনার কাজ শুরু করেন। তার রচিত 'শুভরাত্রী আমার প্রিয়', 'চীনা জাতি', 'তোমার সঙ্গে ওড়া' ইত্যাদি গানগুলো খুব জনপ্রিয়। এ ছাড়া তিনি বেশ কয়েকটি টিভি নাটকের জন্য থিম সংও রচনা করেছেন এবং গান গেয়েছেন।

১৯৯৭ সালে তার প্রথম অ্যালবাম 'তিব্বত মালভূমির গৌরব' প্রকাশিত হয়। ২০০৩ সালে হান হুং চীনের কেন্দ্রীয় টেলিভিশন (সিসিটিভি) আয়োজিত পঞ্চম সঙ্গীত প্রতিযোগিতার সবচেয়ে জনপ্রিয় গায়িকার পুরস্কার পেয়েছেন। এর মাধ্যমে হান হুং সব মহলে সুপরিচিত হয়ে ওঠেন।

২০০৫ সালে হান হুং নিজের প্রতিনিধিত্বশীল গান 'আকাশের সড়ক'-এর জন্য 'আমার সবচেয়ে প্রিয় বসন্ত উত্সবের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান'-এ তৃতীয় পুরস্কার লাভ করেন।

২০০৮ সালের ২৬ জানুয়ারি হান হুং বেইজিংয়ে ব্যক্তিগত কনসার্ট আয়োজন করেন। ২০১৩ সালে তিনি টিভি অনুষ্ঠান 'চায়না আইডল'-এর বিচারক হিসেবে অংশ নেন।

২০১৫ সালে হান হুং চীনের হুনান টেলিভিশনের 'I am singer'-এর তৃতীয় পর্বে অংশ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হন।

সঙ্গীত ছাড়া হান হুং দাতব্যকাজেও সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছেন এবং নিজের অবদান রেখেছেন। ২০০৭ সালে তার উদ্যোগে 'তিব্বতে ভালোবাসার যাত্রা'-সহ বেশ কয়েকটি দাতব্য প্রকল্প চালু হয়েছে।

২০১২ সালে হান হুং দাতব্য তহবিল আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

প্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানে মূলত আপনাদেরকে চীনের জনপ্রিয় গায়িকা হান হুং-এর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিলাম এবং তার কণ্ঠে কয়েকটি সুন্দর গান শোনালাম। আশা করি গানগুলো আপনাদের ভালো লেগেছে।

শ্রোতাবন্ধুরা, এশীয় সভ্যতার সংলাপ সম্মেলন বেইজিংয়ে চলছে। এই আয়োজনের থিম সং 'আমাদের এশিয়া' গত ৯ মে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত হয়েছে। এখন আমরা এই গানটি উপভোগ করবো।

গানের কথা এমন:

সূর্যালোক ভরা এশিয়া

প্রতিদিন উষ্ণ আমার বাসা

পাহাড় ও নদ-নদীতে সংযুক্ত

এত ঘনিষ্ঠ আমাদের এশিয়া

যৌবন ও প্রাণচঞ্চল এশিয়া

প্রতিমূহূর্তে আমাকে পরিবর্তনের উত্সাহ দেয়

সুখের প্রতিশ্রুতি, আমাদের এশিয়া

সূর্যালোক ভরা এশিয়া

প্রতিদিন উষ্ণ আমার বাসা

পাহাড় ও নদ-নদী সংযুক্ত

এত ঘনিষ্ঠ আমাদের এশিয়া

সুন্দর এশিয়া, গৌরবের এশিয়া,

আমরা একই পরিবারের, হাতে হাত রাখা

সুন্দর এশিয়া, গৌরবের এশিয়া,

আমরা একই পরিবারের, হাতে হাত রাখা

আজকের অনুষ্ঠান এখানেই শেষ হলো। সবাই ভালো থাকুন, সুন্দর থাকুন। পরের আসরে আবার কথা হবে।

(শুয়েই/আলিম/সুবর্ণা)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040