Web bengali.cri.cn   
সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ব্যবস্থাপনা গবেষণা সম্মেলন আয়োজন করেছে লানছাং-মেকং নদী তীরবর্তী ছয়টি দেশ
  2019-03-12 10:38:42  cri

২০ ফেব্রুয়ারি লানছাং-মেকং জাতীয় সাংস্কৃতিক হেরিটেজ ব্যবস্থাপনা গবেষণা সম্মেলন মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত হয়েছে। চীন, মিয়ানমার, লাওস, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনাম ছয়টি দেশের সাংস্কৃতিক বস্তু রক্ষা ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিশেষজ্ঞরা সম্মিলিতভাবে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা এবং ব্যবস্থাপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন।

লানছাং-মেকং নদী—একই নদীর দু'টি ভিন্ন নাম। মিয়ানমার, লাওস, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া এবং ভিয়েতনামসহ চীনকে সংযুক্ত করে একটি গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক নদী। 'একে-অপরের জন্য অসীম প্রেম, একসঙ্গে একটি নদী পান', এই বাক্যটি চীনের জনগণ এবং মেকংয়ের জনগণের মধ্যে গভীর বন্ধুত্ব প্রকাশ করেছে।

মিয়ানমারে চীনের রাষ্ট্রদূত হং লিয়াংয়ের কথামতো, ৪৯০০ কিলোমিটারের লানছাং-মেকং নদী উত্তর থেকে দক্ষিণ ছয়টি দেশের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এ নদী বরাবর দেশগুলোর মধ্যে অনেক সাংস্কৃতিক যোগাযোগ ও মিল রয়েছে। যেমন, একটি প্রাকৃতিক বন্ডের অধীনে, ২০১৬ সালে লানছাং-মেকং সহযোগিতা ব্যবস্থা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়। ৩ বছর পর, লানছাং-মেকং সহযোগিতা পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের সবচেয়ে গতিশীল সহযোগিতার একটি ব্যবস্থায় পরিণত হয়। ২০ ফেব্রুয়ারি লানছাং-মেকং জাতীয় সাংস্কৃতিক হেরিটেজ ব্যবস্থাপনা গবেষণা সম্মেলন মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত হয়। এটি সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে গভীর বিনিময়ের একটি নতুন অধ্যায় উন্মোচন করে। মিয়ানমারের ধর্মীয় বিষয় ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আং ক বলেন, লানছাং-মেকং ছয়টি দেশের একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রয়েছে এবং এতে অনেকগুলি সাধারণ জিনিস রয়েছে।

তিনি বলেন,

 

"আমাদের লানছাং-মেকং ছয়টি দেশের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য আছে। আজ আমরা একসঙ্গে বসেছি এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সুরক্ষা ও ব্যবস্থাপনায় আমাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করছি। যা আমাদের ছয়টি দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময়কে শক্তিশালী করার জন্য খুবই উপকারী। এই সেমিনারটি লানছাং-মেকং নদীর ছয়টি দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময় আরও শক্তিশালী করার ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।"

সেমিনারে প্রায় ৩০ জন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ব্যবস্থাপনাসম্পর্কিত ব্যক্তি এবং ছয়টি দেশের সাংস্কৃতিক অবলম্বন পুনরুদ্ধার ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞ ও পণ্ডিতগণ মূল বক্তৃতা দেন। তা ছাড়া, তাঁরা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা এবং পুনরুদ্ধারবিষয়ক অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। চীনের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের রাজ্য প্রশাসন বিভাগের হেরিটেজ প্রশাসন বিভাগের ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ বিভাগের পরিচালক হুয়াং সিয়াও ফান বলেন, তিনি অন্যান্য দেশের বন্ধুদের সঙ্গে ওয়ার্ল্ড কালচারাল হেরিটেজের জন্য আবেদন এবং ব্যবস্থাপনায় চীনের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের আশা করেন। তিনি বলেন,

"চীন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষাকে অনেক গুরুত্ব দেয়। বর্তমানে চীনে ৫৩টি বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রয়েছে, যা বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ব্যবস্থাপনায় চীনের অনেক অভিজ্ঞতা ও অবদান আছে। উদাহরণস্বরূপ, সুরক্ষা ও রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্প বাস্তবায়ন, বিশ্ব ঐতিহ্য নিরীক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা, বিশ্ব ঐতিহ্য দর্শন এবং জনসাধারণের অংশগ্রহণ, এবং জনসাধারণের অংশগ্রহণকে সারা বিশ্বে, বিশেষ করে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে ভাগ করে নেওয়া যেতে পারে। বিশেষ করে বৃহত্ আকারে, গ্রেট ওয়াল, গ্র্যান্ড খাল এবং সিল্ক রোডের আন্তঃআঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক প্রকল্প পরিচালনায়, চীনের অনেক অভিজ্ঞতা এবং ধারণা গুরুত্বপূর্ণ।"

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, লানছাং-মেকং সহযোগিতার প্রক্রিয়া চলাকালীন, চীন ও মিয়ানমারের সাংস্কৃতিক ধ্বংসাবশেষ পুনঃস্থাপনে অনেক সহযোগিতা করেছে। যেমন চীন সরকার মিয়ানমারকে 'বরফ-ই-প্যগোডা' মেরামতে সাহায্য করছে। ২০১৬ সালের অগাস্ট মাসে ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত হয় প্যাগোডাটি। মিয়ানমারের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলিতে প্রযুক্তিগত ও আর্থিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে চীনের গুরুত্বপূর্ণ কাজে সাহায্য করেছে। মিয়ানমারের উষ্ণ অভ্যর্থনা লাভ করেছে তারা। চীনের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের একজন গবেষক ইয়ু বিং বলেন,

"এই প্যাগোডা খুব বড় এবং এটি একটি ইটের টাওয়ার। কাঠামোটি সরানো খুব কঠিন। ইট অপসারণ করা এবং কাঠামোর উপর পুনরায় আবরণ দেওয়া অসম্ভব। প্রযুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে কাজের বিশদ মেরামত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চীনের এই দিকগুলির সমৃদ্ধ অভিজ্ঞতা রয়েছে।"

মিয়ানমারে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত হং লিয়াং মনে করেন, লানছাং-মেকং সহযোগিতা ব্যবস্থা কার্যকর হচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে, চীন ও মিয়ানমারের মধ্যে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা, মেরামতের ব্যাপারে বিনিময় ও সহযোগিতা আরও ঘনিষ্ঠ হবে, এই সহযোগিতা চীন-মিয়ানমার 'এক অঞ্চল, এক পথ' যৌথ নির্মাণ এবং চীন-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডোরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। রাষ্ট্রদূত হং লিয়াং বলেন,

"সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষাবিষয়ক সহযোগিতাও চীন-মিয়ানমার 'এক অঞ্চল, এক পথ' যৌথ নির্মাণ এবং চীন-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডোরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। বিশ্বাস করি, নিকট ভবিষ্যতে, বাগান ও মিয়ানমারের অন্যান্য ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক শহরগুলি একটি নতুন চেহারা নিয়ে বিশ্বের সামনে হাজির হবে, যা চীন ও মিয়ানমার এবং জনগণের মধ্যে বন্ধুত্বের নতুন প্রতীক হয়ে উঠবে।"

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040