Web bengali.cri.cn   
একসঙ্গে সময় কাটাবো
  2019-03-10 17:00:39  cri



বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানের শুরুতে আমি আপনাদেরকে চীনা সংগীত জগতের একজন কিংবদন্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেবো। তিনি হলেন চীনের হংকংয়ের কন্ঠশিল্পী ও অভিনেতা চাং গুও রং। তিনি ১৯৫৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর হংকংয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৭ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে বিনোদনজগতে প্রবেশ করেন। ১৯৮৩ সালে তিনি প্রথম গান প্রকাশ করে সারা চীনে বিখ্যাত হন। এখন আমি আপনাদেরকে তাঁর কন্ঠে 'একসঙ্গে সময় কাটানো' নামের গান শোনাবো। আশা করি, বন্ধুরা গানটি পছন্দ করবেন।

বন্ধুরা, শুনছিলেন চাং গুও রংয়ের কন্ঠে 'একসঙ্গে সময় কাটানো' গানটি। ১৯৮৪ সালে প্রকাশিত তাঁর কন্ঠে 'মোনিকা' নামের গান হংকংয়ের শ্রেষ্ঠ দশটি চীনা গানের নামতালিকায় ছিল। ১৯৮৬ ও ১৯৮৭ সালে টানা দুইবার তিনি হংকংয়ের জেইড সলিড গোল্ড অ্যাওয়ার্ডস প্রেজেন্টেশনের (Jade Solid Gold Awards Presentation) স্বর্ণপদক লাভ করেন। এখন আমি আপনাদেরকে তাঁর কন্ঠে 'আমি' শীর্ষক গান শোনাবো। আশা করি, বন্ধুরা গানটি পছন্দ করবেন।

বন্ধুরা, শুনছিলেন চাং গুও রংয়ের কন্ঠে 'আমি' নামের গান। ১৯৮৮ ও ১৯৮৯ সালে তিনি দু'বার তাঁর গান 'হংকংয়ের শ্রেষ্ঠ দশটি গান'-এর তালিকায় স্থান পায়। ১৯৯৯ সালে তিনি হংকংয়ের সংগীতজগতের সর্বোচ্চ পুরস্কার 'গোল্ডেন নীডল অ্যাওয়ার্ড' লাভ করেন। ২০০০ সালে তিনি সিসিটিভি-এমটিভি'র এশিয়ার 'সবচেয়ে বিশিষ্ট শিল্পী'-র পুরস্কার লাভ করেন। ২০১০ সালে তাঁকে সিএনএন ৫০ বছরের সবচেয়ে বিখ্যাত ২০ জন গায়কের একজন হিসেবে নির্বাচন করে। এখন আমি আপনাদেরকে তাঁর কন্ঠে 'একটি চীনা ভূতের গল্প' শীর্ষক গান শোনাবো। গানটি একই নামের চলচ্চিত্রের থিম সং। আশা করি, বন্ধুরা গানটি পছন্দ করবেন।

বন্ধুরা, শুনছিলেন চাং গুও রংয়ের কন্ঠে 'একটি চীনা ভূতের গল্প' নামের গান। গান গাওয়া ছাড়া তিনি গানের কথা লেখা ও সংগীত রচনার ক্ষেত্রেও দক্ষ। তিনি এমভি এডিটার, অ্যালবামের প্রযোজক ও কনসার্ট আয়োজক হিসেবেও কাজ করেন। ১৯৯৩ সালে তাঁর অভিনীত চলচ্চিত্র কান ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভাল গোল্ডেন পাম অ্যাওয়ার্ড (The Golden Palm Award) লাভ করে। চলচ্চিত্রটির থিম সংও চাং গুও রং গেয়েছেন। এখন আমি আপনাদেরকে তাঁর কন্ঠে চলচ্চিত্রটির থিম সং 'যখন প্রেম অতীত ঘটনা হয়েছে' নামের গান শোনাবো। আশা করি, আপনারা গানটি পছন্দ করবেন।

বন্ধুরা, শুনছিলেন চাং গুও রংয়ের কন্ঠে 'যখন প্রেম অতীত ঘটনা হয়েছে' নামের গান। তিনি প্রথম এশিয়ান অভিনেতা হিসেবে ১৯৯৮ সালে বার্লিন আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভালের বিচারক হয়েছিলেন। তিনি ২০০৫ সালে চীনের চলচ্চিত্রের শত বছরের শতাধিক বিশিষ্ট অভিনেতার নামতালিকায় অন্তর্ভুক্ত হন। ২০১০ সালে তাঁকে সিএনএন "ইতিহাসের সেরা ২৫ জন এশিয়ান অভিনেতা"-র একজন হিসাবে নির্বাচন করে। এখন আমি আপনাদেরকে তাঁর কন্ঠে 'বাতাস বরাবরই বইছে' নামের গান শোনাবো। আশা করি, বন্ধরা গানটি পছন্দ করবেন।

বন্ধুরা, শুনছিলেন চাং গুও রংয়ের কন্ঠে 'বাতাস বরাবরই বইছে' নামের গান। ২০০৩ সালে চাং গুও রং জীবন ও কাজের চাপ সহ্য করতে না-পেরে উঁচু ভবন থেকে লাফ দিয়ে বিল্ডিং থেকে আত্মহত্যা করেন। কিন্তু এখনো তাঁর ভক্তরা এবং চীন ও জাপানের বিনোদনজগতের শিল্পীরা তাঁকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে থাকে। সবাই তাঁকে ডাকেন 'বড় ভাই'। বিনোদনজগতে প্রবেশ করার আগে 'বড় ভাই'র জীবন খুবই কঠিন ছিল। কিন্তু তিনি কখনও এ নিয়ে অভিযোগ করতেন না। বিখ্যাত হবার পরও তিনি সবাইকে সহায়তা করতেন। এখন আমি আপনাদেরকে চাং গুও রং ও চীনের তাইওয়ানের নারী কন্ঠশিল্পী সিন সিয়াও ছি'র দ্বৈতকন্ঠে 'অনুরক্ত আলিঙ্গন' নামের গান শোনাবো। আশা করি, আপনারা গানটি পছন্দ করবেন।

প্রিয় শ্রোতা, এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের সবাইকে জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ। যদি আমাদের অনুষ্ঠানে আপনারা কোনো পছন্দের গান শুনতে চান, তাহলে জানাবেন। আমাদের ই-মেইল ঠিকানা ben@cri.com.cn। আর আমার নিজস্ব ইমেইল ঠিকানা caiyue@cri.com.cn। 'গানের অনুরোধ' আমার নিজস্ব ই-মেইল ঠিকানায় পাঠালে ভালো হয়।

আজ তাহলে এ পর্যন্তই। আশা করি, আগামী সপ্তাহের একই দিন, একই সময়ে আবারো আপনাদের সঙ্গে কথা হবে। সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, আনন্দে থাকুন। চাই চিয়ান। (ছাই/আলিম)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040