Web bengali.cri.cn   
তি জি সঙ্গীত : 'থিং ছুয়ান' ইত্যাদি
  2019-03-01 15:56:29  cri


সুপ্রিয় শ্রোতা, এখন শুরু হচ্ছে 'সুরের ধারা' অনুষ্ঠান। আজকের এ অনুষ্ঠানে আপনাদেরকে চীনের ঐতিহ্যবাহী বাদ্যযন্ত্র তি জি এর বাজানো কয়েকটি সুর শোনাবো। এ অনুষ্ঠানে আপনাদের সঙ্গে আছি আমি ইয়াং ওয়েই মিং স্বর্ণা।

তি চি হচ্ছে চীনে ব্যাপকভাবে প্রচলিত একটি ফুঁস দিয়ে বাজানো বাদ্যযন্ত্র । বাঁশ দিয়ে তৈরি হয় বলে লোকেরাতাকে " চু তু" বলে ডাকে ।

তি চি একটি বাঁশের নল দিয়ে তৈরি হয় । বাঁশের ভেতরের সন্ধি কেটে ফেলা হয় । নলের উপরে কাটা রয়েছে ফুঁস দেয়ার একটি গর্ত, একটি ঝিল্লিযুক্ত গর্ত এবং ৬টি সুরের গর্ত । ফুঁস দেয়ার গর্ত হচ্ছে বাঁশির প্রথম গর্ত । তার মধ্য দিয়ে বাতাস বয়ে যায় যার ফলে নলের ভেতরকার হাওয়ার স্পন্দন হয় এবং আওয়াজ বের হয় । ঝিল্লিযুক্ত গর্ত হচ্ছে বাঁশির দ্বিতীয় গর্ত । তার উপর ঝিল্লি রাখা হয় । অধিকাংশ হ্মেত্রে বাঁশির ঝিল্লি কাশের ঝিল্লি অথবা বাঁশের ঝিল্লি দিয়ে তৈরি হয় । হাওয়ার স্পন্দনের মধ্য দিয়ে বাঁশির ঝিল্লি থেকে উদাত্ত আর মসৃণ আওয়াজ বের হয় ।

বাঁশি আকারে ছোট এবং গঠন সহজ হলেও তার ইতিহাস ৭ হাজার বছর পুরনো । প্রায় সাড়ে ৪ হাজারের বেশি বছর আগে হাড়ের বদলে বাঁশ দিয়ে বাঁশি তৈরি হতে শুরুহয় । খৃষ্টপুর্ব প্রথম শতাব্দির শেষ দিকে চীনের হান উ তির আমলে বাঁশির নাম ছিল " হেং ছুই " । তখনকার ফুঁস দিয়ে বাজানো বাদ্যযন্ত্রের মধ্যে তার স্থান অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ ছিল । সপ্তম শতাব্দি থেকে বাঁশির সংস্কার করা হয় । ঝিল্লিযুক্ত গর্ত লাগানোর ফলে এর প্রকাশ-শক্তি অনেক বেড়ে যায় এবং বাজানোর কলাকৌশলো একটি অত্যন্ত উচ্চ পর্যায়ে উন্নীত হয় । দশম শতাব্দিতে সুং রাজবংশের কবিতা আর ইউয়ান রাজবংশের সংগীতের উদ্ভবের সংগে সংগে বাঁশি কবিতা আবৃত্তি এবং গান করার জন্যে একটি প্রধান বাদ্যযন্ত্রে পরিণত হয় । স্থানীয় অপেরা আর সংখ্যালঘু জাতির অপেরার বাদ্যযন্ত্র দলেও বাঁশি একটি অনিবার্য্য বাদ্যযন্ত্র হয়ে দাঁড়ায় ।

বাঁশির প্রকাশ-শক্তি অত্যন্ত সমৃদ্ধ । তা দিয়ে যেমন দীর্ঘ আর উচ্চ সুর বাজানো যায় , তেমনি প্রশন্ত আর ব্যাপক সুর বাজানো যায় । একই সংগে তা দিয়ে দ্রুত আর জাঁকজমক নাচের সংগীত এবং নমনীয় আর মনোরম সুর বাজানো যায় । তবে বাঁশি সুন্দর ছন্দ বাজাতে পারে । তবে তার প্রকাশ-শক্তি শুধু তার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয় । তা প্রকৃতির বিভিন্ন আওয়াজ প্রকাশ করতে পারে । যেমন বাঁশি নানা রকম পাখির ডাক অনুকরণ করবে পারে ।

বাঁশি বাজানোর কলাকৌশল সমৃদ্ধ । এ ছাড়াও তার প্রকার সংখ্যাও অনেক। যেমন ছুই বাঁশি , পাং বাঁশি , তিং তিয়াও বাঁশি , চাবিযুক্ত বাঁশি , ইয়ু ফিং বাঁশি , ৭ গর্তযুক্ত বাঁশি, ১১গর্তযুত্ত বাঁশি , ইত্যাদি । প্রধানত দহ্মিণ আর উত্তরপন্থী দুটো বিভাগে বিভক্ত হয় ।

দহ্মিণপন্থী বাঁশির শৈল্পিক রীতি নম্র আর পরিষ্কার । তাদের ব্যবহৃত প্রধান বাঁশি হচ্ছে ছু বাঁশি । ছু বাঁশির নল লম্বা আর মোটা । তার সুর গভীর , নমনীয় , মনোরম আর শ্রুতিমধুর । চীনের ইয়াং সি নদীর দহ্মিণ অঞলে এর প্রধান প্রচলন হয় ।

উত্তরপন্থী বাঁশির শৈল্পিক রীতি ইস্পাত-কঠিন আর স্থুল। তাদের ব্যবহৃত প্রধান বাঁশি হচ্ছে পাং তি । তার নল খাটো আর সরু । তার সুর উচ্চ আর উজ্জল চীনের উত্তর অঞলে তার প্রধান প্রচলন হয় ।

প্রথমে শুনুন 'থিং ছুয়ান' সুরটি। নদীর আওয়াজ শুনে।

শুনুন 'হ্য জুই ত্য তি জি'। মাদাল বাঁশি

শুনুন 'কু সু শিং' সুরটি। কু সু ভ্রমণ

শুনুন 'শিয়াও ফাং নিউ' সুরটি। পশুপালকের গান

শুনুন 'ওয়া ত্য শিয়াও তি জি' সুরটি। আমার ছোট বাঁশি

শুনুন 'ইয়াং পিয়ান ছুই মা ইয়ুন লিয়াং মাং' সুরটি।

শুনুন 'মু মিন শিন ক্য' সুরটি। পশুপালকের নতুন গান

শুনুন 'মেই হুয়া সান নং' সুরটি।

শুনুন 'হোং ছেন লিয়ান ক্য' সুরটি।

সুপ্রিয় শ্রোতা, আজকের সুরের ধারা অনুষ্ঠান পর্যন্ত। সবাই ভাল থাকুন, সুন্দর থাকুন। (স্বর্ণা/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040