Web bengali.cri.cn   
সুরের ধারায়: ইয়াও পেই না এবং তার গান
  2019-02-01 16:05:19  cri


প্রিয় শ্রোতা, আশা করি ভাল আছেন। বেইজিং থেকে প্রচারিত চীন আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলা অনুষ্ঠান 'সুরের ধারায়' আপনাদের সবাইকে আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি আমি ইয়াং ওয়েই মিং স্বর্ণা।

সংগীত কোনো দেশের সীমা মানে না। আপনি কি এখন গাড়ি চালাচ্ছেন, নাকি বাসার কোনো কাজ করছেন? আপনি এখন একা, নাকি সাথে সঙ্গে কেউ আছে? আপনার মন বেইজিংয়ের নীল আকাশের মতো স্বচ্ছ, নাকি বর্ষণমুখর আকাশের মতো মেঘলা? যে যেখানে যেভাবেই থাকুন না কেন, আসুন সংগীত উপভোগ করি। সংগীতের জগতে ডুব দেওয়ার আনন্দই আলাদা। কী বলেন?

(গান ১, ইয়ু)

বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানে আমরা গায়িকা ইয়াও পেই না'র কয়েকটি গান শোনাবো। ইয়াও পেই না ১৯৮১ সালে জন্মগ্রহণ করেন। কিন্তু ব্রেস্ট ক্যান্সারের কারণে তিনি ৩৩ বছর বয়সে মারা যান। এখন যে গানটি আপনারা শুনছেন, সেটা হলো তার গাওয়া 'ইয়ু' অর্থাত মাছ গানটি। গানে বলা হয়, আমি একটি মাছ। ট্যাংকের বাইরে তোমার দিকে তাকাচ্ছি। তুমি আঙুল দিয়ে ঠকঠক করে তারপর হেসে চলে যাও। পানিতে তোমার ছায়া দেখে মুগ্ধ হয়েছি। আশা করি তুমি আবার কাছে আসবে। তোমার গরম হাতের মধ্যে শুয়ে থাকতে চাই। তোমাকে অনুভব করি, চুমু দেই। কিন্তু আমি শুধু সাঁতার কাটতে পারি। মাছের মতো ৭ সেকেন্ডের স্মৃতি মনে থাকে। আমি একটি মাছ। তাই, তোমার কথা বুঝতে পারি না।

(গান ২,ওয়েন হং ছেন)

এখন শুনুন তার আরেকটি গান 'ওয়েন হুং ছেন'।

(গান ৩,জি শাও হাই ইয়ৌ নি)

এখন, একই শিল্পীর আরেকটি গান শুনুন। গানের নাম 'জি শাও হাই ইয়ৌ নি' বা অন্তত তুমি আছো। আমার ভয়- সময় খুব তাড়াতাড়ি চলে যায়, আমি তোমাকে কোলে নিয়ে থাকবো। তোমার মুখের ভাঁজ থেকে সময়ের দাগ বোঝা যায়, তুমি সত্যি হওয়া পর্যন্ত, আমার শক্তি হারিয়ে যাওয়া পর্যন্ত। তোমার জন্য আমি পারি। যে দিন আর নড়তেও পারব না, তারপরও তোমাকে দেখতে চাই। তোমার চুল সাদা হওয়া পর্যন্ত, আমার চোখ অস্পষ্ট হওয়া পর্যন্ত, শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত। আমরা শরীর এবং ছায়ার মতো থাকি। সারা পৃথিবীকেও আমি ছাড়তে পারি, শুধু তুমি সঙ্গে থাকলে। আর তুমি সত্যি আছো বলে এটা জীবনের অলৌকিক ঘটনা। হয় তো সারা পৃথিবীকে আমি ভুলতে পারি, শুধু তোমাকে হারাতে চাই না। তোমার হাতের আঁচিল কোথায় তা সবসময় আমার মনে থাকে।

(গান ৪, তুয়ান ছিয়াও লি ছিং)

এখন শুনুন গান 'তুয়ান ছিয়াও লি ছিং'। গানে বলা হয়, কারও মনে নেই সেই সময়ের কথা। সময়ের সাথে আনন্দ বেদনার কথা সব হারিয়ে গেছে। যদি মনে থাকে, তাহলে মনোবল শক্ত বলা যায়। আমি এ সময় ধরে রাখতে চাই। কোনো প্রত্যাশা না থাকলে হতাশ হব না। অপেক্ষা করি চিরকালের সেই ভালোবাসার জন্য।

(গান ৫, জান জেং শি চিয়ে)

এখন শুনুন আরেকটি গান 'জান জেং শি চিয়ে' বা যুদ্ধের পৃথিবী। গানে বলা হয়েছে: এ নীরব পৃথিবীকে দেখো, এখানে হতাশা আছে; মানুষ সেই পরিচিত রাস্তা থেকে পালিয়ে যাচ্ছে। গোলাগুলির গন্ধে সব ফুল নির্জীব হয়ে গেছে। ধরনীর কান্না সারা পৃথিবীকে নাড়া দিচ্ছে। কীভাবে এসব থামানো যায়। যুদ্ধ শুরু হলে কেউ পালিয়ে যেতে পারে না। যুদ্ধ শুরু হলে কে কাকে রক্ষা করবে? যে ছেলেটি বাইক চালিয়ে খবরের কাগজ বিক্রি করতো। তার চোখে এখন অশ্রুভরা। যুদ্ধ শুরু হলে সারা পৃথিবীর আশার শিখা নিভে যায়।

(গান ৬,ইয়ু লুং ইন)

এখন শুনুন গান 'ইয়ু লুং ইন'।

(গান ৭, রু কুও ওয়া মেন মেই ইয়ৌ ইয়ু চিয়ান)

প্রিয় শ্রোতা, গান শুনতে শুনতে অনুষ্ঠানের শেষ প্রান্তে চলে এলাম। তবে বিদায় নেওয়ার আগে আরেকটি গান শোনাবো। গানের নাম 'রু গুও ওয়া মেন মেই ইয়ৌ ইয়ু চিয়ান' অর্থাত 'যদি আমাদের দেখা না হতো'। গানে বলা হয়েছে: 'তোমার মুখ স্পষ্ট দেখতে চেয়েছি। তাই প্রেমের ফাঁদে পড়লাম। হাতের ভুল লেখা হলো একটি সুন্দর মিথ্যা কথা। তারা বলেছে, ভালোবাসা খুবই বিপজ্জনক। আমি মনে করতাম আমরা সৌভাগ্যবান। একই বেদনা, বিভিন্ন মুখ। তোমার কাছ থেকে বিদায় নিতে হবে। আমাদের দেখা না হলে বেদনা এতো কড়া হতো না। আমরা যদি দেখা হওয়ার আগের জীবনে ফিরে যেতে পারি, তাহলে আমাদের মধ্যে এতো জটিলতা থাকতো না! (স্বর্ণা

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040