Web bengali.cri.cn   
পর্তুগালের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নত করতে আগ্রহী চীন: সি চিন পিং
  2018-12-06 14:37:35  cri

স্থানীয় সময় গতকাল (বুধবার) চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং লিসবনে পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী আন্তোনিও কস্তার সঙ্গে বৈঠক করেন। এসময় সি চিন পিং বলেন, চীন পর্তুগালের সঙ্গে দু'দেশের সার্বিক কৌশলগত অংশীদারিত্বের সম্পর্ককে নতুন পর্যায়ে উন্নীত করতে ইচ্ছুক।

এদিনের বৈঠকশেষে চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং ও পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী আন্তোনিও কস্তা যৌথভাবে 'এক অঞ্চল, এক পথ' উদ্যোগ বাস্তবায়নবিষয়ক স্মারকসহ বেশ কয়েকটি সহযোগিতাদলিল স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

কস্তা ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে চীন সফর করেছিলেন। মঙ্গলবারের বৈঠকে চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং গত দু'বছরে দু'দেশের বাস্তবভিত্তিক সহযোগিতার অগ্রগতির ইতিবাচক মূল্যায়ন করে বলেন, চীন ও পর্তুগালের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের সুষ্ঠু প্রবৃদ্ধির প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ খাতে পুঁজি বিনিয়োগবিষয়ক সহযোগিতা সুষ্ঠুভাবে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। চীন ও পর্তুগালের সম্পর্ক ইতিহাসের সবচেয়ে ভালো সময়পর্বে রয়েছে এবং উন্নয়নের নতুন সুযোগও সৃষ্টি হচ্ছে।

চীন-পর্তুগাল ভবিষ্যৎ সহযোগিতা সম্বন্ধে বৈঠকশেষে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট সি বলেন,

"দু'দেশ উন্মুক্ত, সহনশীল, ও পারস্পরিক কল্যাণের ভিত্তিতে কৌশলগত সংযোগ জোরদার করবে; 'এক অঞ্চল, এক পথ' সহযোগিতা সম্প্রসারণ করবে; সহযোগিতার ব্যবস্থাকে সুসংহত করবে; এবং সহযোগিতার ক্ষেত্রকে সম্প্রসারিত করবে। পাশাপাশি, দু'পক্ষ অব্যাহতভাবে আর্থ-বাণিজ্য, সংস্কৃতি, শিক্ষা, পর্যটন, বিজ্ঞান, ক্রীড়া ও তথ্যমাধ্যমসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিনিময় ও সহযোগিতা গভীরতর করবে।"

এসময় আন্তোনিও কস্তা তাঁর দেশের আর্থিক স্থিতিশীলতা রক্ষায় দেওয়া সাহায্যের জন্য চীনকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, পর্তুগাল চীনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের মান আরও উন্নত করতে আগ্রহী। পর্তুগাল সক্রিয়ভাবে 'এক অঞ্চল, এক পথ' সহযোগিতায় অংশ নেবে। এই উদ্যোগ পর্তুগাল ও চীনের জনগণের মৈত্রী ও সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য সহায়ক। পাশাপাশি, এই উদ্যোগ দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য এবং এশিয়া ও ইউরোপের যোগাযোগ ও সহযোগিতার সঙ্গেও সংগতিপূর্ণ। পর্তুগাল চীনের সঙ্গে অবকাঠামো, অর্থ, গাড়ি ও প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের সহযোগিতা জোরদার করবে। পর্তুগাল চীনা শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর পুঁজি বিনিয়োগ এবং কারখানা স্থাপনের যে-কোনো উদ্যোগকেও স্বাগত জানাবে।

বৈঠকে দু'পক্ষ আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে দু'দেশের সহযোগিতা নিয়েও আলোচনা করে। প্রেসিডেন্ট সি বলেন, চীন ও পর্তুগালের উচিত আন্তর্জাতিক বিষয়ে সমন্বয় ও সহযোগিতা ঘনিষ্ঠতর করা, বাণিজ্য ও পুঁজি বিনিয়োগের সুবিধায়ন ত্বরান্বিত করা, যৌথভাবে সংরক্ষবাদ ও একতরফাবাদের বিরোধিতা করা। চীন আশা করে, চীন-ইউরোপ সম্পর্কের সুষ্ঠু উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার জন্য পর্তুগাল অব্যাহতভাবে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে।

প্রধানমন্ত্রী কস্তা বলেন, পর্তুগাল জলবায়ুর পরিবর্তন মোকাবিলাসহ বিশ্বের বিভিন্ন ইস্যুতে চীনের সঙ্গে সহযোগিতা ঘনিষ্ঠতর করতে এবং বহুপক্ষবাদ রক্ষা করতে ইচ্ছুক। পর্তুগাল ইউরোপ-চীন সম্পর্ক এবং পারস্পরিক আস্থা বাড়ানোর জন্য আরও বড় ভূমিকা পালন করতেও আগ্রহী।

প্রেসিডেন্ট সি বৈঠকে বলেন,

"চীন বরাবরের মতোই পারস্পরিক সম্মান ও আলোচনার নীতিতে শান্তিপূর্ণ উন্নয়ন ও সহযোগিতা বাস্তাবয়ন করে যাবে। চীন পর্তুগালসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বিশ্বের দীর্ঘস্থায়ী নিরাপত্তা ও মানবজাতির অভিন্ন উন্নয়ন বাস্তবায়ন করতে আগ্রহী।" (শুয়েই/আলিম)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040