Web bengali.cri.cn   
আত্মনির্ভরশীল প্রতিবন্ধীদের গল্প
  2018-12-05 13:28:31  cri

৪৬ বছর বয়সী চাও ইউয়ান সুন্দর কাপড় পরেন। তিনি নিজের দোকানে বসে তার দু'জন সরবরাহকারী থাং জুন চিয়ে ও সিয়ে সিয়াং ছিয়ানের সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছেন। তারা দেখতে সাধারণ মানুষের মতো। আসলে তাঁরা সবাই শারিরীক প্রতিবন্ধী।

চাও ইউয়ানের একটি পা অচল, থাং জুন চিয়ের কোনো পা-ই নেই, এবং সিয়ে সিয়াং ছিয়ানের গোটা শরীরের ৭০ শতাংশই পুড়ে গেছে। চলতি বছরের অগাস্ট মাসে, হুনান প্রদেশের ছাং শা শহরে, চাও ইউয়ান একটি ছোট দোকান খুলে বসেন। তিনি বিক্রয় করেন মূলত কৃষিপণ্য। তার দোকানে পণ্য সরবরাহকারীদের ৫০ জনের অধিকাংশই প্রতিবন্ধী কৃষক। চাও ইউয়ান বলেন, তাদের প্রত্যেকের একটি করে অসাধারণ গল্প আছে।

প্রতিদিন সকালে, ঘুম থেকে জেগে ওঠার পর চাও ইউয়ানের প্রথম কাজ হল নিজের অনমনীয় পা, হাঁটু এবং আঙুল মাসাজ করা। এক ঘন্টা মাসাজ না-করলে তিনি হাঁটতে পারেন না। তার রিউম্যাটয়েড রোগ আছে।

মেই সি হ্রদের পাশে অবস্থিত চাও ইয়ানের দোকান। তার দোকানে যেসব পণ্য বিক্রয় হয়, সেগুলোর প্রত্যেকটির বিজনেস কার্ড আছে। কার্ডে লেখা থাকে এ পণ্যের সরবরাহকারীর নাম এবং তাদের অক্ষমতার কথা। চাও ইউয়ান এসব বিজনেস কার্ড তৈরি করেছেন। কারণ, তিনি তার ক্রেতাদের জানাতে চান, এসব পণ্য কোথা থেকে আসে, কারা এ পণ্য তৈরি করেন!

চাও ইউয়ান ইন্টারনেটে ব্যবসাও করেন। উইচ্যাটের পাবলিক অ্যাকাউন্ট আছে চাও ইউয়ানের। ক্রেতারা উইচ্যাটের মাধ্যমে অর্ডার দিতে ও লেনদেন করতে পারেন। কোন অনলাইন অর্ডার পেলে স্বেচ্ছাসেবক বিনামূল্যে চাও ইউয়ানের দোকান থেকে পণ্য ভোক্তার বাড়িতে পৌঁছে দেয়। দোকানের পণ্য সরবরাহকারীরাও নিজ নিজ কৃষিপণ্য চাও ইউয়ানের দোকানে পাঠান এবং চাও ইউয়ান তাদেরকে বিক্রয় করতে সাহায্য করেন।

আগে দিনের বেঁচে যাওয়া শাকসবজি পরের দিন বিক্রয় করেন না চাও ইউয়ান। ভোক্তারা পণ্য ফিরিয়ে দিতে বা পরিবর্তন করতেও পারেন। এর জন্য কোনো কারণ দর্শাতে হয় না। নিজের দোকানের সব পণ্যের ওপর চাও ইউয়ানের আস্থা আছে। তাই তিনি এমন নিয়ম তৈরি করেছেন। তবে তিনি স্বীকার করেন যে, বিশ্বে হয়ত এমন দোকান আর দ্বিতীয়টি নেই। ব্যবসা চালু হবার পর শুরুর দিকে চাও ইউয়ানের কোন মুনাফা হয়নি। উল্টো তাকে লোকসান গুণতে হয়েছে। প্রতিমাসে দোকানের ভাড়া ১০ হাজার ইউয়ানের বেশি। তিনি ঠাট্টা করে বলেন, তার সঞ্চয়ের সব টাকা ব্যয় হয়ে গেছে।

চাও ইউয়ান পণ্য সরবরাহকারীদের সঙ্গে মাঝেমাঝে দেখা করতে যান। এতে তিনি পণ্য উত্পাদন-ব্যবস্থা যেমন নিজের চোখে দেখার সুযোগ পান, তেমনি উত্পাদনকারীদের স্বাস্থ্যের খোঁজখবরও নিতে পারেন। তার মতে, ভাল মানুষ তৈরি করা গেলে, পণ্য খারাপ হবে না।

এমন যোগাযোগের মাধ্যমে চাও ইউয়ান পণ্য সরবরাহকাকারীদের গল্পও জানতে পারেন। যেমন, থাং জুন চিয়ের কোনো পা নেই এবং তার পরিবারে ৫ জন প্রতিবন্ধী। লুও ছাং তে Ankylosing spondylitis রোগী।

৪৮ বছর বয়সী সিয়ে সিয়াং ছিয়ান ২০১৩ সালে বিশাল অগ্নিকান্ডের কারণে প্রতিবন্ধী হন। পরে তিনি একটি ছাপাখানা খুলেন। তবে গ্রামে কোনো পাকা রাস্তা ছিল না। তাঁর কাঁচামালের ট্রাক দু'বার রাস্তায় উল্টে যায়। সিয়ে সিয়াও ছিয়ান সরকারের বিভিন্ন বিভাগে গিয়ে সমস্যার ব্যাপারে অভিযোগ করেন এবং তার প্রচেষ্টায় গ্রামে পাকা রাস্তা হয়। ২০১৪ সালে তিনি একটি প্রতিবন্ধী সেবাকেন্দ্র চালু করেন। সেই কেন্দ্রে প্রতিবন্ধীদের মানসিক পরামর্শ সেবা দেওয়া হয়। চলতি বছর তিনি ৭০০টি মুর্গি লালন করেন। উইচ্যাটে তিনি চাও ইউয়ানের সঙ্গে পরিচিত হন এবং চাও ইউয়ানের দোকানের মাধ্যমে ১০০টি মুর্গি বিক্রি হয়।

২০ বছর আগে, চাও ইউয়ান একজন শিক্ষক ছিলেন। তবে রোগের কারণে তাকে শিক্ষকতা ছাড়তে হয়। তিনি নিজে ব্যবসা শুরু করেন। ২০ বছরে তার অনেক বন্ধু হয় এবং নানা শিল্প সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। এখন এ দোকান চাও ইউয়ানের মূল ব্যবসা। তিনি বলেন, প্রতিবন্ধী পণ্য সরবরাহকারীরা তার চালিকাশক্তি এবং তাদের আস্থা ও প্রত্যাশার তিনি মূল্য দেন চাও ইউয়ান।

দোকানে এখন তিন জন স্বেচ্ছাসেবক আছেন। তারা বিনামূল্যে প্রতিদিন দোকানে এসে কিছু সাহায্য করেন। আগে দোকানে একজন বেতনভোগী কর্মী ছিল। তবে চাও ইউয়ান সময়মতো তার বেতন দিতে পারাতেন না। এখন চাও ইউয়ান নিজে দোকানের সবকিছু করেন। কর্মীর অভাব চাও ইউয়ানের জন্য এখন আর সমস্যা না। কারণ উইচ্যাটে একটি সেচ্ছাসেবক দল গঠিত হয়েছে। ২০-৩০ জনের একটি দল চাও ইউয়ানের দোকানে সাহায্য করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, সাংবাদিক ইত্যাদি। চাও ইউয়ান বলেন, এতো বেশি মানুষ বিনামূল্যে তাকে সাহায্য করছে দেখে তিনি খুব অভিভূত।

সম্প্রতি, চাও ইউয়ান তার ব্যবসা একটু বাড়ানোর পরিকল্পনা করছেন। তিনি ভাবছেন, কারুশিল্পজাত পণ্য কোম্পানির সঙ্গে কাজ করবেন এবং তার দোকানে একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্র গড়ে তুলবেন, যেখানে প্রতিবন্ধীরা কারুশিল্পজাত পণ্য তৈরি করা শিখবে। এতে শহুরে প্রতিবন্ধীদের জন্য নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। চাও ইউয়ানের আরও বড় একটি স্বপ্ন আছে। একটি প্রতিবন্ধী ব্যবসা গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করা। তিনি আশা করেন, আরও বেশি সামাজিক শক্তি তার স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে আসবেন এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য এমন একটি চ্যানেল খুলে যাবে, যেখানে তারা নিজেদের শ্রমে অর্থ উপার্জন করে মর্যাদার সঙ্গে বেঁচে থাকতে পারবেন। (শিশির/আলিম)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040