Web bengali.cri.cn   
'এক অঞ্চল, এক পথ' বেসরকারি শিল্প-প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়ন ত্বরান্বিত করছে: শিল্পপতিদের অভিমত (অর্থ-কড়ি; ১ ডিসেম্বর ২০১৮)
  2018-12-01 17:22:21  cri


১. অবাধ বাণিজ্য এলাকা সংস্কার ও উন্নয়নে ৫৩টি ব্যবস্থা গ্রহণের কথা ঘোষণা করেছে চীন সরকার। সম্প্রতি বেইজিংয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে চীনের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈদেশিক পুঁজি বিনিয়োগ পরিচালনা বিভাগের প্রধান থাং উন হুং এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, নতুন ব্যবস্থাসমূহ বাণিজ্য-সুবিধা বাড়ানো ও বিনিয়োগের সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহায়ক হবে।

চীনা গণব্যাংকের গবেষণা ব্যুরোর প্রধান সুই চুং জানান, ৫৩টি ব্যবস্থার মধ্যে ১২টি অর্থসম্পর্কিত। এর মূল উদ্দেশ্য, অবাধ বাণিজ্য এলাকা সংস্কারের জন্য আর্থিক সমর্থন দেওয়া।

আর চীনের শুল্ক প্রশাসনের অবাধ বাণিজ্য এলাকা ও বিশেষ এলাকা উন্নয়ন বিভাগের প্রধান ছেন চেন ছুং সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, ৫৩টি নতুন ব্যবস্থার মধ্যে ৯টি শুল্ক প্রশাসনের কাজসম্পর্কিত। ভবিষ্যতে শুল্ক প্রশাসন এগুলো বাস্তবায়নের জন্য বিস্তারিত ব্যবস্থা নেবে।

২. চীন আন্তঃদেশীয় ই-বাণিজ্যে খুচরা পণ্য আমদানিসংক্রান্ত নীতিমালা সম্পূর্ণ করবে, আমদানিপণ্যের তালিকা সম্প্রসারিত করবে, এবং লজিস্টিক্স কাঠামো আরও উন্নত করবে। সম্প্রতি চীনের প্রধানমন্ত্রী লি খ্য ছিয়াংয়ের সভাপতিত্বে রাষ্ট্রীয় পরিষদের স্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় যেসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সেগুলোর মধ্যে আছে: আগামী বছরের পয়লা জানুয়ারি থেকে আন্তঃদেশীয় ই-বাণিজ্যে খুচরা আমদানির ওপর তত্ত্বাবধানব্যবস্থা সহজতর করা হবে; এ নীতিমালা আগের ১৫টি শহর থেকে সম্প্রসারণ করে ২২টি শহরে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হবে; আন্তঃদেশীয় ই-বাণিজ্যে তালিকাভুক্ত আমদানিপণ্যের ওপর থেকে আমদানিশুল্ক কমিয়ে দেওয়া হবে; আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, দেশীয় ই-বাণিজ্য কোম্পানিগুলোকে রফতানিতে উত্সাহ দিতে, শুল্ক ছাড় দেওয়া হবে; ই-বাণিজ্যের গুণগতমান নিয়ন্ত্রণ ও বাজার পরিবেশ রক্ষায় সংশ্লিষ্ট আইনগত তত্ত্বাবধান-ব্যবস্থা সম্পূর্ণ করা হবে।

৩. 'এক অঞ্চল, এক পথ' উদ্যোগ বেসরকারি শিল্প-প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়ন ত্বরান্বিত করছে বলে মন্তব্য করেছেন চীনের শিল্পপতিরা। সম্প্রতি চীনের রাষ্ট্রীয় পরিষদ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এমন মন্তব্য করেন চীনের চার জন বেসরকারি শিল্পপতি।

নিউ হোপ গ্রুপ ১৯৮২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। গ্রুপটি মূলত কৃষিজাত পণ্য ও খাদ্যপণ্যের ব্যবসা করে। গ্রুপের বার্ষিক বিক্রির পরিমাণ ১০,০০০ কোটি ইউয়ান। গ্রুপটির চেয়ারম্যান লিউ ইয়ং হাও সাংবাদিকদের বলেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সমাজের সার্বিক উন্নয়নে অনেক অবদান রাখছে। চীনের সংস্কার ও উন্মুক্তকরণ নীতি চালুর পর বিগত ৪০ বছর ধরে চীনা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো একটু একটু করে উন্নত হয়েছে।

চিয়াংসু প্রদেশের হংতৌ গোষ্ঠী কম্বোডিয়ায় ১১.১৩ বর্গকিলোমিটারের সিহানউকভিল বিশেষ অর্থনৈতিক এলাকা (এসএসজেড) গড়ে তুলেছে। ফলে স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ সম্পর্কে গোষ্ঠীর সিইও চৌ হাই চিয়াং বলেন, "অভিন্ন কল্যাণ আমাদের লক্ষ্য। আমরা স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছি এবং স্থানীয় শিশুদের জন্য স্কুল নির্মাণ করেছি।"

তিনি আরও বলেন, চীনে সংস্কার ও উন্মুক্তকরণ নীতি কার্যকর হওয়ায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো উন্নত হয়েছে। আবার বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়ন চীনের সংস্কার ও উন্মুক্তকরণ প্রক্রিয়ার জন্য ইতিবাচক শক্তি হিসেবে কাজ করেছে এবং করছে।

৪. চীন ও ফিলিপিন্স সরকার সম্প্রতি 'তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস উন্নয়ন সহযোগিতাচুক্তি' স্বাক্ষর করেছে। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কেং শুয়াং বেইজিংয়ে এক নিয়মিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

মুখপাত্র বলেন, এই চুক্তি তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানে চীন-ফিলিপিন্স সহযোগিতা নতুন পর্যায়ে উন্নীত হওয়ার প্রতীক। চীন দু'দেশের মধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রের সহযোগিতা ত্বরান্বিত করতে এবং দক্ষিণ চীন সাগরসংশ্লিষ্ট অন্যান্য দেশের সঙ্গে এমন সহযোগিতা করতে আগ্রহী।

৫. আগামী বছর বৈশ্বিক অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধির হার হবে ৩.৫ শতাংশ। ২০২০ সালেও একই হার বজায় থাকবে। অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থা (ওইসিডি) সম্প্রতি ফ্রান্সের প্যারিসে প্রকাশিত সর্বশেষ প্রতিবেদনে এই পূর্বাভাস দেয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বৈশ্বিক বাণিজ্যে অস্থিতিশীলতা ও উদীয়মান দেশগুলোর অর্থনৈতিক উন্নয়নে তুলনামূলক ধীর গতির মতো ফ্যাক্টরগুলোর কারণে বৈশ্বিক অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি কমতে থাকবে। অবশ্য, চলতি বছর বৈশ্বিক অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে ৩.৭ শতাংশ। ২০১৯ ও ২০২০ সালে প্রবৃদ্ধি হবে ৩.৫ শতাংশ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ২০১৮ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত চীনা অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে যথাক্রমে ৬.৬, ৬.৩ ও ৬ শতাংশ। একই সময়ে জি-টোয়েন্টিভুক্ত দেশগুলোর অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে যথাক্রমে ৩.৮, ৩.৭, ৩.৭ শতাংশ এবং যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে যথাক্রমে ২.৯. ২.৭ ও ২.১ শতাংশ। অন্যদিকে, ইউরো অঞ্চলের অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে যথাক্রমে ১.৯, ১.৮ ও ১.৬ শতাংশ।

৬. এদিকে, ব্রিটেনের অক্সফোর্ড ইকোনোমিক্স এক গবেষণা-প্রতিবেদনে বলেছে, ২০১৯ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে ২.৮ শতাংশ, যা চলতি বছরের চেয়ে কম।

প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি সম্ভবত বর্তমানে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় আছে। তবে দেশটি ফেডারেল রিজার্ভ আগামী বছর সুদের হার যদি তিন বার বাড়াবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে নতুন বাজার এবং নতুন অর্থনৈতিক শক্তিগুলোর ওপর চাপ বাড়বে। তা ছাড়া, আগামী বছর নতুন অর্থনৈতিক শক্তিগুলোর প্রবৃদ্ধি হতাশাজনক হবে বলেও অনুমান করা হচ্ছে।

৭. অক্টোবরে মালয়েশিয়ার ভোক্তা মূল্যসূচক বা কনজুমার প্রাইস ইনডেক্স (সিপিআই) গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ০.৬ শতাংশ বেড়েছে। বাসা ভাড়া, পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ও অন্যান্য জ্বালানির মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও সেবার মূল্য বৃদ্ধি এর কারণ। দেশটির পরিসংখ্যান বিভাগ সম্প্রতি এ তথ্য জানিয়েছে।

৮. চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের অক্টোবর মাস পর্যন্ত প্রথম চার মাসে বৈদেশিক সহায়তা ছাড়ে পিছিয়ে পড়েছে বাংলাদেশ সরকার।

অর্থবছরের প্রথম চার মাসে দাতা দেশ ও সংস্থাগুলোর কাছ থেকে প্রতিশ্রুত অর্থ থেকে ছাড় হয়েছে ১৩৩ কোটি মার্কিন ডলার। এই অঙ্ক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ১৩ কোটি ডলার কম।

চলতি অর্থবছরে সরকার সব দাতা দেশ ও সংস্থাগুলোর কাছ থেকে ৭১৭ কোটি মার্কিন ডলার ছাড়ের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। গত অর্থবছর লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬১৩ কোটি ডলার।

৯. বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনে বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণের পর কেটে গেছে এক যুগ। এবার বিদ্যুৎ সঞ্চালনেও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের নিয়ে আসতে চাইছে সরকার। প্রাথমিকভাবে দুইটি সঞ্চালনলাইন বেসরকারি কোম্পানির মাধ্যমে নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

সম্প্রতি বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, প্রাথমিকভাবে কক্সবাজারের মহেশখালী থেকে মদুনাঘাট এবং চট্টগ্রামের রাউজান থেকে মিরসরাই পর্যন্ত বেসরকারি খাতে দুটি সঞ্চালনলাইন নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। পিজিসিবি এটি তদারক করবে। প্রকল্প দুইটির একটি বিডার ফিন্যান্সিং পদ্ধতি এবং অন্যটি আইপিপি প্রক্রিয়ায় করার প্রস্তাব তৈরি করা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে পিজিসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুম আল-বেরুনী স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান, কোন পদ্ধতি অনুসরণ করে লাইন দুটি নির্মিত হবে, সে বিষয় পর্যালোচনা করা হচ্ছে। পাওয়ার সেল এ নিয়ে কাজ করছে। তারা একটি মডেল চূড়ান্ত করলে এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

১০. অবৈধ মোবাইল হ্যান্ডসেটের কারণে প্রতিবছর বাংলাদেশ সরকার প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ২০১৭ সালেও দেশে অবৈধ সেটের বাজার ছিল ৩ হাজার কোটি টাকার মতো। চলতি বছর সেটা বেড়ে হয়েছে ৪ হাজার কোটি টাকা। আর বৈধ মার্কেটের বাজার গেল বছর ছিল ৭ হাজার কোটি টাকার। এবার সেটা ৫০০ কোটি টাকা কমে গেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানী ঢাকার একটি হোটেলে সাংবাদিক সম্মেলনে মোবাইল ফোন ইমপোর্টার্স এসোসিয়েশনের (বিএমপিআই) নেতারা এসব তথ্য তুলে ধরেন। তারা বলেন, অবৈধ মোবাইলের বাজার চাঙ্গা থাকায় দেশে মোবাইল তৈরির কারখানাগুলোও ঝুঁকিতে পড়েছে।

১১. আগামী ৬ ডিসেম্বর থেকে সপ্তাহে প্রতিদিন ঢাকা-কুয়াংচৌ রুটে ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

৮টি বিজনেস ক্লাসসহ মোট ১৬৪ আসনবিশিষ্ট বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ঢাকা থেকে চীনের কুয়াংচৌ পর্যন্ত ফ্লাইট পরিচালিত হচ্ছে। ঢাকা-কুয়াংচৌ রুটে নূন্যতম ওয়ান ওয়ের ভাড়া ১৯,৯৯৯ টাকা এবং রিটার্ন টিকিটের ভাড়া ২৯,৯৯৯ টাকা। সকল ভাড়ায় ট্যাক্স ও সারচার্জ অন্তর্ভুক্ত।

বর্তমানে ঢাকা থেকে মঙ্গল, বৃহস্পতি, শনি ও রবিবার রাত ১০টা ১০ মিনিটে কুয়াংচৌর উদ্দেশ্যে প্লেন ছেড়ে যায় এবং কুয়াংচৌ পৌঁছায় স্থানীয় সময় রাত ৩টা ৫০ মিনিটে। আবার কুয়াংচৌ থেকে বুধ, শুক্র, রবি ও সোমবার ভোর ৫টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে প্লেন এবং ঢাকায় পৌঁছায় সকাল ৭টা ৩০ মিনিটে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা-কুয়াংচৌ রুটে ভ্রমণকারীদের জন্য দিচ্ছে ২ রাত ৩ দিনের আকর্ষণীয় ভ্রমণ প্যাকেজও। প্যাকেজ মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতিজনের জন্য সর্বসাকুল্যে ৩৬,৯৯০ টাকা। প্যাকেজের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে ঢাকা-কুয়াংচৌ-ঢাকা এয়ার টিকেট, ৩ তারকাবিশিষ্ট হোটেলে আবাসন ব্যবস্থা ও সকালের নাস্তা। বিনাসুদে ৬ মাসের কিস্তির সুবিধাও রয়েছে।

বর্তমানে কুয়াংচৌ ছাড়াও সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর, ব্যাংকক, দোহা, মাস্কাট ও কলকাতায় ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। এ ছাড়া বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ সকল রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা। সপ্তাহে প্রায় ৩৩০টির অধিক অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে ইউএস-বাংলা।

(আলিমুল হক)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040