Web bengali.cri.cn   
'পিচ ফুলের দেশে গোপন প্রেম'-এর (Secret Love In Peach Blossom Land) দ্বিতীয় পর্ব
  2018-11-20 11:30:08  cri

বন্ধুরা, গত সপ্তাহে আমরা ক্লাসিক নাটক 'পিচ ফুলের দেশে গোপন প্রেম'-এর (Secret Love In Peach Blossom Land) প্রথম পর্ব শুনেছি। আজকের অনুষ্ঠানেরও আমরা প্রেমের গল্পটি শুনবো।

বন্ধুরা 'নাটকের মধ্যে নাটক' সম্পর্কে আপনাদের ধারণা আছে? আসলে গত সপ্তাহে প্রথম পর্ব ছিল 'পিচ ফুলের দেশে গোপন প্রেম' নাটকের মধ্যের নাটক।

('পিচ ফুলের দেশে গোপন প্রেম'-এর পরিচালক ও উপ-পরিচালক মঞ্চে প্রবেশ করলেন।)

দু'জন পরিচালক মনে করেন, অভিনেতা ও অভিনেত্রীর অনুভূতি যথাযথ হয়নি। কারণ তারা দু'জন ভিন্ন যুগে জন্মগ্রহণ করেছেন। তাই পরিচালকের যুগের প্রেক্ষাপট বুঝতে পারে না। অভিনেতা ও অভিনেত্রীরা যখন একটি রোমান্টিক গল্পে অভিনয় করে, তখন যুদ্ধ প্রায় শেষ। মন থেকে তারা কথাগুলো অনুভব করতে পারেনি। তাহলে কি করা যায়? কিছুই না!

একেক যুগের মানুষের একেক ধরনের অভিজ্ঞতা হয়। পরিচালক আকাশ দেখে হাহাকার করে ওঠেন। এবার পরবর্তী বিষয়ে মহড়া হবে। এ মঞ্চের প্রথম পর্ব আয়োজনের পর ৫০ বছর পার হয়েছে। তাইপেই হাসপাতালের এক রুমে:

নার্স: শুভ সকাল! ভাল ঘুম হয়েছে? আপনি আজকের সংবাদপত্র পড়েছেন? আবহাওয়া আজ খুব ভালো, আপনি উঠে বসতে পারেন।... আপনি উঠে বসুন। আবহাওয়া আজ সত্যিই অনেক ভালো!

(সংবাদপত্র নিয়ে) মিঃ জিয়াং, এই 'মানুষের খোঁজ' সত্যিই আপনি নিবন্ধন করতে চান?

সত্যিই! প্রথমবারের মতো, আমি সেসব মানুষকে জানতে চাই যারা 'মানুষের খোঁজ'-এ নিবন্ধন সংগ্রহ করে! ('মানুষের খোঁজ' পড়তে পড়তে) ইয়ুন জি ফান, শাংহাইয়ে তার সঙ্গে শেষ দেখার পর ৪০ বছর পার হয়েছে, কেমন আছে...হায়! এত নির্মম! সে কে?

নার্স: আপনি কি আমাকে বলছেন?

জিয়াং: তুমি কখন জন্মগ্রহণ করেছ?

নার্স: চীন প্রজাতন্ত্রের ৬২তম বছরে।

জিয়াং: তাহলে তুমি বুঝতে পারবে না।

নার্স: ওহ! আপনি এভাবে কথা বললে কীভাবে বুঝবো? আপনি আমাকে বলেন- কী বুঝতে হবে! গল্পটা আমাকে বলেন!

জিয়াং: চীন প্রজাতন্ত্রের ৩৭তম বছরে আমি তার সঙ্গে শাংহাইয়ের সাথে দেখা করেছিলাম। সেই গ্রীষ্ম আমার কাছে সুখী গ্রীষ্ম ছিল। পরে, সে নতুন বছর খুনমিং শহরে- তার জন্মস্থানে ফিরে যায়। আমি তাকে শাংহাই পার্কে বিদায় জানালাম। এরপর বাকি জীবন তার সঙ্গে আর দেখা হয়নি!

নার্স: তাহলে, আপনি ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তাকে মিস করছেন?

জিয়াং: আপনি ভুলে যান যখন কিছু জিনিস ভুলে যাওয়া যায় না।

নার্স: কে বলেছে! আমরা ভুলে যেতে পারি। আমার প্রেমিক সিয়াও ছেন, আপনি তাকে দেখেছেন।

জিয়াং: তার কি হয়েছে?

নার্স: দুই সপ্তাহ আগে আমাদের সম্পর্ক ভেঙে গেছে। আমি গত দুদিন ধরে তার কথা ভাবার চেষ্টা করছিলাম। তার চেহারা কেমন ছিল। আমি মনে করতে পারছি না! আর আপনি এত অদ্ভুত! এখনও আপনি তার কথা মনে রেখেছেন, তাকে খুঁজছেন!

জিয়াং: জীবন, জীবনের সবকিছু...

নার্স: তাহলে, মিসেস জিয়াং, আপনার স্ত্রী কি তা জানে?

জিয়াং: সে......

নার্স: তাহলে সংবাদপত্রে এতো বড় অনুসন্ধানের জন্য কত টাকা ব্যয় করতে হবে?

জিয়াং: তুমি বলো, তিনি সংবাদপত্র দেখে আমাকে খুঁজতে আসবে?

হঠাৎ, মিসেস জিয়াং রুমে ঢুকলেন।

নার্স: (পিছনে সংবাদপত্র লুকিয়ে বলল) শুভ সকাল, মিসেস জিয়াং!

মিসেস জিয়াং: শুভ সকাল।

নার্স: ওহ, আজ নতুন ফুল আছে! (সংবাদপত্র ড্রয়ারের মধ্যে রাখল।)

মিসেস জিয়াং: ভাল ঘুমিয়েছো? তুমি আরও কিছুক্ষণ ঘুমাও।

জিয়াং: ঠিক আছে, আবার ঘুমাই...

মিসেস জিয়াং: মিস নার্স, মিঃ জিয়াং-এর রক্তচাপ আজ কেমন?

নার্স: রক্তচাপ পরিমাপ করা হয়নি।

মিসেস জিয়াং: তাহলে ডাক্তার কখন আসবে?

নার্স: খুব দ্রুত।

মিসেস জিয়াং: আজ দুপুরে কি খাবে? সস নুডলস রান্না করব? (মি. জিয়াং ঘুমাচ্ছেন, উত্তর নেই) নার্স, মি. জিয়াং কি সম্প্রতি অনেক কিছু চিন্তাভাবনা করেছেন?

নার্স: হ্যাঁ, কিন্তু বেশিরভাগ রোগীই এই রকম চিন্তাভাবনা করে।

মিসেস জিয়াং: মিস নার্স, আজকের চীন টাইমস (সংবাদপত্রের নাম) দেখেছো?

নার্স: এখনো না।

মিসেস জিয়াং: ওহ, হ্যাঁ, কিছুই না। (ড্রয়ার খুলতে যান)

নার্স: আরে, মিসেস জিয়াং! (মিঃ জিয়াং স্থির হন) আসলে জনাব জিয়াং সত্যিই ভালো আছেন।

মিসেস জিয়াং: হ্যাঁ, হ্যাঁ।

নার্স: মিসেস জিয়াং, আপনাদের কতদিন আগে বিয়ে হয়েছে?

মিসেস জিয়াং: অনেক দিন আগে!

নার্স: সেই সময় জিয়াং কেমন ছিলেন?

মিসেস জিয়াং: তিনি সবসময় একই রকম ছিলেন, একটু একাকী। একা বসে চা খান, আমি তার জন্য চা প্রস্তুত করি তা খেতে চান না। আমি জানি না সে মনে মনে কী ভাবে! পরে, এমনকি ছোট ছেলে তার সঙ্গে তর্ক করার সাহস পায়না।

মিসেস জিয়াং দীর্ঘশ্বাস ফেলে!

নার্স: আপনি জেগে আছেন? কেন আবার এই গান শুনছেন? আমি কতবার আপনাকে বললাম, এই গানটি আর শুনবেন না, সবসময় আপনি গানটি শুনলে তো মেজাজ ভালো হবে না। এটা বন্ধ করুন। (সংগীত বন্ধ)

জিয়াং: এই তো কত সুন্দর!

নার্স: একই গান বার বার শুনতে কি ভালো লাগে? আমি অনেক বার শুনেছি এবং এখনও এটা কি গাওয়া হয় আমি জানি না। প্রতিবার যখন আপনি এই গানটি শোনেন তখন আপনার দিকে তাকাই, তখন খুব দুঃখিত মনে হয়।

জিয়াং: আমারও কোনো উপায় নেই।

নার্স: আপনি সব সময় এটি নিয়ে চিন্তা করতে পারেন না! আপনি ড্রেসিং নোটিশটি প্রকাশের তারিখ থেকে আজ পর্যন্ত গণনা করেন, পাঁচ দিন হয়েছে! আপনি এখনও তার জন্য অপেক্ষা করে আছেন, আমি এটা প্রয়োজনীয় বলে মনে করি না। মিস ইয়ুন প্রথম দিন আসেননি, আমি জানতাম তিনি আসবেন না! তা ছাড়া, মিস ইউন বেঁচে আছেন কি-না তাও আপনি জানেন না… দুঃখিত! আমি বলতে চাচ্ছি, যদি মিস ইউন সত্যিই আসেন, তবে বিষয়গুলি আরো বিরক্তিকর হতে পারত। কারণ আপনি আরো মন খারাপ করতে পারেন। এখন শান্তভাবে আছেন, সবকিছু কত ভাল আছে!

মিসেস জিয়াং ফিরে আসেন। মিসের জিয়াংয়ের নাম মে রু।

জিয়াং: মে রু, ড্রয়ারের চিঠি আপনার জন্য প্রস্তুত করি। আইনজীবী চেনকে কল করুন, তাকে দ্রুত আপনার নামে আমাদের রিয়েল এস্টেট স্থানান্তর করতে হবে।

মিসেস জিয়াং: আপনি এখন কি করছেন?

জিয়াং: আপনি ... আপনি ফিরে যান এবং আমার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পর্কিত বিষয় প্রথম দেখাশোনা করেন। আহ! আমি এখানে কিছুক্ষণ শান্তভাবে বিশ্রাম করছি, আমি ঠিক আছি, আপনাকে চিন্তা করতে হবে না।

মিসেস জিয়াংয়ের কোনো উপায় নেই। তাই চলে যান। এই সময়, ইয়ুন এসে হাজির হয়!

..........

প্রিয় শ্রোতা, আজকের অনুষ্ঠান আপনাদের কেমন লাগলো? আপনারা যদি 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' বিষয়ক কোনো কিছু জানতে বা আলোচনা করতে চান, তাহলে আমাকে চিঠি লিখবেন বা ই-মেইল করবেন। আপনাদের কাছ থেকে চমত্কার পরামর্শ আশা করছি। আর আপনাদের জানিয়ে রাখি, আমার ইমেইল ঠিকানা হলো, hawaiicoffee@163.com

চিঠিতে প্রথমে লিখবেন, 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' অনুষ্ঠানের 'প্রস্তাব বা মতামত'। আপনাদের চিঠির অপেক্ষায় রইলাম।

বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠান এখানেই শেষ করছি। শোনার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আগামী সপ্তাহে একই দিন, একই সময় আপনাদের সঙ্গে আবারো কথা হবে। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। চাইচিয়ান। (জিনিয়া/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040