Web bengali.cri.cn   
 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' অনুষ্ঠানের --'জ্ঞানের কথা'
  2018-07-24 14:01:39  cri
'সুস্থ চীন' ও 'দারিদ্র্যবিমোচন' পরিকল্পনায় সাহায্য করা এবং কানসু প্রদেশের দক্ষিণাঞ্চলের তিব্বত স্বায়ত্তশাসিত এলাকার চিকিত্সা ব্যবস্থার উন্নয়নে, গত ৯ জুলাই বেইজিং থেকে দুই শতাধিক বিশেষজ্ঞ চিকিত্সক সেখানে সপ্তাহব্যাপী বিনামূল্য চিকিত্সা সেবা কার্যক্রম শুরু করেন।

এ বারের কার্যক্রমে প্রায় ১০০০ স্বেচ্ছাসেবক অংশগ্রহণ করেন। তারা তিব্বত স্বায়ত্তশাসিত এলাকার বিভিন্ন জেলায় যান। তারা বিনামূল্য চিকিত্সাসামগ্রী ও চিকিত্সা প্রশিক্ষণ দেন। সেই সঙ্গে সেখানে চীনের ঐতিহ্যবাহী ওষুধ সংরক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা ও 'সুস্থ গ্রাম' প্রতিষ্ঠা করবেন।

কার্যক্রমে স্থানীয় লোকজনকে প্রয়োজনীয় চিকিত্সা সেবা দেওয়া হয়, সুস্থতা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য দেওয়া ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। পাশাপাশি চিকিত্সা প্রতিষ্ঠান ও ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে স্থানীয় চিকিত্সা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়।

গত এপ্রিল মাসের শেষে চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যে উ হান শহরে অনানুষ্ঠানিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকের চেতনা সুষ্ঠুভাবে কাজে লাগানোর জন্য চীন ও ভারতীয় যুবকদের উ হান 'বৈঠককে সামনে রেখে গত ৮ জুলাই উ হান ক্রীড়া কলেজ এক কার্যক্রম হাতে নেয়।

দুই শীর্ষনেতার উ হান বৈঠকের চেতনা পর্যালোচনা করে দু'দেশের যুব প্রতিনিধিরা দু'দেশের সম্পর্ক উন্নয়ন এবং দু'পক্ষের ঐতিহ্যবাহী মৈত্রী জোরদারসহ বিভিন্ন বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

তা ছাড়া, উ হান কার্যক্রমসংক্রান্ত ভবনও পরিদর্শন করেছে ভারতীয় যুব প্রতিনিধিরা। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে উ হান শহর উন্নয়ন এবং ভবিষ্যত্ প্রতিষ্ঠাকাজের নির্দেশনা উপলব্ধি করেন তাঁরা। তাঁরা জানান, চীনের অভিজ্ঞতা থেকে ভারতের শহর উন্নয়ন আরো ভাল হবে।

উল্লেখ্য, চীনের যুব ফেডারেশনের আমন্ত্রণে ভারতের যুব প্রতিনিধিরা ৬ থেকে ৮ জুলাই পর্যন্ত উ হান সফর করেন।

'প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষাসংক্রান্ত কুই ইয়াং আন্তর্জাতিক ফোরাম-২০১৮' গত ৭ জুলাই চীনের কুই চৌ প্রদেশের রাজধানী কুই ইয়াংয়ে শুরু হয়েছে। এতে অভিনন্দনবার্তা পাঠান চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং।

বার্তায় প্রেসিডেন্ট সি বলেন, প্রাকৃতিক পরিবেশ গঠন মানবজাতির ভবিষ্যতের সঙ্গে জড়িত। সবুজ পরিবার গড়ে তোলা বিভিন্ন দেশের জনগণের অভিন্ন স্বপ্ন। আন্তর্জাতিক সমাজের উচিত সহযোগিতা জোরদার করা এবং সবুজায়নের প্রাকৃতিক ব্যবস্থা গড়ে তোলা, যাতে বিশ্বের অবিরাম উন্নয়ন বাস্তবায়ন করা যায়।

সেই সঙ্গে, আন্তর্জাতিক সমাজের সঙ্গে জাতিসংঘের 'অবিরাম উন্নয়ন এজেন্ডা ২০৩০' বাস্তবায়ন করতে চীনের আগ্রহের কথাও বার্তায় উল্লেখ করেন তিনি।

এবারের ফোরামের মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে 'সভ্যতার নতুন সময়পর্বে প্রাকৃতিক পরিবেশের যাত্রা শুরু'।

'ওয়াটার কিউব কাপ ২০১৮' শীর্ষক গানের প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব ২০ জুলাই বেইজিংয়ে শুরু হয়েছে। প্রবাসী চীনারা মাতৃভাষায় গান গেয়ে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। বেইজিংয়ের ওয়াটার কিউব স্টেডিয়ামে প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বটি চলবে ৯ অগাস্ট পর্যন্ত।

এবারের প্রতিযোগিতায় বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে সাত সহস্রাধিক প্রবাসী চীনা অংশগ্রহণ করেন। তাঁদের মধ্যে শতাধিক চূড়ান্ত পর্বে উন্নীত হয়েছেন।

বন্ধুরা, তৃতীয় ব্রিক্সভুক্ত দেশের মিডিয়াবিষয়ক উচ্চপর্যায়ের ফোরাম ১২ জুলাই দক্ষিণ আফ্রিকায় শেষ হয়েছে। এতে ব্রিক্স দেশের মিডিয়া সংস্থার প্রতিনিধিরা বন্ধুত্বপূর্ণ বিনিময় ও বাস্তব সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা করেন এবং 'ব্রিক্সভুক্ত দেশের মিডিয়াবিষয়ক উচ্চপর্যায়ের ফোরাম কার্য-বিবরণী (২০১৮-২০১৯)' পাশ হয়।

এবারের ফোরাম যৌথভাবে আয়োজন করেছে চীনের সিনহুয়া সংবাদ সংস্থা ও দক্ষিণ আফ্রিকার স্বাধীন মিডিয়া গ্রুপ। ব্রিক্সভুক্ত পাঁচটি দেশ ও আফ্রিকার অন্যান্য ৪৮ দেশের মিডিয়া প্রতিনিধি ফোরামে অংশ নিয়েছে। ফোরামের প্রতিপাদ্য হলো 'সহনশীল ও ন্যায়সঙ্গত আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলা গঠনে মিডিয়ার সহযোগিতা জোরদার করা'। অংশীদাররা 'মিডিয়ার দায়িত্ব ও ভূমিকা', 'গঠনমূলক ও উন্নয়নশীল সংবাদ ধারণা নিয়ে বিশ্বের ভবিষ্যত প্রতিষ্ঠা করা, ব্রিক্সভুক্ত দেশগুলোর সহযোগিতা জোরদার করা' ও 'ব্রিক্সভুক্ত দেশের মিডিয়া ও চতুর্থ শিল্প বিপ্লব' নিয়ে গভীর আলোচনা করেছে।

ফোরামে প্রকাশিত 'ব্রিক্সভুক্ত দেশের মিডিয়াবিষয়ক উচ্চপর্যায়ের ফোরাম কার্য-বিবরণী (২০১৮-২০১৯)' উত্থাপিত হয়, উন্মুক্ত, সহনশীল, সহযোগিতা, অভিন্ন স্বার্থ অর্জনের ব্রিক্স চেতনার নির্দেশনায়, ব্রিক্স দেশের মিডিয়ার উচিত সরকারি ও বেসরকারি মিডিয়া সংস্থার যোগাযোগ জোরদার করা, মিডিয়ার বাস্তব সহযোগিতা উন্নত করা, আরো ন্যায়সঙ্গত আন্তর্জাতিক জনমত প্রচারবিষয়ক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা।

আজকের আন্তর্জাতিক পর্ব শেষের আগে আমি একটি ছোট পর্ব যোগ করবো। এ পর্বের নাম 'জ্ঞানের কথা'!

চীনের 'তৌপান' নামক একটি ওয়েবসাইট আছে, এতে বিভিন্ন বই, চলচ্চিত্র, সংগী তসহ নানা সাংস্কৃতিক মহলের কর্ম নিয়ে মন্তব্য পোস্ট করা হয় এবং তাতে স্কোরিং করে দর্শকরা। আমি চলচ্চিত্র পর্বের মন্তব্যের বিভাগটি পছন্দ করি, নাম-প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক ব্যক্তি কিন্তু তাদের জীবনের বুদ্ধি মন্তব্য পর্বে শেয়ার করেছেন। যেমন সম্প্রতি একজনের মন্তব্য আমাকে অনেক মুগ্ধ করেছে। এখন আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো।

"Life is one taste of bitterness of gall, and later a taste of sweetness of candy. What is so ironic about life is, sometimes you think you got a candy in hand, but later you find out that inside that candy is still bitterness.

For most people, there's much more bitterness than sweetness in life. But why people are so strong, you might wonder. That is because, a wise man once said, only those who is so bitter inside is satisfied the minute he or she got only such small amount of sweetness."

জীবনে তিক্ততা আছে, মিষ্টতাও আছে। জীবনের সবচেয়ে তিক্ত দিক হলো, কখনও আপনার মনে হবে যে, আপনি হাতে একটি মিষ্টি ক্যান্ডি পেয়ে গেছেন। কিন্তু পরে দেখবেন, সেই ক্যান্ডির মধ্যেও তিক্ততা রয়েছে।

অধিকাংশ মানুষের জীবনে মিষ্টতার চেয়ে তিক্ততা বেশি। তাহলে মানুষ কেন এত শক্তিশালী হয়? কারণ, এক জ্ঞানী ব্যক্তি একবার বলেছিলেন যে, যাদের জীবন তিক্ততায় পরিপূর্ণ, তারা ছোট একটু মিষ্টিতেই সন্তুষ্ট হতে পারে।

প্রিয় শ্রোতা, আজকের অনুষ্ঠান আপনাদের কেমন লাগলো? আপনারা যদি 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' বিষয়ক কোনো কিছু জানতে বা আলোচনা করতে চান, তাহলে আমাকে চিঠি লিখবেন বা ই-মেইল করবেন। আপনাদের কাছ থেকে চমত্কার পরামর্শ আশা করছি। আর আপনাদের জানিয়ে রাখি, আমার ইমেইল ঠিকানা হলো, hawaiicoffee@163.com

চিঠিতে প্রথমে লিখবেন, 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' অনুষ্ঠানের 'প্রস্তাব বা মতামত'। আপনাদের চিঠির অপেক্ষায় রইলাম।

বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠান এখানেই শেষ করছি। শোনার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আগামী সপ্তাহে একই দিন, একই সময় আপনাদের সঙ্গে আবারো কথা হবে। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। চাইচিয়ান। (জিনিয়া/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040