Web bengali.cri.cn   
হেই লং চিয়াং প্রদেশের সীমান্ত-গ্রাম উন্নয়নের গল্প
  2018-06-20 15:47:35  cri

 



উ সু লি শীর্ষক একটি গান চীনে জনপ্রিয় ছিল। গানের একটি লাইন এমন: হে জে জাতির মানুষ হাজারটি জাল পেতে নদীর সব নৌকা মাছে পূর্ণ করে।

হে লেই চিয়াং, পূর্ব-উত্তর চীনের একটি প্রদেশ এবং প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে প্রদেশটির সীমান্তরেখা ৩ হাজার কিলোমিটার।

ভোর বেলা। অনেক স্বপ্ন নিয়ে ৬৩ বছর বয়সী হে জে জাতির প্রবীণ জেলে ইউ সি জু নৌকায় বসে মাছ ধরতে শুরু করেন। এভাবে শুরু হয় তার নতুন এক দিন। গেল কয়েক দশকে, তিনি সবসময় এভাবে তার একটি দিন শুরু করেন। এটা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। তিনি বলেন, আগে মাছ ধরতে হতো পরিবারের ভরণ-পোষণের জন্য। তখন বাধ্য হয়ে এ-কাজ করতে হতো। কিন্তু এখন তিনি মাছ ধরেন অবসর সময় কাটানোর জন্য।

হে জে চীনের একটি সংখ্যাঘু জাতি। এ জাতি মূলত মাছ ধরে ও শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে। ইউ সি জু থং চিয়াং শহরের চিয়ে চিন খো হে জে উপজেলার বাসিন্দা, এ উপজেলা হে জে জাতিঅধ্যুষিত অঞ্চল।

গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকে, স্থানীয় সরকারের উদ্যোগে, হে জে জাতির মানুষ নিজেদের উত্পাদন-পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনে। তারা চাষ, অ্যাকুয়াকালচার এবং জাতীয় বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন পর্যটনসহ বহুমুখী ব্যবসা শুরু করে।

 

২০১১ সাল থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে ইউ সি জু দু'টি ইয়ট ক্রয় করেন এবং তার জেলায় তিনিই প্রথম ইয়ট ব্যবসা শুরু করেন। ইউ সি জুর মাছ-ধরা-নৌকা ও ইয়ট দু-তিনবার পরিবর্তন করেছেন। তিনি একটি নৌযাত্রী পরিবহন কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন এবং নদীর তীরে একটি রেস্টুরেন্ট খোলেন। তার বার্ষিক আয় এক লাখ আরএমবি ছাড়িয়েছে।

হেই লং চিয়াং প্রদেশের উ সু লি নদীর তীরে অবস্থিত গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে অনেকে এখন 'তৃতীয় শিল্পসংশ্লিষ্ট ব্যবসা' করেন।

হেই লং চিয়াং প্রদেশের মো হে চীনের সবচেয়ে উত্তরের একটি জেলা এবং জেলার একটি গ্রামের নাম 'উত্তর মেরু'। এ-গ্রামটি চীনের সবচেয়ে উত্তরে অবস্থিত। এ গ্রামে সবার আগে সূর্য ওঠে। আগে এখানকার মানুষ গাছ কাটে জীবিকা নির্বাহ করতো। এখন তারা পর্যটন-শিল্পের ওপর নির্ভর করছেন। এখানে কুড়িটি বিছানার একটি পরিবারিক হোটেলের বার্ষিক আয় প্রায় ২ লাখ ইউয়ান এবং এ গ্রামের ৭০০টি পরিবারের মধ্যে ১৭১টিরই পারিবারিক হোটেল আছে।

২০১৭ সালে হেই লং চিয়াং প্রদেশের ১৮টি সীমান্ত-শহর ও জেলার জিডিপি ২০১০ সালের তুলনায় ৭০ শতাংশ বেশি ছিল। সংখ্যালঘু জাতির কৃষকদের মাথাপিছু বার্ষিক আয় ২০১০ সালের দ্বিগুণ হয়। এর মধ্যে হে জে জাতির আয় সবচেয়ে দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

গ্রামের যুবকদের বাইরে গিয়ে কাজ করা এখন একটি সাধারণ ব্যাপার। উত্তর-পূর্ব চীনের সীমান্ত অঞ্চলে এ প্রবণতা বেশি। সীমান্তবর্তী একটি জেলার একজন ক্যাডার জানিয়েছেন, আগে তাদের গ্রামের প্রতি একশ' জন বিশ্ববিদ্যালয় স্নাতকের মধ্যে মাত্র ২ জন গ্রামে ফিরে আসতো। অথচ গ্রামের পুনরুত্থানের জন্য দক্ষ ব্যক্তি প্রয়োজন। যারা গ্রামের পরিস্থিতির সঙ্গে পরিচিত এবং শিক্ষিত তারা গ্রামের উন্নয়নে আরও বেশি অবদান রাখতে পারে।

মি শান শহরের পেই ইউু ওয়ান জেলা সিং খাই হ্রদের পাশে অবস্থিত। পরিবহন-ব্যবস্থা দুর্বল বলে এখানে উত্পাদিত ধান বাইরে বিক্রি করা যায় না। তবে চাও চি চিংয়ের চোখে এখানকার প্রাকৃতিক পরিবেশ ভাল, সুপ্তশক্তি বিশাল ।

২০১৭ সালে চাং চি চিং একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন এবং তার নেতৃত্বে স্থানীয় কৃষকরা হাই-এন্ড ধান চাষ শুরু করেন। এ ধানের উত্পাদন কম হলেও সাধারণ ধানের চেয়ে দাম বেশি বলে অনেক কৃষক বুঝতে পারেন যে, পরিমাণের তুলনায় গুণগত মান ভাল এমন ধান চাষ করলে ধনী হওয়া যাবে।

হেই লং চিয়াং প্রদেশের ১৮টি সীমান্তবর্তী জেলা ও শহরে ৩০টি সংখ্যালঘু জাতির ১৫৬টি গ্রাম আছে। নিজ নিজ জাতির সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্যও তাদের গ্রামীণ অর্থনীতি উন্নয়নের নতুন চালিকাশক্তিতে পরিণত হয়।

একবার সাপ্তাহিক ছুটিতে বেইজিং থেকে ১০ জন শিক্ষক ও শিক্ষার্থী আসেন হেই হে শহরের আই হুই জাতীয় সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার শিক্ষাকেন্দ্রে এবং তারা 'এ লুন ছুন' নামক একটি জাতির রীতিনীতি শিখতে আসেন। এ শিক্ষাকেন্দ্র ঠিক এ লুন ছুন জাতিঅধ্যুষিত গ্রামে অবস্থিত। গ্রামটি ঐতিহাসিক ও বৈশিষ্টসম্পন্ন।

এ গ্রামের নাম সিন সেং। গ্রামে প্রবেশ করলেই শোনা যাবে এ লুন ছুন মানুষের আবেগী কণ্ঠ। তারা হয়তো লোকসংগীত গাইছেন। পর্যটকরা নিজেরাও তাদের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারে।

এ লুন ছুন জাতি পাহাড়ে বাস করতো। ৬৫ বছর আগে তারা পাহাড় থেকে নেমে আসে। ৭২ বছর বয়সী কে ছাং ইউন বলেন, ছোটবেলায় তিনি পরিবারের সঙ্গে পাহাড়ে শিকার করতেন এবং যখন তিনি ৭ বছর বয়সী তখন তিনি পাহাড়ের নীচে এসে নতুন বাড়িতে বাস করা শুরু করেন। সরকারের সাহায্যে এ নতুন বাড়ি নির্মিত হয়।

হা নি খা, তাওএর নামক একটি জাতির বিশেষ খেলা এবং জু ইউয়ে হুয়া এ খেলাটি এখনও ধরে রেখেছেন। তিনি ও তার কয়েকজন ছাত্রছাত্রী গোলটেবিলে বসে আড্ডা করতে করতে হা নি খা তৈরি করেন। তিনি তাওএর জাতির মানুষ এবং তার জীবনের মজার অভিজ্ঞতাগুলো তার জাতির ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানের সঙ্গে সম্পর্কিত। তিনি জানান, প্রতিবছর এখানে অনুষ্ঠিত হয় সংখ্যালঘু জাতির ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং সুস্বাদু খাদ্যের উত্সব। পর্যটকদের আকষর্ণ করার পাশাপাশি তারা নিজেরাও তা উপভোগ করতে পারেন।

কিছুদিন আগে, হেই লং চিয়াং নদী ও উ সু লি নদীর সীমান্তে আসে একটি 'বিশেষ অতিথি'। কয়েক জন জেলে ৫১৪ কেজি ওজনের একটি মাছ ধরেন। একজন বৃদ্ধা জেলে জানান, এত বড় মাছ প্রমাণ করে যে প্রাকৃতিক পরিবেশ দিন দিন ভাল হচ্ছে। অবশ্যই, এ মাছকে খাবারে পরিণত করা হয়নি। একে রক্ষা করা হয়েছে এবং এ মাছের কৃত্রিম প্রজননের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।

গ্রাম পুনরুত্থানের প্রক্রিয়ায় হেই লং চিয়াং প্রদেশের সীমান্ত-গ্রাম নিজস্ব পথ খুঁজে পেয়েছে। তারা নতুন যুগে একটি নতুন উ সু লি গান সৃষ্টি করেছেন যেন। (শিশির/আলিম)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040