Web bengali.cri.cn   
অর্থ-কড়ি (১২ মে ২০১৮)
  2018-05-12 14:43:11  cri


১. গত মাসে (এপ্রিল) চীনের অর্থনীতি স্থিতিশীল ছিল। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে এ-তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদন অনুসারে, এপ্রিলে চীনের নির্মাণ খাতে পারচেজিং ম্যানেজারস্‌ ইনডেক্স (পিএমআই) ছিল ৫১.৪, যা মার্চে ছিল ৫১.৫। অর্থাৎ উত্পাদন খাতে এপ্রিলে স্থিতিশীলতা বজায় ছিল।

প্রতিবেদন অনুসারে, এপ্রিলে শিল্প-উত্পাদন গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৬.৫ বেশি হবে, যা মার্চে ছিল ৬ শতাংশ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, কনজ্যুমার প্রাইস ইনডেক্স (সিপিআই) এপ্রিলে ২ শতাংশ হতে পারে, যা মার্চে ছিল ২.১ শতাংশ। আর প্রডিউসার প্রাইস ইনডেক্স (পিপিআই) টানা ৫ মাস কমার পর এপ্রিলে বেড়ে দাঁড়াবে ৩.৪ শতাংশ।

২. সদ্যসমাপ্ত বেইজিং আন্তর্জাতিক গাড়ি প্রদর্শনীতে সবুজ জ্বালানিচালিত নতুন ধরনের গাড়ি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। প্রদর্শনীতে ১৭৪ ধরনের নতুন মডেলের নতুন জ্বালানিচালিত গাড়ি প্রদর্শিত হয়, যেগুলোর ১২৪টিই চীনে উদ্ভাবিত ও উত্পাদিত।

চীনের নতুন জ্বালানিচালিত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বিওয়াইডি-র কর্মকর্তা ওয়েই সিং জানান, ২০১৭ সালে তাদের কোম্পানি বিশ্বব্যাপী এক লাখ ৩০ হাজার সবুজ জ্বালানিচালিত গাড়ি বিক্রি করেছে। আর চলতি বছর দুই লক্ষ গাড়ি বিক্রির লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে।

ওয়েই সিং আরও জানান, বিওয়াইডি চীনের বিভিন্ন শহরে চলতি বছর নতুন করে ৩০ হাজার চার্জিং স্টেশান গড়ে তোলার পরিকল্পনা করেছে।

উল্লেখ্য, চীনে বর্তমানে ১৬ লাখ নতুন জ্বালানিচালিত গাড়ি চলাচল করছে, যা গোটা বিশ্বের প্রায় অর্ধেক। চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে চীনে এ-ধরনের গাড়ি বিক্রি হয়েছে প্রায় এক লক্ষ ৪৩ হাজার, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৫৪ শতাংশ বেশি।

৩. চীনে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক রাষ্ট্রদূত গ্যারি লক বলেছেন, চার দশক আগে স্থাপিত চীন-মার্কিন কূটনৈতিক সম্পর্ক বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক, যার সুবিধা দু'দেশের জনগণই পাচ্ছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালিতে কমিটি অব ওয়ান থাউজ্যান্ড (সি ১০০)-এর বার্ষিক সম্মেলনে এ-কথা বলেন।

তিনি বলেন, 'আমরা এমন একটা সময়ে এখানে মিলিত হয়েছি, যখন দু'টি দেশের মধ্যে উত্তেজনা ক্রমশ বাড়ছে এবং তা বাণিজ্য-যুদ্ধে রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।'

ওয়াশিংটনের সাবেক গভর্নর ও সাবেক মার্কিন বাণিজ্যমন্ত্রী লক বলেন, 'বর্তমানে প্রতিদিন আমাদের দু'দেশের মধ্যে প্রায় ১৫০ কোটি ডলার মূল্যের পণ্য ও সেবা বিনিময় হচ্ছে। উত্তর আমেরিকার পর চীনই আমাদের বৃহত্তম রফতানি-বাজার। বাকি বিশ্বে আমাদের রফতানি যে-হারে বাড়ছে, চীনে বাড়ছে তারচেয়ে দ্বিগুণ গতিতে। অন্যদিকে, যুক্তরাষ্ট্র চীনের বৃহত্তম রফতানি-বাজার। গোটা ইউরোপে চীন যত পণ্য ও সেবা রফতানি করে, যুক্তরাষ্ট্রে করে তারচেয়ে বেশি।'

তিনি আরও বলেন, চীনে রফতানির জন্য যুক্তরাষ্ট্রে যেসব পণ্য ও সেবা উত্পন্ন হয়, তার সঙ্গে ৯ লাখেরও বেশি আমেরিকান চাকরি জড়িত। অন্যদিকে, দু'দেশের বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত চীনের লক্ষ লক্ষ চাকরি। মোদ্দাকথা, যে-কোনো ধরনের বাণিজ্য-যুদ্ধে দু'দেশই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

লক বলেন, চীনা পণ্যের ওপর শুল্ক মার্কিন উত্পাদকদের আয় কমাবে বা তাদেরকে পণ্যের দাম বাড়াতে বাধ্য করবে। ফলে তাদের পণ্য ও সেবার প্রতিদ্বন্দ্বিতার শক্তি হ্রাস পাবে।

পাঁচ শতাধিক সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, প্রযুক্তিবিদ, শিক্ষাবিদ ও বিশেষজ্ঞের সমাবেশে লক আরও বলেন, 'চীন-মার্কিন সম্পর্ক কঠিন সময় অতিক্রম করছে। আমাদেরকে যে-কোনো অবস্থায় দু'দেশের মধ্যে বাণিজ্য-যুদ্ধ এড়াতে হবে।'

৪. এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের ধনকুবের ওয়ারেন বাফেট বলেছেন, বাণিজ্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে যে বিবাদ চলছে, তা থেকে সরে আসা হয়তো সম্ভব নয়। তবে অত্যন্ত বোকার মতো আচরণ করা থেকে এই দুটি দেশকে দূরে থাকতে হবে। সম্প্রতি নেব্রাস্কা অঙ্গরাজ্যে তাঁর প্রতিষ্ঠান বার্কশায়ার হ্যাথওয়ের বার্ষিক সভায় চীনা বিনিয়োগকারীর এক প্রশ্নের উত্তরে এ-মন্তব্য করেন বাফেট।

সভায় ওয়ারেন বাফেট বলেন, 'অর্থনৈতিক ও অন্যান্য দিক দিয়ে বহু বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন বিশ্বের দুটি পরাশক্তি হয়ে থাকবে। দেশ দুটির বেশকিছু অভিন্ন স্বার্থ আছে। যেকোনো দুটি বড় অর্থনীতির দেশের মধ্যে উত্তেজনাও থাকবে।'

চীন-মার্কিন বাণিজ্যযুদ্ধ প্রসঙ্গে বাফেট বলেন, 'আমাদের একে অপরের সঙ্গে দ্বন্দ্ব আছে এবং বাণিজ্য নিয়ে অন্যান্য দেশের সঙ্গে মতবিরোধ আছে। যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের ওপর বিশ্বের অনেককিছু নির্ভর করছে।'

ওয়ারেন বাফেট চীনে আরও বেশি বিনিয়োগ করার আগ্রহও প্রকাশ করেছেন। তাঁর বয়স এখন ৮৮। আর ৮ সংখ্যা চীনের জন্য সৌভাগ্যের। এটি চীনের জন্য কিছু অর্জন করার সময় বলে মন্তব্য করেন বাফেট।

উল্লেখ্য, চলতি বছর চীনের ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর শুল্ক আরোপের ঘোষণা দেয় মার্কিন প্রশাসন। পরে আবার ৫০০০ কোটি ডলারের ১৩০০টি চীনা পণ্যের ওপর ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপের পরিকল্পনা ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় চীন সয়াবিন, রাসায়নিকসহ যুক্তরাষ্ট্রের ৫০০০ কোটি ডলারের পণ্যে ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপের পরিকল্পনা ঘোষণা করে। জবাবে ট্রাম্প প্রশাসন চীনের ১০০০০ কোটি ডলার মূল্যের পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপের হুমকি দেন।

৫. যৌথ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে, কক্সবাজারের মহেশখালীতে ১৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে চীনের চায়না হাওদিয়ান হংকং কোম্পানির (সিএইচডিএইচকে) সঙ্গে চুক্তি করেছে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)।

চুক্তি অনুযায়ী, আগামী ৪৮ মাস থেকে ৫৪ মাসের মধ্যে মহেশখালীতে ২০০ একর জমির ওপর নির্মিত হবে ৬৬০ মেগাওয়াটের দুটি ইউনিট। সেজন্য আগামী ৩০ কর্মদিবসের মধ্যে উভয় পক্ষ সমান অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে যৌথ কোম্পানি গঠন করবে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ২০১২ সাল থেকে এধরনের বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের চেষ্টা করা হলেও, নানা জটিলতায় তা পেছাতে থাকে। এখন তিন থেকে চার বছরের মধ্যে এটা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

চীনা কোম্পানি সম্পর্কে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সঞ্চালনে তাদের অনেক অভিজ্ঞতা রয়েছে। যৌথ কোম্পানির পক্ষ থেকে ইপিসি কনট্রাকটর নিয়োগ ও প্রয়োজনীয় অর্থায়ন সংগ্রহের কাজটি করা হবে। ভবিষ্যতে কক্সবাজারের মহেশখালী বিদ্যুৎ উৎপাদনের একটি বড় 'হাব' হিসাবে পরিচিতি পাবে বলেও আশা করেন প্রতিমন্ত্রী।

৬. চলতি অর্থবছরের দশ মাসে ১২০৯ কোটি ডলারের রেমিটেন্স দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। এই অংক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ১৭.৫ শতাংশ বেশি। সর্বশেষ এপ্রিল মাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় রেমিটেন্স বেড়েছে ২১ শতাংশের বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি রেমিটেন্সসংক্রান্ত যে-তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে এ-তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।

চলতি বছরের এপ্রিল মাসে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৩২ কোটি ৫৬ লাখ ডলারের রেমিটেন্স। বিশেষায়িত দুই ব্যাংক—কৃষি ব্যাংক ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১ কোটি ১ লাখ ডলার। ৩৯ বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৯৭ কোটি ৫৫ লাখ ডলার। নয়টি বিদেশি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১ কোটি ৪১ লাখ ডলার।

৭. রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তায় বাংলাদেশকে ৪০ কোটি ডলার অনুদান দেবে বিশ্বব্যাংক। ব্যাংকের সর্বশেষ বসন্তকালীন সভায় এই অনুদান প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে বলে বাংলাদেশ সরকারের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) জানিয়েছে।

ইআরডি জানায়, শিগগির অনুদানের পরিমাণ ঠিক করা হবে। এরপর সরকারের সঙ্গে বিশ্বব্যাংক চূড়ান্ত চুক্তি স্বাক্ষর হতে পারে।

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় চার লাখ মানুষ কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশে বসবাস করছে। এরমধ্যে গত বছর এসেছে আরও সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা। বিপুলসংখ্যক এই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে কক্সবাজার ও বান্দরবানের বিভিন্ন এলাকায় আশ্রয় দেওয়া হয়েছে।

৮. চায়ের রাজধানী হিসেবে পরিচিত মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বাংলাদেশের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক চা-নিলামকেন্দ্রের কার্যক্রমের উদ্বোধন হতে যাচ্ছে আগামী ১৪ মে। গত বছরের ৮ ডিসেম্বর শ্রীমঙ্গলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এই নিলামকেন্দ্রের ঘোষণা দেন। তবে কার্যক্রম শুরুর তারিখ বার বার পিছিয়ে যাচ্ছিল। বাংলাদেশের প্রথম ও এখন পর্যন্ত একমাত্র চা-নিলামকেন্দ্রটি অবস্থিত চট্টগ্রামে।

টি ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিটিএবি) গণমাধ্যমকে জানায়, নতুন কেন্দ্রে পর পর তিনটি আন্তর্জাতিক নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় নিলাম যথাক্রমে অনুষ্ঠিত হবে ২৬ জুন ও ১৭ জুলাই। এই সময় চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত চায়ের আন্তর্জাতিক নিলাম বন্ধ রাখা হবে। টি সেলস কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

(আলিমুল হক)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040