Web bengali.cri.cn   
আশা ও ভবিষ্যতের বীজ ছিটানোর মানুষ:জুং ইয়াং
  2018-04-04 10:28:29  cri

 

ত্রিশ বছরের মতো শিক্ষক হিসেবে কাজ করা, এর মধ্যে ১৬ বছর তিব্বতে। হাজার রকমের উদ্ভিদের বীজ সংগ্রহ করা। ফু তান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জুং ইয়াংয়ের নাম যেন উদ্ভিদের সঙ্গেই মিশে আছে। তবে ২০১৭ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর ভোরে, অধ্যাপক জুং ইয়াং ইনার মঙ্গোলিয়ার এরডস শহরে একটি গাড়ি দুর্ঘটনায় নিহত হন। অনেকে তাঁর সম্পর্কে এমন মূল্যায়ন করেন ৫৩ বছরের জীবনে তিনি যে কাজ করেছেন তা অন্যরা ১০০ বছরেও শেষ করতে পারবে না। আজকের পূবের জানালা অনুষ্ঠানে আমরা অধ্যাপক জুং ইয়াং ও বীজের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের গল্প বলব।


গেল বছরের জুলাই মাসে, জুং ইয়াং 'বীজ আর্ক' শিরোনামে একটি ভাষণ দেন। সেখানে তিনি কেন বীজ সংগ্রহ করেন এ প্রশ্নের জবাব দেন। তিনি বলেন

'আমি জুং ইয়াং, একজন উদ্ভিদ বিজ্ঞানী। আমি ফু তান বিশ্ববিদ্যালয় ও তিব্বত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এসেছি। বীজের গল্প জানাতে পারার এমন সুযোগ পেয়ে আমি খুব খুশি। একজন উদ্ভিদ বিজ্ঞানী হিসেবে আমি সবসময় বলি যে একটি জিন একটি দেশকে উদ্ধার করতে পারে এবং একটি বীজও অসংখ্য মানুষের উপকারের জন্য বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

ছিংহাই-তিব্বত মালভূমি চীনের বৃহত্তম জৈব জিন ব্যাংক এবং এখানে রয়েছে এক হাজারটিরও বেশি বিশেষ উদ্ভিদের বীজ। তবে অত্যন্ত ঠান্ডা, খারাপ পরিবেশের কারণে খুব কম পন্ডিতই এমন জায়গায় আসেন। ২০০১ সালে নিজের ইচ্ছায় ছিংহাই-তিব্বত মালভুমিতে এসেছেন জুং ইয়াং। তবে এখানে জৈব তথ্য সার্বিকভাবে সংগ্রহ করা সহজ একটি কাজ নয়।

জুং ইয়াংর ছাত্র জু বিন জানিয়েছেন, প্রতি বছর তাঁরা অন্তত ৬০০ ধরনের নমুনা সংগ্রহ করেন এবং প্রতি নমুনার জন্য ৫০০০টি বীজ দরকার হয়। বিভিন্ন নমুনার মধ্যে সরাসরি ব্যবধান ৫০ কিলোমিটারের চেয়ে বেশি হওয়া উচিত্। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে গড় ৪০০০ মিটার উচু মালভূমিতে এমন কাজ করা কল্পনার চেয়েও কঠিন। জু বিন বলেন

'সাধারণ মাঠিতে প্রায় এক দু বার ৫ সেকেন্ডের মধ্যে একটি নমুনা বাছাই করতে পারি তবে মালভূমিতে প্রথমে আমরা চোখে দেখে জায়গা ঠিক করি তারপর ৩০ সেকেন্ডের মতো শ্বাস নেই তারপর নমুনা উঠিয়ে নেই। এভাবে কয়েক বার করলে একটি নমুনা পেতে পারি।

দীর্ঘ ১৬ বছরে, উত্তর তিব্বতের মালভুমি থেকে দক্ষিণ তিব্বতের উপত্যকা পর্যন্ত, আলি অঞ্চলের নো ম্যান্স ল্যান্ড থেকে ব্রহ্মপুত্র নদী পর্যন্ত, জুং ইয়াং ও তাঁর দল ৫ লাখ কিলোমিটার অতিক্রম করে তিব্বতের সবচেয়ে দূরবর্তী, কঠিন ও অনুর্বর জায়গায় গমন করেন। তাঁরা হাজার ধরনের উদ্ভিদের ৪ কোটির বেশি বীজ সংগ্রহ করেন এবং তা তিব্বতের উন্নত উদ্ভিদ প্রজাতির ২০ শতাংশ এবং এ ক্ষেত্রে বিশ্বের শূন্যতা পূরণ করেন।

জুং ইয়াং'র ছাত্র, তিব্বত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক লা ছুং বলেন,২০১৩ সালে জুং ইয়াংর নেতৃত্বে তিনি ও অন্য একজন তিব্বতি জাতির ছাত্র বিশ্বে সর্বোচ্চ সমুদ্রপৃষ্ঠে উদ্ভিদ সংগ্রহ করার জন্য যান এভারেস্ট পর্বতে। বেস ক্যাম্পে পৌঁছানোর পর অধ্যাপক জুং ইয়াংয়ের উচ্চতাজনিত কারণে অসুস্থতা খুব গুরুতর আকার ধারণ করে এবং তিনি মৃত্যু ঝুঁকির সম্মুখীন হন। লা জুং তাঁর শিক্ষককে বলেন, আপনি এখানে থাকুন। আমি উপরে যাব। আমি তরুণ এবং স্থানীয় মানুষ। তবে জুং ইয়াং তাকে বলেন, যদি তুমি যেতে পারো তাহলে আমিও পারব।

অসুবিধাগুলো কাটিয়ে অবশেষে তাঁরা সমুদ্রপৃষ্ঠের ছয় হাজার মিটার উচুতে একটি উদ্ভিদ নমুনা সংগ্রহ করতে সফল হন। এটা চীনা উদ্ভিদ বিজ্ঞানীদের গমনের সর্বোচ্চ স্থান ।

বৈজ্ঞানিক গবেষণা করতে করতে জুং ইয়াং আবিষ্কার করেন যে তিব্বতের জন্য শুধু একজন জীববিজ্ঞানী প্রয়োজন তা নয়। তিব্বতের জন্য আরোও বেশি বিশেষজ্ঞ ও পেশাদার ব্যক্তি লালন করা আরও গুরুত্বপূর্ণ। তিব্বত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক বিভাগের পরিচালক তান জেং লুও পু বলেন, যখন অধ্যপক জুং ইয়াং আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন আমি তাকে সাধারণ একজন মানুষ মনে করি। এর আগে অনেক অধ্যাপক এখানে এসেছেন তবে তাঁরা নিজেদের গবেষণা শেষ করে ফিরে যান মাত্র। সত্যি কথা বলি , এখানে প্রাকৃতিক পরিবেশ খুব কঠোর ও কঠিন, কেউ এখানে থাকতে চান না। তবে সবার কল্পনার বাইরে, অধ্যাপক জুং ইয়াং এখানে থাকার সিদ্ধান্ত নেন এবং এখানে ১৬ বছরের মতো অবস্থান করেন।

১৬ বছর ধরে, জুং ইয়াং তিব্বত বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অসংখ্য রেকর্ড সৃষ্টি করেন: সেখানে তিনি প্রথম পরিবেশগত ডাক্তার স্টেশন খুলেন, প্রথম তিব্বত জাতির উদ্ভিদবিদ্যা ডাক্তার লালন কেন্দ্র, তিব্বতের প্রথম জীববিদ্যা নবায়ন দল গঠন করেন। তিনি যেমন তিব্বতের উচ্চ শিক্ষা ক্ষেত্রের অনেক শূন্যতা পূরণ করেন তেমনি তিব্বত বিশ্ববিদ্যালয়ের জীব বৈচিত্র্য গবেষণা বিশ্বের সামনে তুলে ধরেন।

গবেষণা ছাড়াও, জুং ইয়াং অনেক বিজ্ঞান জনপ্রিয় করে তোলার কাজ করেন। শাংহাই প্রাকৃতিক যাদুঘর এমন একটি দল খুঁজছিল যারা পুরো যাদুঘরের ছবি ও তাঁর সংশ্লিষ্ট বর্ণনা রচনা করবে। তবে এ বর্ণনা রচনা করতে চাইলে জ্যোতির্বিদ্যা, ভূতত্ত্ব, জীববিদ্যাসহ নানা বিদ্যার তথ্য জানতে হবে। অবশেষে তাঁর জুং ইয়াংয়ের কাছে সাহায্য চান। কোন দ্বিধা না করে জুং ইয়াং এ দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ প্রকল্পের দায়িত্বশীল ব্যক্তি পাও ছি তুং জানিয়েছেন

তখন অধ্যাপক জুং শাংহাই ও তিব্বতের মধ্যে আসা যাওয়া করেন। অধ্যাপক জুং শাংহাইতে আছেন শুনে আমরা তখন তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করি। এমনকি কখনও কখনও তাঁর মাত্র অর্ধেক দিনের সময় আছে, তখনও উনি এখানে আসেন। আমরা জানি উনি খুব ব্যস্ত এবং আমি ভাবলাম উনি দলের নেতা হিসেবে শুধু কিছু পরামর্শ দেবেন। তবে তিনি সবসময় আমাদের সঙ্গে এক একটি শব্দ এক একটি বাক্য নিয়ে আলোচনা করেন।

তাছাড়া, জুং ইয়াং যাদুঘরের জন্য পার্বত্য অঞ্চলের বিরল প্রাণীর নমুনা সরবরাহ করেন।

কিছু দিন আগে, ফু তান বিশ্ববিদ্যালয়ে জুং ইয়াংয়ের জন্য অনুষ্ঠিত একটি 'রিপোর্ট অব দ্যা ইভেন্ট' অনুষ্ঠানে ফু তান বিশ্ববিদ্যালয়ের জীব বিজ্ঞান বিভাগের সিপিসির সম্পাদক ছেন হাও মিং 'স্বপ্ন সাধনা' এ শব্দ দিয়ে জুং ইয়াংকে মূল্যায়ন করেন। তিনি বলেন, গবেষণা ও শিক্ষায় সারা জীবন উত্সর্গ করেছেন অধ্যাপক জুং ইয়াং। আমাদের দেশ ও তিব্বতের জন্য আশার বীজ চাষ করেছেন তিনি। হঠাৎ করে উনি আমাদেরকে ছেড়ে গেছেন তবে উনি আমাদের জন্য অনেক বেশি দিয়ে গেছেন। উনি একবার বলেছেন, যারা শ্রেষ্ঠ হন তাদের স্বপ্ন দেখেন তা নয় বরং যারা স্বপ্ন দেখেন তাঁরা শ্রেষ্ঠ মানুষ। উনি যেমন বলেন তেমনটাই করেন। জুং ইয়াং জীবনের সর্বোচ্চ এক স্থানে পৌঁছেছিলেন।

(শিশির/মহসীন)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040