Web bengali.cri.cn   
সংবাদ পর্যালোচনা: চীনের সংবিধান সংশোধনের খসড়া দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে পাস
  2018-03-12 15:52:12  cri

মার্চ ১২: বেইজিংয়ে চীনের ত্রয়োদশ জাতীয় গণকংগ্রেসের প্রথম অধিবেশন চলছে। অধিবেশনে গতকাল (রোববার) বিকেলে তৃতীয় পূর্ণাঙ্গ সভার আয়োজন করা হয়। এতে চীনের সংবিধান সংশোধনের খসড়া প্রস্তাব উত্থাপন করা হয় এবং তা দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে পাস হয়। ১৪ বছর পর চীনের রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের মূল নীতিমালা হিসেবে সংবিধানের নতুন কিছু বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। চীনের জাতীয় গণকংগ্রেসের স্থায়ী কমিটির আইনবিষয়ক মহাপরিচালক শেন ছুন ইয়াও সভার পর এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, সংবিধান সংশোধন চীনের রাষ্ট্রীয় রাজনৈতিক কার্যক্রমের গুরুত্বপূর্ণ কাজ এবং নতুন যুগে চীনের বৈশিষ্ট্যময় সমাজতন্ত্রের পরিপ্রেক্ষিতে চীনের আইনানুগ ব্যবস্থার অনেক বড় সাফল্য। সংবিধান সংশোধন সংক্রান্ত প্রস্তাব পাস হলে তা সিপিসি ও দেশের উন্নয়ন এগিয়ে নেবে এবং চীনের সমাজতান্ত্রিক আইন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় সহায়ক হবে।

চীনের ত্রয়োদশ জাতীয় গণকংগ্রেসের প্রথম অধিবেশনের তৃতীয় পূর্ণাঙ্গ সভায় ২৯৬৪ জন প্রতিনিধি সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাবে ভোট দেন। প্রস্তাবের পক্ষে ২৯৫৮টি ও বিপক্ষে ২টি ভোট পড়ে এবং ভোটদানে বিরত থাকে ৩ জন।

ত্রয়োদশ জাতীয় গণকংগ্রেসের প্রথম অধিবেশনের প্রস্তাব পাসের নীতিমালা অনুযায়ী কমপক্ষে দুই-তৃতীয়াংশ ভোট পেলে প্রস্তাব গৃহীত হয়। এদিন ত্রয়োদশ জাতীয় গণকংগ্রেসের প্রথম অধিবেশনের সভাপতিমণ্ডলী প্রস্তাব বাস্তবায়নের ঘোষণা দেন।

পূর্ণাঙ্গ সভার পর এক প্রেস ব্রিফিংয়ে চীনের জাতীয় গণকংগ্রেসের স্থায়ী কমিটির আইনবিষয়ক মহাপরিচালক শেন ছুন ইয়াও বলেন, এবার সংবিধান সংশোধনসংক্রান্ত প্রস্তাবের ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মাধ্যমে সিপিসি'র ঊনবিংশ জাতীয় কংগ্রেসে নির্ধারিত গুরুত্বপূর্ণ সত্তা ও চিন্তাধারা দেশের মৌলিক নীতিতে অন্তর্ভুক্ত হলো। তাতে সিপিসি ও চীন দেশের নতুন সাফল্য, অভিজ্ঞতা ও নতুন কার্যক্রম প্রতিফলিত হয়েছে। এর ফলে সংবিধানের স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

সংবিধান সংশোধন-সংক্রান্ত প্রস্তাবে ২১টি ধারা রয়েছে। এতে সি চিন পিংয়ের নতুন যুগে চীনের বৈশিষ্ট্যময় সমাজতন্ত্র-সংক্রান্ত চিন্তাধারা চীনের রাজনীতি ও সমাজের দিক-নির্দেশনা নির্ধারিত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে শেন ছুন ইয়াং বলেন, সংবিধানে রাষ্ট্র পরিচালনার চিন্তাধারা অন্তর্ভুক্ত করা চীনের সংবিধানের একটি বৈশিষ্ট্য। তিনি বলেন,

"সি চিন পিংয়ের নতুন যুগে চীনের বৈশিষ্ট্যময় সমাজতান্ত্রিক চিন্তাধারা চীনে মার্কসবাদের অগ্রগতি এবং সিপিসি ও চীনা জনগণের দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা ও মেধার ফসল। পাশাপাশি এটি সিপিসি'র অষ্টাদশ জাতীয় কংগ্রেসের পর সিপিসি ও দেশে ঐতিহাসিক সাফল্য অর্জনের মূল কারণ। তাই দেশ পরিচালনায় এ চিন্তাধারাকে সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

সংবিধানে প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট টানা দুইবারের বেশি নির্বাচিত না হওয়ার নিয়ম বাতিল করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে শেন ছুন ইয়াও বলেন, এই সংশোধন দেশের প্রশাসনিক ব্যবস্থার পাশাপাশি সিপিসি ও রাষ্ট্রের টেকসই উন্নয়নের জন্যও সহায়ক।

তিনি বলেন, "সিপিসি'র শীর্ষনেতা, পার্টি ও দেশের সামরিক বাহিনীর শীর্ষনেতা এবং চীনের গণমুক্তি ফৌজের শীর্ষনেতা ও রাষ্ট্রপ্রধান এ তিনটি অবস্থান একীকরণ করা সিপিসি'র মতো বড় পার্টি ও চীনের মতো বড় দেশের জন্য প্রয়োজন এবং কল্যাণকর। সংবিধানের ৭৯ নম্বর ধারাকে নতুনভাবে বিন্যাস করা হয়েছে, যা দেশের প্রশাসনিক বিন্যাসে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এ পদক্ষেপ সিপিসি ও রাষ্ট্রের টেকসই উন্নয়নের জন্যও কল্যাণকর হবে।

উল্লেখ্য, সংবিধান সংশোধনের নতুন প্রস্তাবে ২১টি ধারার মধ্যে ১১টি তদারক কমিশনসংক্রান্ত। চীনের জাতীয় গণকংগ্রেসের স্থায়ী কমিটির আইনবিষয়ক উপ-মহাপরিচালক চেং শুনা বলেন, তদারক কমিশনের ধারা সংশোধন করার মাধ্যমে চীনের দুর্নীতিদমনের কাজ জোরদার হবে।

(রুবি/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040