Web bengali.cri.cn   
ভালবাসার অ্যান্টিবডি
  2018-01-13 16:48:01  cri



মুক্তা: বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানের প্রথমে আমি আপনাদেরকে 'ভালবাসার অ্যান্টিবডি' নামের গান শোনাবো। গানটি গেয়েছেন স্যু হুই সিন।

স্যু হুই সিন একজন কণ্ঠশিল্পী ও অভিনেত্রী। আগের অনুষ্ঠানে আমি আপনাদেরকে তার সঙ্গে পরিচয় করে দিয়েছিলাম। আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে। 'ভালবাসার অ্যান্টিবডি' নামের গানটি ২০০২ সালের পয়লা ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত হয়।

তৌহিদ: এ গানে বলা হয়েছে, আমি জানি না, আজ কী বার। আজকের আবহাওয়া খারাপ। হঠাত্ তোমার কথা মনে পড়ে। বই পড়ি, পিয়ানো বাজাই। কিছু ইমেইলের জবাব দেই। আমি সাবওয়েতে চড়ে শহর অতিক্রম করি। কিন্তু কোনো গন্তব্য নেই। আমাদের ঘটনাগুলো জলীয় বাষ্পের মত উড়ে গেছে। আমি তোমাকে ছেড়ে যাবো। কোন কারণ নেই। ভালবাসা কোন কোন সময় নষ্টামি। আমি নিজে অ্যান্টিবডি নিয়ে যাবো। আমি ভুলে যাওয়া শিখবো। আমি সাহসী হবো। ভালবাসা সুন্দর, তবে নির্দয়। আমি স্মৃতি থেকে মুক্তি চাই। আমি তোমাকে ছেড়ে যাবো।

আচ্ছা, বন্ধুরা, চলুন গানটি শুনি।

(গান ১)

মুক্তা: বন্ধুরা, শুনছিলেন 'ভালবাসার অ্যান্টিবডি' গানটি। এখন আমি আপনাদেরকে 'বিদায় শৈশব' গানটি শোনাবো। গেয়েছে চীনের তাইওয়ানের ব্যান্ড নানছুয়ানমামা। আগের অনুষ্ঠানে আমি এ ব্যান্ড দল সম্পর্কে কথা বলেছিলাম। মনে আছে কি? 'বিদায় শৈশব' গানটি ২০০৮ সালের ২৫ জুলাই প্রকাশিত হয়।

তৌহিদ: 'বিদায় শৈশব' গানের কথাগুলো এমন,

কোন এক দিন ছবি অ্যালবামে দেখি, ভেতরে লেখা আছে, প্রিয় সন্তানের জন্য। ছবির আমি কিন্ডারগার্টেনের শিশু। আরেকটি ছবিতে মা কে দেখেছি হাসতে। আমি হঠাত্ বুঝতে পারি, সময় কত দ্রুত চলে গেছে।

ছবি অ্যালবাম রেখে জানালা দিয়ে দূরে তাকিয়ে থাকি। আমার দু'চোখ ঝাপসা হয়ে ওঠে। আমি আস্তে আস্তে সাহসী হয়েছি। সহপাঠী মেয়েকে পছন্দ করেছি। কিন্তু সে আমাকে পছন্দ করেনি। বিদায় শৈশব। তখন অজ্ঞ ছিলাম। এখন পরিণত!

সময় চলে গেছে ধীরে ধীরে। অস্পষ্ট স্বপ্ন পরিণত হয়েছে। পুরাতন ফ্রেমে ভবিষ্যতের পদধ্বনি শোনা যায়।

আচ্ছা, বন্ধুরা, চলুন গানটি শুনি।

(গান ২)

মুক্তা: বন্ধুরা, শুনছিলেন 'বিদায় শৈশব' নামের গান। এখন আমি আপনাদেরকে 'এত কাছাকাছি, এত দূর' নামের গান শোনাবো। গেয়েছেন চাং লিয়াং ইং। চাং লিয়াং ইং একজন কণ্ঠশিল্পী, সুরকার, লেখক ও চীনা জাতীয় যুব ফেডারেশনের সদস্য। আগের অনুষ্ঠানে আমি আপনাদেরকে চাং লিয়াং ইং'র সঙ্গে পরিচয় করে দিয়েছিলাম। 'এত কাছাকাছি, এত দূর' গানটি ২০১০ সালের ২ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত হয়।

তৌহিদ: 'এত কাছাকাছি, এত দূর' নামের গানে বলা হয়েছে, ছিয়ানথাং ত্যাগের তিন বছর পর প্রতি রাতে আমি ভাবি। প্রাচীন প্রাচীরের কাছে হাতাহাতি করি। আমি সেই রাতের বিশুদ্ধ বাতাসের ঘ্রাণ মনে রেখেছি, আমি মনে রেখেছি তোমার মুখ। কিন্তু এখন চোখ খুললে অন্ধকার দেখতে পাই। আমি তোমাকে মনে রাখতে পারি না। অনেক দরজা আমার সামনে খোলা রয়েছে। গানের প্রতিধ্বনি এখন শোনা যায় না। এত কাছাকাছি, কিন্তু এত দূর! আমি নিজের পথ খুঁজছি। বাস্তবতা ও স্বপ্ন মিশ্রিত হয়েছে! এটিই মাত্র আমার একমাত্র চিন্তা।

আচ্ছা, বন্ধুরা, চলুন গানটি শুনি।

(গান ৩)

মুক্তা: শুনছিলেন 'এত কাছাকাছি, এত দূর' নামের গানটি। এখন আমি আপনাদের কণ্ঠশিল্পী কোকো লি ওয়েনের পরিচয় তুলে ধরবো। কোকো লি ১৯৭৫ সালের ১৭ জানুয়ারি হংকংয়ে জন্মগ্রহণ করেন। ৯ বছর বয়সে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো পারি জমান। তিনি জন্মগ্রহণের আগে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান তার বাবা। যখন যুক্তরাষ্ট্রে যান, কোকো ভালোভাবে ইংরেজি বলতে পারতেন না। কিন্তু অনেক চেষ্টার পর তিনি মডেল শিক্ষার্থীর মর্যাদা লাভ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের চার বছরে তিনি শিক্ষার্থী সমিতির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯১ সালে তিনি তার বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে মিস টিয়ার ইউএসএ-এ অংশ নেন এবং চ্যাম্পিয়ন হন। ১৯৯২ সালে তিনি মার্কিন ক্যালিফোর্নিয়া সংগীত প্রতিযোগিতায় অংশ নেন এবং চ্যাম্পিয়ন হন। ১৯৯৩ সালে তিনি হংকংয়ে ফিরে এসে হংকংয়ের টেলিভিশন কেন্দ্রের সংগীত প্রতিযোগিতায় অংশ নেন এবং দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন। ১৯৯৩ সাল থেকে তিনি হংকংয়ে নিজের সংগীত নিয়ে কাজ শুরু করেন। ওই বছর তিনি দু'টি ক্যান্টোনিজ অ্যালবাম প্রকাশ করেন। ১৯৯৪ সালে তিনি চীনের তাইওয়ানে তার সংগীত নিয়ে কাজ শুরু করেন। একই বছর তিনি দ্বিতীয় অ্যালবাম প্রকাশ করেন। তার চারটি অ্যালবাম বিক্রির পরিমাণ দাঁড়ায় ৮ লাখ। ১৯৯৬ সালে তিনি আরেকটি অ্যালবাম প্রকাশ করেন। এ অ্যালবাম সারা চীনে বিক্রির পরিমাণ ৫ লাখ ৩০ হাজার। ১৯৯৮ সালে এশিয়ায় তার অ্যালবাম বিক্রি হয় ১৮ লাখেরও বেশি। ১৯৯৯ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সনি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেন এবং বিশ্বব্যাপী তার অ্যালবাম বিক্রির পরিমাণ দাঁড়ায় ২০ লাখেরও বেশি। ২০০১ সালে তিনি এশিয়ার প্রথম কণ্ঠশিল্পী হিসেবে হলিউডের পুরস্কার অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

আজকের অনুষ্ঠানে আমি আপনাদেরকে কোকো লি'র কণ্ঠে 'শ্রেষ্ঠ ভালবাসা' নামের গান শোনাবো।

তৌহিদ: 'শ্রেষ্ঠ ভালবাসা' গানটিতে বলা হয়েছে,

এ সৈকত স্মৃতিতে ভরপুর। প্রতিটি ধাপে তুমি-আমি মিলেমিশে আছি। স্মৃতিতে আমার মন ভরপুর। ভালোবাসা জলের ফোঁটার মতো প্রতিদিন, প্রতি মাসে আমার মনে প্রবেশ করে। যদিও তুমি আকাশে আমি মাটিতে, আমিও ভুলে যেতে চাই না। আমি তোমার জন্য আজীবন অপেক্ষা করতে চাই। আমি দুই চোখ বন্ধ করেও তোমার চেহারা দেখতে পারি। শ্রেষ্ঠ এ ভালবাসার পরিসমাপ্তি চাই না। সবচেয়ে সত্য হলো আমি তোমার সঙ্গে থাকতে চাই। তোমাকে হারাতে চাই না, তাই ভালবাসার মূল্যায়ন করি। আমি শান্ত মনে বৃষ্টিতে হেঁটে যাই! ভালবাসায় আমার কোনো ভয় নেই।

আচ্ছা, বন্ধুরা, চলুন গানটি শুনি।

(গান ৪)

‌মুক্তা: বন্ধুরা, শুনছিলেন 'শ্রেষ্ঠ ভালবাসা' শিরোনামের গানটি। আশা করি, গানটি সবাই পছন্দ করেছেন। শ্রোতাবন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানে আমরা আপনাদেরকে চারটি চীনা গান শুনিয়েছি। এখন শোনাবো কয়েকটি বাংলা গান। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

শিল্পী: সতীনাথ মুখপাধ্যায়

(বাংলা গান)

তৌহিদ: প্রিয় শ্রোতা, এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের সবাইকে জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ। যদি আমাদের অনুষ্ঠানে আপনারা কোনো পছন্দের গান শুনতে চান, তাহলে জানাবেন। আমাদের ই-মেইল ঠিকানা ben@cri.com.cn। আর আমার নিজস্ব ইমেইল ঠিকানা caiyue@cri.com.cn। 'গানের অনুরোধ' আমার নিজস্ব ই-মেইল ঠিকানায় পাঠালে ভালো হয়।

আজ তাহলে এ পর্যন্তই। আশা করি, আগামী সপ্তাহের একই দিন, একই সময়ে আবারো আপনাদের সঙ্গে কথা হবে। সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, আনন্দে থাকুন। চাই চিয়ান। (মুক্তা/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040