Web bengali.cri.cn   
নোটপ্যাডে
  2017-09-30 10:03:10  cri



বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানের শুরুতে আমি আপনাদেরকে 'সে ফুল' শিরোনামের গান শোনাবো। গেয়েছেন কন্ঠশিল্পী ফু শু। ফু শু আমার খুবই প্রিয় একজন কন্ঠশিল্পী। আগের অনুষ্ঠানে আমি ফু শুকে আপনাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলাম। মনে আছে? এখন আমি তাঁর 'সে ফুল' শিরোনামের গানের বর্ণনা দিব। ১৯৯৯ সালের জানুয়ারি মাসে গানটি বাজারে আসে। গানের কথা এরকম- 'ঘুড়িয়া বেড়াতে যাচ্ছি রাস্তায়, সে হাসির কন্ঠ শুনে আমি আগের ফুল চিন্তা করেছি। আমার জীবনের প্রতি কোণে সে ফুল আমার জন্য অপেক্ষা করছে। আমি আগে ভেবেছিলাম যে, আমি আজীবন তাঁর সঙ্গে থাকবো। কিন্তু এখন আমি তাঁকে ত্যাগ করে ফিরে গেছি। তাঁরা কি বয়স্ক হয়ে গেছে? তাঁরা এখন কোথায় আছে? আনন্দের বিষয় যে আমি তখন তাদের কাছে ছিলাম। তাঁর কথাই পড়ছি। সে এখনো সেখানে আছে কিনা? তাঁর কাছে যেতে চাই। তাঁরা বাতাসে বহুদূরে ছড়িয়ে থাকে। কোন কোন গান শেষ না করলে অব্যাহতভাবে গাইবো না। আগের ভাবনাগুলো সত্যি কিনা আমি ভুলে গেছি। শ্যামা ঘাসে এখন কোন ফুল নেই। আনন্দের বিষয় যে তোমার সাথে চার ঋতু কাটিয়েছি। তাঁরা কি বয়স্ক হয়ে গেছে? তাঁরা এখন কোথায়? আচ্ছা, বন্ধুরা, এখন আমরা একসঙ্গে গানটি শুনবো।

আচ্ছা, বন্ধুরা, শুনছিলেন 'সে ফুল' শিরোনামের গান। এখন আমি আপনাদেরকে লিন সিয়াও ফেই'র কন্ঠে 'মাথা ঘামানো' শিরোনামের গান শোনাবো। লি সিয়াও ফেই ১৯৭৩ সালের ৯ ডিসেম্বর চীনের তাইওয়ানের ফিংদং জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৯০ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত তিনি জাপানের নাগোয়ায় এক হোটেলে গান গেয়েছিলেন। ১৯৯৭ সালে তিনি একটি ব্যান্ডের প্রধান গায়ক হোন। ১৯৯৮ সালে তিনি নিজের প্রথম অ্যালবাম প্রকাশ করেন। এ বছরে তিনি এ অ্যালবাম দিয়ে তাইওয়ানের গোল্ডেন মেলোডি পুরস্কার লাভ করেন। 'মাথা ঘামানো' নামের গানটি এ অ্যালবামের অন্তর্ভুক্ত। ২০০৪ সাল পর্যন্ত তিনি বেশ কয়েকটি অ্যালবাম প্রকাশ করেন অনেকগুলো পুরস্কার লাভ করেন। কিন্তু ২০০৪ সালে তিনি দ্বিমেরু ব্যাধি রোগে আক্রান্ত হন। এর পর তিনি কয়েক বছর ধরে অ্যালবামের কাজ করতে পারেননি। ২০০৮ সালে তিনি পুনরায় বিনোদন জগতে ফিরে আসেন এবং সঙ্গীতানুষ্ঠানে অংশ নেন। 'মাথা ঘামানো' শিরোনামের গানের কথা এমন, আমি যখন তোমাকে দেখেছি, তখন থেকে আমি খেতে পারি না, ঘুমতে পারি না। কারণ আমি যে ধরণের মেয়ে, তাকে তুমি পছন্দ করো না। যে মেয়ে তোমার পছন্দের, আমি তাঁর মত নিজেকে পরিবর্তন করতে চাই না। কিন্তু আমার ভয় লাগে, তুমি না থাকলে আমার দুঃখ লাগবে। তোমার প্রতি দাবি আমার জন্য খুবই নিষ্ঠুর। তোমাকে দেখলে আমার হৃদকম্পন খুবই দ্রুত হয়। তুমি জানো যে, আমি সে ধরণের মেয়ে না। আমি নিজেকে পরিবর্তন করতে চাই না। মাথা ঘামানো, মাথা ঘামানো। তুমি বলেছো যে, আমাকে ভালবাসো। কিন্তু আমার জুতাকে পছন্দ করো না। তুমি বলেছো যে, আমাকে ভালবাসো না, কারণ আমার মুখকে পছন্দ করো না। আমি বলেছি, আমি পারফিউম ও গোলাপি রঙ পছন্দ করি, আমি ঠিক এ ধরণেরই মেয়ে। কিন্তু এ সব কিছু তুমি পছন্দ করো না। মাথা ঘামানো, মাথা ঘামানো। আমি শ্বাস নিতে পারি না। মাথা ঘামাতে আমার আর কোন শক্তি নেই। মাথা ঘামায় আমি কিছু বিশ্বাস করি না, মাথা ঘামায় আমার হিস্টরিয়া হয়েছে। মাথা ঘামানো। আচ্ছা, বন্ধুরা, এখন আমরা একসঙ্গে গানটি শুনবো।

বন্ধুরা, শুনছিলেন 'মাথা ঘামানো' শিরোনামের গান। এখন আমি আপনাদেরকে লি চিয়ান'র কন্ঠে 'আকুল আকাঙ্ক্ষা' নামের গান শোনাবো। লি চিয়ান একজন কন্ঠশিল্পী ও সংগীত প্রযোজক। তিনি চীনে সংগীত কবি বলে পরিচিত। কারণ তাঁর লেখা গানের কথা কবিতার মত সুন্দর। আগের অনুষ্ঠানে আমি লি চিয়ানকে আপনাদের সাথে পরিচয় করে দিয়েছিলাম। এখন 'আকুল আকাঙ্ক্ষা' গানের কথা বলে দিবো। আমি জানি যে, সকল পাখি উড়তে পারে না। গ্রীষ্মকাল চলে গেছে, কোন কোন ফুল ফুটে নি। আমার ভয় লাগে যে, তুমি একা হয়ে নিরাশ হও। আমার আরো ভয় লাগে যে, তোমার সঙ্গে না থাকলে তোমার দুঃখ অনুভূব করতে পারি না। আমার ইচ্ছা আছে যে, তুমি আমার সঙ্গে ভাগ্যের পরিবর্তন দেখতে পারবে এবং এ নীরব ধৈর্য শক্তি অনুভব করতে পারবে। যখন বসন্তকালের বাতাস পাহাড়ে এসেছে, তখন আরো ঠান্ডা লাগে আমার। কিন্তু আমার গরমের আকাঙ্ক্ষা বাধা দেয়া হবে না। আমি জানি যে, চাষ করা হয়েছে কিন্তু ফসল হয়ত হবে না। যখন অশ্রু প্রবাহিত শুষ্ক হবে, তখন জীবন আগের মত দূর্বল। কত নিষ্ঠুর, তুমি আর আমি, উল্কার মত দ্রুতভাবে চলে গেছি। কিন্তু কত টকটকে, অন্ধকারে সবচেয়ে সুন্দর বাজির মত। সেজন্য কিভাবে আমার গরমের আকাঙ্ক্ষা বন্ধ হয়ে যায়? আচ্ছা, বন্ধুরা, এখন আমরা একসঙ্গে এ সুন্দর গানটি শুনবো।  

বন্ধুরা, শুনছিলেন লি চিয়ান'র কন্ঠে 'আকুল আকাঙ্ক্ষা' শিরোনামের গান। এখন আমি আপনাদেরকে 'নোটপ্যাড' শিরোনামের একটি গান শোনাবো। গেয়েছেন ছেন হুই লিন। তিনি ১৯৭৩ সালের ১৩ সেপ্টেম্বরে চীনের হংকংয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন কন্ঠশিল্পী ও অভিনেত্রী। তিনি নিউইয়র্কের পার্সনস স্কুল অব ডিজাইন এট দ্যা নিউ স্কুল থেকে স্নাতক হন। ১৯৯৪ সালের গ্রীষ্মকালীন ছুটিতে তিনি নিউইয়র্ক থেকে হংকংয়ে ফিরে এসে দু'টি বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেন। এরপর তিনি অন্য কন্ঠশিল্পীর মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করেন। ১৯৯৫ সালে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে সংগীত জগতে প্রবেশ করেন। এ বছর তিনি টানা দু'টি অ্যালবাম প্রকাশ করেন। ১৯৯৬ সালে তিনি টানা চারটি অ্যালবাম প্রকাশ করেন। এরপর প্রতি বছর তিনি কয়েকটি করে অ্যালবাম প্রকাশ করেন। ২০০৪ সালে তিনি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। তিনি সংগীত ও চলচ্চিত্রে বেশি পুরস্কার লাভ করেন। 'নোটপ্যাড' গানের কথা এরকম, নোটপ্যাড খুলি। ভেতরে অধিকাংশই তোমার কথা। তুমি বিচ্ছেদ ঘৃণা করো। তোমার যখন একীকা লাগে, তখন আমার কথা মনে করবে। আমি নিজের লেখা অনুভব করেছি, আমি এত অবনমিত। তোমাকে এত দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করিয়েছিলাম। তোমার কথা মনে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে অশ্রু ঝরে পড়ে। তাহলে সুখ ও আনন্দ হল কি? ভালবাসলে দুঃখ লাগে। দুঃখ থেকে কান্না করি। কান্নায় ক্লান্ত লাগে। আমার নোটপ্যাডে তোমার জন্য ভাল লেখা হয়। আমার জন্য তুমি বিষের মত। ডায়েরি আগুনে পুড়িয়ে নতুন জীবন শুরু করতে চাই। আচ্ছা, বন্ধুরা, এখন আমরা একসঙ্গে গানটি শুনবো।

বন্ধুরা, শুনছিলেন 'নোটপ্যাডে' শিরোনামের একটি গান। আশা করি, গানটি সবাই পছন্দ করেছেন। শ্রোতাবন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠানে আমরা আপনাদেরকে চারটি চীনা ভাষার গান শুনিয়েছি। এখন শোনাবো কয়েকটি বাংলা গান। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

প্রিয় শ্রোতা, এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের সবাইকে জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ। যদি আমাদের অনুষ্ঠানে আপনার কোনো পছন্দের গান শুনতে চান, তাহলে জানাবেন। আমাদের ই-মেইল ঠিকানা ben@cri.com.cn। আর আমার নিজস্ব ইমেইল ঠিকানা caiyue@cri.com.cn।গানের অনুরোধ' আমার নিজস্ব ঠিকানায় পাঠালে সুবিধে হবে।

আজ তাহলে এ পর্যন্তই। আশা করি, আগামী সপ্তাহের একই দিন, একই সময়ে আবারো আপনাদের সঙ্গ পাব। সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, আনন্দে থাকুন। চাই চিয়ান।

(ছাই/ মহসীন)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040