Web bengali.cri.cn   
হ্যালো চায়না: ৯৩. দ্বন্দ্ব (বর্শা ও ঢাল)
  2017-09-29 18:32:18  cri


প্রাচীনকালে চীনের যুদ্ধক্ষেত্রে বর্শা (মাও) ও ঢাল (তুন) ছিল দু'টি প্রয়োজনীয় অস্ত্র। 'মাও' বা বর্শা হলো লম্বা কাঠের এক পাশে স্থাপিত ব্রোঞ্জ বা লোহার ধারালো ফলা। সেনারা এ বর্শা দিয়ে শত্রুর ওপর আঘাত হানে। আর 'তুন' বা ঢাল হলো হাত দিয়ে আঘাত প্রতিরোধক ব্যবস্থা। সম্মুখ যুদ্ধে সেনারা 'তুন' দিয়ে নিজেকে আঘাত থেকে রক্ষা করে। তাই বর্শা ও ঢাল হলো সবচেয়ে ভালো অংশীদার। তবে, চীনা ভাষায় 'মাও' আর 'তুন' একসঙ্গে মিলে নতুন একটি শব্দ সৃষ্টি করে। এর অর্থ পারস্পরিক আস্থা বা নির্ভরতা নয়। বরং এ শব্দ দিয়ে পারস্পরিক বিরোধ ও দ্বন্দ্ব বোঝায়।

অতীতে ছু রাজ্যের এক লোক বর্শা ও ঢাল বিক্রি করছিল। একদিন বাজারে বর্শা ও ঢাল বিক্রির সময় তার ঢাল দেখিয়ে বলল, আমার ঢাল অনেক ভালো, কোনো ধারালো জিনিস তা বিদীর্ণ করতে পারবে না। এ কথা বলে তার ঢাল পাশে রেখে দিয়ে বর্শা দেখিয়ে বলল, আমার এ বর্শা অতুলনীয় ধারালো। যে কোনো শক্ত বস্তুকেই তা বিদীর্ণ করতে পারে। কথা শেষে সে অহংকার করে হাসছিল। তখন বাজারের এক লোক হাসি মাখা কণ্ঠে তাকে জিজ্ঞেস করলো, 'যদি তোমার বর্শা তোমার ঢালকে আঘাত করে তাহলে কী হবে?'

জবাবে ব্যবসায়ী কোনো সদুত্তর দিতে পারলো না।

যে কোন ধারালো জিনিস প্রতিরোধক ঢাল এবং যে কোনো কিছু বিদীর্ণ করতে পারার মতো বর্শা একই সঙ্গে অসম্ভব ও অবাস্তব ব্যাপার। ব্যবসায়ী নিজের বর্শা ও ঢালের বড়াই করতে গিয়ে পরস্পর বিরোধী কৌতুকের জন্ম দিয়েছে। পরবর্তীতে 'পরস্পর বিরোধী' কোন কথা বা কাজের বর্ণনা দেয়ার জন্য 'মাও তুন' শব্দটির ব্যবহার শুরু হয়। এ শব্দ দিয়ে দুটি বস্তুর মধ্যে বৈরি সম্পর্ক বা দ্বন্দ্ব বোঝায়।

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040