Web bengali.cri.cn   
চীন ও পূর্ব-আফ্রিকার গবেষকদের দু'পক্ষের প্রাচীন এবং আধুনিক যোগাযোগ আলোচনা
  2017-08-15 09:55:27  cri
সুপ্রিয় বন্ধুরা, আপনারা শুনছেন চীন আন্তর্জাতিক বেতার থেকে প্রচারিত বাংলা অনুষ্ঠান 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি'। আর এ অনুষ্ঠানে আপনাদের সঙ্গে আছি আমি আপনাদের বন্ধু ওয়াং ছুই ইয়াং জিনিয়া।

প্রথমেই চীনের 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস' শিল্পের উন্নয়ন বিষয়ক প্রথম বারের মত আয়োজিত ফোরাম সংক্রান্ত একটি সাংস্কৃতিক প্রতিবেদন শুনবো।

গত মাসের শেষ দিকে চীনের 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস'শিল্পের উন্নয়ন বিষয়ক ফোরাম প্রথম বারের মত চীনের তুং হুয়াং আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়।

তুং হুয়াং সাংস্কৃতিক মেলার অংশ হিসেবে এবারের ফোরামে প্রথমবারের মত 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস'এ নতুন আন্ত-সীমান্ত সহযোগিতা ব্যবস্থা বিষয় উত্থাপিত হয়। ফোরামে গভীরভাবে সংখ্যালঘু অঞ্চলের নিজস্ব পর্যটন উন্নয়ন এগিয়ে নিতে 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস' এর ভূমিকা, সংখ্যালঘু জাতির পর্যটনের প্রতিযোগিতামূলক শক্তি উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। তাছাড়া ফোরামে 'সঙ্গীত পর্যটন আন্তর্জাতিক শিল্প ইউনিয়ন' আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে। এ ইউনিয়নের প্রধান লক্ষ্য হলো সঙ্গীত পর্যটনের সংশ্লিষ্ট শিল্পের আন্ত-সীমান্ত সহযোগিতা, পারস্পরিক কল্যাণকর শিল্প শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা। যাতে 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস'এ নতুন শিল্পের ধারা বাস্তবায়িত করা যায়।

তুন হুয়াং, বিশ্বের সাংস্কৃতিক সংযোগস্থল এবং অবৈষয়িক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষিত এলাকা হিসেবে দেশের 'এক অঞ্চল, এক পথ' নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান রয়েছে। তুন হুয়াং শহরের ভাইস মেয়র সুং চি মিন ফোরামে দেওয়া এক ভাষণে বলেছেন, 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস' শিল্প উন্নয়ন ফোরাম হলো গুরুত্বপূর্ণ একটি সাংস্কৃতিক সেতু। তা প্রাচীন তুন হুয়াংয়ের সঙ্গীত শিল্প ও আধুনিক সঙ্গীত সংস্কৃতির মধ্যে সেতু প্রতিষ্ঠা করেছে।

এবারের ফোরামে চীন ও বিদেশের অনেক সঙ্গীত, পর্যটন ও মিডিয়া অঙ্গনের অনেক বিখ্যাত ব্যক্তি ও বিশেষজ্ঞ অংশ নিয়েছেন। তাঁরা তুন হুয়াংয়ে সঙ্গীত-ভ্রমণ শিল্পের উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করেন। প্রথম 'তুন হুয়াং সাংস্কৃতিক মেলার আন্তর্জাতিক আইডিয়াল ফেস্টিভাল এর প্রধান পরিচালক লি তুং ফোরামে দেওয়া এক ভাষণে বলেন, ঐতিহ্যবাহী পর্যটন মডেল পুরনো হয়ে গেছে। 'খোলা জায়গায় টিকিট ও পর্যটন সেবা' পদ্ধতি 'লাইভ সঙ্গীত পারফরম্যান্স' ও বহুমাত্রিক উপাদান সমৃদ্ধ পর্যটন' এ আন্ত সীমানা পদ্ধতি এর স্থলাভিষিক্ত হবে।

জানা গেছে, চিউ ছুয়ান ও তুন হুয়াং নগর কর্তৃপক্ষ, চীনের পর্যটন বিষয়ক পত্রিকা, কান স্যু প্রদেশের বিনিয়োগ কোম্পানি, চীনের যুব শিল্প আন্তর্জাতিক বিনিময় কেন্দ্র এবং জাতীয় সাংস্কৃতিক ও প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন পরিসেবা জোটের উদ্যোগে প্রথম বারের মত চীনের মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস'ফোরাম আয়োজিত হয়।

বন্ধুরা 'মিউজিক ট্র্যাভেল প্লাস' ফোরাম নিয়ে সাংস্কৃতিক প্রতিবেদনটি শুনলেন।

এবারে শুনুন 'চীন ও পূর্ব-আফ্রিকার গবেষকদের দু'পক্ষের প্রাচীন এবং আধুনিক যোগাযোগ আলোচনা' শিরোনামে একটি সাংস্কৃতিক প্রবন্ধ।

জুলাই মাসের শেষ দিকে চীন ও পূর্ব-আফ্রিকার প্রাচীন এবং আধুনিক যোগাযোগ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেনিয়ার পূর্বাঞ্চলের লামু দ্বীপপুঞ্জের মান্দা দ্বীপে অনুষ্ঠিত হয়েছে। চীনের সান ইয়াৎ-সেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিদ্যা এবং নৃতত্ত্ব কলেজ এবং কেনিয়ার জাতীয় জাদুঘরের যৌথ উদ্যোগে এবারের একাডেমিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধানত প্রত্নতত্ত্ব, সমাজবিদ্যা এবং নৃতত্ত্ব দৃষ্টিকোণ থেকে চীন ও পূর্ব-আফ্রিকার প্রাচীন এবং আধুনিক যোগাযোগ নিয়ে আলোচিত হয়। বিস্তারিত তথ্য শুনবেন সিআরআই'র প্রতিবেদনে।

চীন, কেনিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও তান্জানিয়াসহ বিভিন্ন দেশের প্রত্নতত্ত্ব, সমাজবিদ্যা ও সাংস্কৃতিক হেরিটেজ রক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের গবেষকরা সামুদ্রিক রেশম পথসহ চীন ও পূর্ব-আফ্রিকার মধ্যে প্রাচীন এবং আধুনিক যোগাযোগ সম্পর্ক ও সহযোগিতাসহ বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেছেন। মান্দা দ্বীপে চীনা বংশদ্ভুত হাড় অবশেষ থাকার সম্ভাবনা তুলে ধরেন তাঁরা। এর সাথে চীনে বিখ্যাত জেং হেজ অভিযাত্রার হাড় অবশেষের সম্পর্ক রয়েছে। সেগুলো সম্পর্কিত গবেষণা এবং চীন-কেনিয়া জনগণের বিনিময়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রেও প্রস্তাব দিয়েছেন শিক্ষাবিদরা। চীনের সান ইয়াৎ-সেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিদ্যা এবং নৃতত্ত্ব কলেজের সহযোগী অধ্যাপক চু থিয়ে ছুয়ান বলেন,

"আমাদের কলেজ ও কেনিয়ার সঙ্গে দীর্ঘ মেয়াদী সহযোগিতা আছে। তাছাড়া গত দু'বছরে নতুন প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কারের ওপর এবারের সম্মেলন আয়োজিত হয়েছে। 'এক অঞ্চল, এক পথ' উদ্যোগের কারণে আমাদের যেকোন প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণার ফলাফলের গুরুত্ব আছে। অন্যদিকে আমরাও আশা করি আরো সমাজবিদ্যা এবং নৃতত্ত্ব ক্ষেত্রের গবেষকরা আফ্রিকার ওপর আরো গুরুত্ব দেবে। প্রাচীন বা আধুনিক আফ্রিকা এবং চীন-আফ্রিকা সংশ্লিষ্ট যোগাযোগ বিষয়ক গবেষণা।"

জানা গেছে, চীনের মিং রাজবংশের ইয়ং লে সময়কালে (খ্রিস্টপূর্ব ১৪৩০ সাল) বিখ্যাত নৌপরিব্রাজক, কূটনীতিক জেং হে'র নেতৃত্বতে তাঁর জাহাজ বহর তখনকার পূর্ব-আফ্রিকার ভারত মহাসাগরীয় উপকূলের কেনিয়ার মালিঙ্গি ও মোম্বাসাসহ বিভিন্ন জায়গায় পৌছে গিয়েছিল। মালিঙ্গির উত্তর দিকে এক'শ কিলোমিটার দূরের লামু দ্বীপপুঞ্জ সম্পর্কিত প্রত্নতাত্ত্বিক কাজে চীনের মিং রাজবংশের অনেক মুদ্রা এবং চীনামাটির পাত্র পাওয়া গেছে। তাছাড়া চীনা মানুষের হাড় অবশেষও সন্ধান পাওয়া গেছে। লামু দ্বীপপুঞ্জের কাছে পাট দ্বীপে কোন কোন গ্রামবাসী বলেন যে তাঁরা জেং হে'র বংশধর। এ গ্রামে অনেক জেং হে'র বাণিজ্য জাহাজ বহর সংশ্লিষ্ট কিংবদন্তীও রয়েছে।

চীন ও পূর্ব-আফ্রিকা প্রাচীন ও আধুনিক যোগাযোগ বিয়ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের বৈদেশিক সংগঠক ও কেনিয়া- আমেরিকান নৃবিজ্ঞানী চ্যাপ কিসিমবা সম্মেলনকালে জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও কেনিয়ার বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত একটি যৌথ প্রত্নতাত্ত্বিক দল মান্দা দ্বীপে ৩টি চীনা রক্তের মানব অবশিষ্টাংশ আবিষ্কার করেছে। এতে একজন জেং হে'র যুগের হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিসিমবা বলেন,

"২০১২ সালে আমরা মান্দা দ্বীপে এক নৃতত্ত্ব কর্মশিবির শুরু করি। কাজের প্রক্রিয়ায় আমরা ৪টি প্রাচীন সমাধি খুঁজে পাই। এতে ১০টি মানব অবশিষ্টাংশ পাওয়া গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সহকর্মীদের সঙ্গে গবেষণা ও আলোচনার পর আমরা মনে করি যে, এর মধ্যে ৩টি হলো পূর্ব-এশিয় মানব অবশিষ্টাংশ। আর এ তিন জনের মধ্যে একজন মিং রাজবংশকালে নিহত হয়ে থাকতে পারেন।"

চীন ও পূর্ব-আফ্রিকার প্রাচীন ও আধুনিক যোগাযোগ বিষয়ক গবেষণা ছাড়াও এবারের সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী গবেষকরা চীন-আফ্রিকা সাংস্কৃতিক ঐতিয্য রক্ষায় সহযোগিতা বিষয়ে আলোচনা করেছেন।

প্রিয় শ্রোতা, আজকের অনুষ্ঠান আপনাদের কেমন লাগলো? আপনারা যদি 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' বিষয়ক কোনো কিছু জানতে বা আলোচনা করতে চান, তাহলে আমাকে চিঠি লিখবেন বা ই-মেইল করবেন। আপনাদের কাছ থেকে চমত্কার পরামর্শ আশা করছি। আর আপনাদের জানিয়ে রাখি, আমার ইমেইল ঠিকানা হলো, hawaiicoffee@163.com

চিঠিতে প্রথমে লিখবেন, 'সাহিত্য ও সংস্কৃতি' অনুষ্ঠানের 'প্রস্তাব বা মতামত'। আপনাদের চিঠির অপেক্ষায় রইলাম।

বন্ধুরা, আজকের অনুষ্ঠান এখানেই শেষ করছি। সঙ্গে থাকার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আগামী সপ্তাহে একই দিন, একই সময়ে আপনাদের সঙ্গে আবারো কথা হবে। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। চাইচিয়ান

(জিনিয়া/মহসীন)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040