Web bengali.cri.cn   
সুর ও বাণী: তৃণভূমির গান
  2017-01-22 19:32:04  cri


প্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা, আপনারা চীন আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলা অনুষ্ঠান শুনছেন। আমি আনন্দী বেইজিং থেকে আপনাদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আজকের সুর ও বাণী আসরে তৃণভূমি সম্পর্কে কিছু গান আপনাদের শোনাব এবং চীনের প্রধান তৃণভূমিগুলোর মৌলিক কিছু তথ্য জানিয়ে দেবো।

বন্ধুরা, আপনারা শুনছেন 'হুলুনবের তৃণভূমি' নামের গান। তিব্বতি গায়িকা চিয়াং ইয়াংজোমা এ গানটি গেয়েছেন। তিনি গেয়েছেন, 'আমার প্রিয় আকাশের সীমানা আছে। সেখানে আছে বিশাল তৃণভূমি। আছে প্রিয় উঁচু পাহাড়। আর আছে উঁচু পাহাড়ের গভীরে সোনালী দাসিংআনলিং পর্বত। হুলুনবের তৃণভূমির শুভ্র মেঘের কথা আমার মনে আছে।'

বন্ধুরা, হুলুনবের তৃণভূমি চীনের দাসিংআনলিং পর্বতের পশ্চিমে অবস্থিত। সেখানকার হুলুন হ্রদ ও বের হ্রদের জন্য হুলুনবের তৃণভূমির নামকরণ হয়েছে। এ অঞ্চল সমুদ্রপৃষ্ঠ ৬৫০ থেকে ৭০০ মিটার উঁচু। হুলুনবের তৃণভূমি হলো বিশ্বখ্যাত প্রাকৃতিক চারণভূমি। এর মোট আয়তন প্রায় ১ লাখ বর্গকিলোমিটার। এটি বিশ্বের তিনটি বিখ্যাত তৃণভূমির মধ্যে অন্যতম। এ এলাকায় তিন হাজারেরও বেশি নদ-নদী ও পাঁচশ'রও বেশি হ্রদ আছে। এখানকার 'ঘাস রাজ্যে'র সুনাম জগতজোড়া।

হুলুনবের তৃণভূমি যেন সুন্দর বাগান! সেখানে চারটি ঋতু সুস্পষ্ট বোঝা যায়। এ অঞ্চলের বার্ষিক গড় তাপমাত্রা প্রায় শূন্য ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড, তুষারহীন সময় বছরে ৮৫ থেকে ১৫৫ দিন। এ তৃণভূমিতে বসন্তকালে গম, আলু আর অল্প কিছু সবজি চাষ হয়।

বন্ধুরা, এখন আপনারা শুনছেন মঙ্গোলীয় জাতির গায়ক বুরেনবায়ারের গাওয়া 'আকাশের সীমানায়' গানটি। তিনি গেয়েছেন, 'আকাশের সীমানায় তারা আছে, সেটা স্বপ্ন-চোখের মতো। পাহাড়-চূড়ায় ভোরের কুয়াশা আছে, যা তোমার গতরাতের স্নেহের মতো। আমি পাহাড়-চূড়ায় গিয়ে কুয়াশার মধ্যে তোমাকে খুঁজতে চাই। আমি ঘোড়ায় চড়ে সুদূর তারা খুঁজতে চাই। আমি পাহাড়ের পাদদেশে ছাগল পালন করতে করতে তোমার পদচিহ্ন খুঁজবো। আমি পাখা মেলে তোমার সঙ্গে নীল আকাশে উড়বো।'

বন্ধুরা, হুলুন হ্রদটি ইনার মঙ্গোলিয়ার বৃহত্তম হ্রদ। হ্রদের তীরে দাঁড়ালে আরেক পার দেখা যায় না। হ্রদের তীরে হাঁটার সময়ই আবহাওয়ার পরিবর্তন টের পাওয়া যায়। সূর্য হঠাত্‌ আড়াল হয়ে যায়। ভারী বৃষ্টি হতে পারে; বৃষ্টি শেষ হতে না হতেই আবার পশ্চিমাকাশে হেসে ওঠে সূর্য। এমন বৃষ্টিকে বলা হয় 'সূর্য বৃষ্টি'। একটি ছোট নৌকায় এ হ্রাদের পানিতে ভাসতে পারেন, মাছ ধরতে পারেন।

বন্ধুরা, এবার শুনুন 'পিতার তৃণভূমি আর মায়ের নদী' নামের গান। গেয়েছেন মঙ্গোলীয় জাতির বিখ্যাত গায়ক, তৃণভূমির গানের রাজা হিসেবে পরিচিত ছিফাং। গানটির কথা লিখেছেন তাইওয়ানের মঙ্গোলীয় জাতির কবি শি মু রোং। তিনি বলেন, ছি ফাংয়ের গান শুনে মনে হয়, আবার তৃণভূমিতে নিজের বাড়িতে ফিরে গেছি। তার চোখ পানি বৃষ্টির মতো ঝড়তে থাকে।

বাইনব্রুক তৃণভূমি চীনের সিনচিয়াং উইগুর স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের বাইনকোলাং মঙ্গোলীয় স্বায়ত্তশাসিত বিভাগ আর চিং জেলার উত্তর-পশ্চিম এবং থিয়ান শান পর্বতের মাঝের উপত্যকায় অবস্থিত। এ তৃণভূমির চার দিক তুষারমৌলি পাহাড় ঘিরে রেখেছে। 'বাইনব্রুক' হলো মঙ্গোলীয় ভাষা, এর অর্থ 'অব্যয় মিষ্টি ঝরনা'। বাইনব্রুক তৃণভূমি চীনের দ্বিতীয় বৃহত্তম তৃণভূমি। পাশাপাশি চীনের উঁচু পাহাড়ে অবস্থিত বৃহত্‌ তৃণভূমি এটি। এ তৃণভূমিটি সিনচিয়াংয়ের গুরুত্বপূর্ণ পশুপালন কেন্দ্রের অন্যতম। এ তৃণভূমিতে ১৩টি ছোট বড় ঝরনা এবং ২০টি নদী আছে।

বন্ধুরা, এবার শুনুন 'তৃণভূমির চাঁদ' নামের গান। গেয়েছেন ইয়ুন ফেই। গানের কথা এমন, 'যখন চাঁদ আকাশে ওঠে, তখন তৃণভূমি থাকে শান্ত। সবুজ ঘাসে দোল দিয়ে যায় বাতাস, ভেসে আসে মাটির ঘ্রাণ। তৃণভূমির চাঁদ মায়ের দৃষ্টির মতো, মনে আলোকিত হয়ে ওঠে। তৃণভূমির চাঁদ মায়ের প্রার্থনার মতো। যেখানে আছে ঘর, সেখানেই শুধু স্বর্গ।'

বন্ধুরা, নালাটি তৃণভূমি সিনচিয়াংয়ের সিনইউয়ান নালাটি  জেলার পূর্বে অবস্থিত। এ তৃণভূমি প্রাচীনকাল থেকে বিখ্যাত এক চারণভূমি। তার বৈশিষ্ট্যপূর্ণ প্রাকৃতিক দৃশ্য, সুদীর্ঘ ঐতিহাসিক সংস্কৃতি আর গভীর জাতিগত রীতিনীতি সীমান্ত অঞ্চলের অসাধারণ দৃশ্য তৈরি করেছে। এ তৃণভূমির ছাপুহো গ্রীষ্মকালীন চারণভূমিকে 'আকাশ তৃণভূমি' বলা হয়, কারণ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর গড় উচ্চতা ২০০০ মিটারেরও বেশি।

বন্ধুরা, এবার শুনুন 'তৃণভূমির রাতের সুন্দর দৃশ্য' নামের গান। গেয়েছেন দেদেমা। এ গানে তৃণভূমিতে পশুপালকদের জীবনের বর্ণনা রয়েছে।

বন্ধুরা আপনারা হয়ত জানেন, মঙ্গোলীয় জাতি প্রাচীনকাল থেকে মূলত পশুপালকের জীবনযাপন করত। তারা ঘোড়া চালিয়ে তৃণভূমিতে যাযাবরের মতো থাকত। ত্রয়োদশ শতাব্দীর প্রথম দিকে চেংগিস খান মঙ্গোলীয় জাতির বিভিন্ন গোত্রকে একত্রিত করেন এবং বিশ্বে এক নতুন সম্প্রদায় গড়ে তোলেন। তারা তৃণভূমির মালিকের মতো ঘুরে বেড়াত, পশুপালন করা এবং নাচ-গানে আনন্দিত সময় কাটাত। তৃণভূমিতে থাকতে থাকতে তাদের মন হয়েছে উদার, কণ্ঠস্বর হয়েছে জোরাল।

বন্ধুরা, এবার শুনুন 'আমি তৃণভূমি থেকে এসেছি' নামের গানটি। গেয়েছে 'ফিনিক্স লিজেন্ড' ব্যান্ড।

প্রিয় বন্ধু, আপনি কখনো তৃণভূমিতে গিয়েছেন? এখনও আমি কোনো তৃণভূমি যাইনি। কিন্তু তৃণভূমির অনেক মনোরম ছবি দেখেছি। যা আমার মনকে খুব টানে। বিশাল তৃণভূমির দৃশ্য দেখলে শহুরে জীবনের সব ঝামেলা ভুলে যাওয়া যায়! যদি আপনার সুযোগ হয়, তাহলে অবশ্যই একবার গিয়ে স্বচখে দেখবেন এবং তৃণভূমির মাটি ও ঘাসের ঘ্রাণ নেবেন।

বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের শেষে শুনুন 'তৃণভূমিতে সূর্যাস্ত হয় না' গানটি। গেয়েছেন উলানতুয়া।

প্রিয় বন্ধুরা, এতক্ষণ আপনারা চীন আন্তর্জাতিক বেতারের সুর ও বাণী আসর শুনলেন। তৃণভূমির গানগুলো শুনে আপনাদের চোখের সামনে কোনো বিশেষ ছবি ভেসে উঠেছে কি? তাহলেই কেবল গানগুলো উপলব্ধি করতে পারবেন।

বন্ধুরা, ভালো থাকুন। আবার কথা হবে।

(ইয়ু/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040