Web bengali.cri.cn   
বিশ্বের বৃহত্তম মাইগ্রেশন 'ছুন ইউন'
  2017-01-25 15:52:09  cri



৩১ জানুয়ারি থেকে চীনে শুরু হয় 'ছুন ইউন'। ছুন মানে বসন্ত উত্সব এবং ইউন মানে পরিবহন। বাংলাদেশের ঈদের মতো বসন্ত উত্সবের সময় চীনারা যেখানেই থাকুক না কেন নিজের পরিবারের কাছে ফিরে যায়। চীনাদের কাছে ছুন ইউন মানে ফেরার পথ।

ছুন ইউন বিশ্বের বৃহত্তম মাইগ্রেশন। আনুমানিক হিসেব অনুযায়ী চলতি বছরের বসন্ত উত্সবে প্রায় ৩০২ কোটি ৮০ লাখ পার্সন টাইমস যাতায়াত হবে। এর মধ্যে ৩৫ কোটি ৬০ লাখ মানুষ রেলপথে যাতায়াত করবে।

ছুন ইউন নিয়ে চীনের মানুষের তিনটি অভিযোগ ছিল। একটা হলো, যাতায়াতের জন্য সহজে টিকিট না পাওয়া, দ্বিতীয়ত ট্রেনের খাবারের দাম বেশি এবং টিকিটের কালোবাজারি। অর্থাত কেউ অনেক আগে টিকেট কিনে চড়া দামে বিক্রি করে।

২০১৭ সালের ছুন ইউনে এসব সমস্যা হবে কিনা এবং এর মোকাবিলায় সরকার কি কি করেছে? আজকের পূবের জানালা অনুষ্ঠানে আমরা ছুন ইউনের এ তিনটি সমস্যা নিয়ে আলোচনা করব।

দশ বছর আগের কথা। বসন্ত উত্সবের সময় বাড়ি ফেরার একটি টিকিট কেনার জন্য দীর্ঘ সময় লাইনে দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হত। বেশিরভাগ মানুষেরই এরকম দীর্ঘ সময় লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থাকার অভিজ্ঞতা আছে।

যাত্রীরা বরফ ও বৃষ্টি উপেক্ষা করে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকত। দাঁড়িয়ে থাকার সময় যেন কষ্ট না হয়, সেজন্য শাংহাই রেল কর্তৃপক্ষ বিশেষ তাঁবুর ব্যবস্থাও করেছিল। পাশাপাশি টিকিট বিক্রির জন্য আলাদা কাউন্টারও চালু করে কর্তৃপক্ষ। এত কিছুর পরও সবাই কিন্তু টিকিট পায় না!

কেউ কেউ বসন্ত উত্সবের কয়েকদিন পরের টিকিট কিনত। এ ছাড়াও বিভিন্নভাবে মানুষ পরিবারের কাছে ফিরে যেত।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, হাইস্পিড ট্রেন চালুর পর দেশে রেল পরিবহন ক্ষমতা বেড়েছে। চলতি ছুন ইউনে শাংহাই রেল ব্যুরো ১৭১৭টি যাত্রীবাহী ট্রেনের পাশাপাশি ৩৮৯টি অস্থায়ী ট্রেন চালু করেছে। যা আগের চেয়ে ১০.৩ শতাংশ বেশি। এর মধ্যে ১২৬৬টি দ্রুত গতির ট্রেন। প্রায় এক বছর হলো এ ট্রেনগুলো চালু হয়েছে। বেইজিং-শাংহাই, শাংহাই-হাংচৌসহ সবচেয়ে ব্যস্ত কয়েকটি রুটে এবং সবচেয়ে ব্যস্ত সময় প্রতি ৪ মিনিটে একটি দ্রুত গতি ট্রেন রওনা হয়।

ইয়াংসি নদীর বদ্বীপ অঞ্চল থেকে চীনের মধ্য, দক্ষিণ, দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তর দিকে অনেকগুলো রেলরুট চালু হয়েছে। এবার কয়েকটি জায়গা ছাড়া, চীনের অধিকাংশ দিকে যাওয়া ট্রেনগুলোর টিকিট খালি রয়েছে।

এবার আসি ট্রেনের খাবার প্রসঙ্গে।

ট্রেনের খাবারের দাম যাত্রীদের জন্য আরেকটি সমস্যা। দ্রুত গতির ট্রেনে ১৫ ইউয়ান দামের খাবারের সংখ্যা অল্প এবং অন্যান্য খাবারের দাম বেশি হওয়ায় সাধারণ যাত্রীরা তা কিনতে পারে না। খাবারের জন্য তাদেরকে কমপক্ষে ৪৫ বা ৬০ ইউয়ান খরচ করতে হয়। তা ছাড়া, কেউ কেউ অভিযোগ করেছেন যে, খাবার দামী হলেও তা সুস্বাদু নয়। আসলে বিশাল চীনের বিভিন্ন স্থানের যাত্রীদের খাবারের রুচি আলাদা ধরনের হয়ে থাকে।

এ সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

চলতি বছর, বিভিন্ন রুটে বিভিন্ন খাবার সরবরাহ করা হবে। ট্রেনে এবং যাত্রীর সংখ্যা অনুযায়ী ১৫, ৪০ ও ৬০ ইউয়ানের খাবারের অনুপাতে কিছুটা সমন্বয় করা হয়েছে। ছুন ইউন চলাকালে সাধারণ দিনের চেয়ে ১৫ ইউয়ানের খাবার বেশি সরবরাহ করা হবে। এবার বক্স লাঞ্চের পাশাপাশি ট্রেনে অন্য রকমের খাবারও পাওয়া যাবে। যেমন বান, ডাম্পলিংস, নুডলস, মুরগি ইত্যাদি।

এসব খাবারের দাম ৮-১৫ ইউয়ানের মধ্যে থাকবে। পাশাপাশি সুপের পরিমাণও আগের চেয়ে বেশি বাড়ানো হয়েছে।

ইয়াংসি নদীর বদ্বীপ অঞ্চলের কয়েকটি দ্রুত গতির ট্রেনে নতুন একটি সেবা চালু করা হয়েছে। সেটি হলো যাত্রীরা যাত্রা শুরুর আগে বা নিজের আসন বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে নিজেদের পছন্দের খাবার অর্ডার করতে পারবেন। পরে ট্রেনে তাদের সে খাবার দেওয়া হবে এবং সব লেনদেন স্মার্টফোনের মাধ্যমে সম্পন্ন করা সম্ভব। তার মানে ট্রেনে যদি আপনি কিছু বিশেষ পণ্য বা স্যুভেনিয়র কিনতে চান ফোনের মাধ্যমেই তার দাম পরিশোধ করতে পারবেন।

টিকিটের কালোবাজারি বন্ধের জন্য চীনে চালু হয়েছে ইন্টারনেট টিকিট ব্যবস্থা। প্রত্যেকে তাদের আইডি কার্ড নম্বর ব্যবহার করে অনলাইনে টিকিট কিনতে পারবে। এখন ট্রেন স্টেশনে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কেনার মানুষ কমেছে। তবে এ সমস্যাটি এখনও পুরোপুরি সমাধান হয়নি।

শাংহাই স্টেশনে কয়েকজন পুলিশ এ বিষয়টি তদন্ত করেছেন। তারা অপেক্ষায় থাকা যাত্রীদের কাছে জানতে চান তারা কোথা থেকে কিভাবে টিকেট কিনেছেন।

গত ডিসেম্বর থেকে পুলিশের উদ্যোগে চীনে চালু হয় টিকিটের পুনঃবিক্রি বন্ধ অভিযান। ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত ১১৪০টি মামলায় ১৩৫৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং ১২৪৩৭টি টিকিট উদ্ধার করা হয়েছে।

অভিযানে পুলিশ নানা পদ্ধতির মাধ্যমে টিকিটের পুনঃবিক্রি বন্ধ করেছে। তারা টিকিটের উত্স তদন্ত করে, হটলাইনে এবং যাত্রীদের কাছে নানাভাবে জিজ্ঞাস করে এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়েছে।

ইন্টারনেটেও তারা ২৪ ঘণ্টা নজরদারি করেছে। যারা আগে টিকিট রিসেলিং করেছে তাদের অ্যাকাউন্ট বা ফোনের ওপর নজর রেখেছে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, বৈধ পদ্ধতিতে টিকিট কিনা উচিত্ এবং যখন জাল টিকিট বা উচ্চ দামে টিকিট বিক্রি হয় তখন তা পুলিশকে জানানো উচিত্। (শিশির/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040