Web bengali.cri.cn   
সুর ও বাণী: চীন ও বাংলাদেশের মৈত্রীর গান
  2016-11-04 18:36:02  cri


গত ১৪ ও ১৫ অক্টোবর চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং বাংলাদেশ সফর করেন। সফরে দু'দেশের নেতাদের উপস্থিতিতে দু'দেশের নানা প্রতিষ্ঠান ৩০টিরও বেশি সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। এ সময় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, "আমরা বিশ্বাস করি, চীন বিশ্বস্ত অংশীদার, আমাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সাহায্য করতে পারে।"

দু'দেশের নেতারা ঘোষণা করেছেন, ২০১৭ সাল হবে চীন-বাংলাদেশের মৈত্রী বছর। আগামী বছর দু'দেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, অর্থনীতি ও বাণিজ্য, সংস্কৃতি ও শিক্ষা, পর্যটনসহ নানা খাতে বিভিন্ন বিনিময় কর্মসূচি হবে। এতে দু'দেশের সম্পর্ক এক নতুন পর্যায়ে পৌঁছাবে।

সুর ও বাণী আসরও এ অগ্রগতি থেকে পিছিয়ে থাকবে না। আজ আপনাদের জন্য প্রচার করবো চীনা শিল্পীদের গাওয়া বেশ কিছু বাংলা গান। আমি জানি, গত শতাব্দীর ৮০ ও ৯০'র দশকে চীনের অনেক সাংস্কৃতিক দল বাংলাদেশ সফর করেছে। সে সময় চীনের বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পীরা বাংলা ভাষার গান শিখে রেকর্ড করেন। সে গানগুলো শুনলে বেশ ভালো লাগে। তবে আমাদের অনুষ্ঠানে অনেক দিন এ গানগুলো প্রচার করা হয়নি।

ইন সিউ মেই

বন্ধুরা, ইন সিউ মেই হলেন চীনের এক বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পী। তিনি চীনের জাতীয় পর্যায়ের প্রথম শ্রেণীর গায়িকা, জাতীয় গণকংগ্রেসের প্রতিনিধি, চীনের সংগীতজ্ঞ সমিতির সদস্য। তিনি 'স্বর্ণ ডিস্ক পুরস্কার', 'দশটি সেরা গানের পুরস্কার', 'নতুন যুগের শ্রেষ্ঠ গানের পুরস্কার'সহ অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। এখন শুনুন তার গাওয়া 'আজ জ্যোত্সনা রাতে সবাই গেছে বনে।'

চেং সুই লান

বন্ধুরা, চেং সুই লান চীনের প্রাচ্য নৃত্যগীতি দলের কণ্ঠশিল্পী। তিনি থাইল্যান্ড, ফিলিপিন্স, মালয়েশিয়াসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোতে গিয়ে সেসব দেশের লোকসংগীত শিখেছেন। তার গাওয়া চলচ্চিত্রের গানগুলো চীনে খুব জনপ্রিয় ছিল। তিনিও একটি বাংলা গান গেয়েছেন। সে গানটি হলো, 'এক বার যেতে দে না, আমার ছোট সোনার গাঁয়'। যখন প্রথমবার আমি এ গান শুনি, তখন থেকেই গানটির প্রেমে পড়ে যাই। গানের সুর যেমন শ্রুতিমধুর, তেমনি গানের কথাও সহজে মনে থাকে। যদিও এখনও আমি পুরো গানটি গাইতে পারি না, তবুও বার বার শোনার পরও কখনও একঘেয়ে লাগে না। শুনুন চীনা শিল্পীর কণ্ঠে 'এক বার যেতে দে না আমার ছোট সোনার গাঁয়'।

ছিন লেই, কুয়াংচৌ সামরিক অঞ্চলের সেনা নৃত্যগীতি দলের জাতীয় পর্যায়ের প্রথম শ্রেণীর শিল্পী। তিনি চীনের বাহিনীর প্রথম গান প্রতিযোগিতায় লোকসংগীত গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ছিলেন এবং চীনের 'সেরা দশজন গায়িকা' প্রতিযোগিতায় প্রথম পুরস্কার পেয়েছেন। শুনুন ছিন লেইয়ের গাওয়া জনপ্রিয় দেশাত্মবোধক গান, 'এই পদ্মা, এই মেঘনা, এই যমুনা নদীর তটে।'

বন্ধুরা, এতক্ষণ আপনারা চীনের কয়েকজন নারী কণ্ঠশিল্পীর গাওয়া বাংলা গান শুনলেন। কিন্তু বাংলা গান গাইতে পারেন, এমন পুরুষ কণ্ঠশিল্পীরাও পিছিয়ে নেই। এবার শুনুন শু লিং নিং নামে একজন চীনা গায়কের গাওয়া বাংলা গান। গানের নাম 'ফুলে ফুলে ঢলে ঢলে বহে কিবা মৃদু বায়'।

চু ফেং পো

বন্ধুরা, যারা বাংলা গান গেয়েছেন, তাদের মধ্যে আমার বিশেষ প্রিয় একজন কণ্ঠশিল্পী রয়েছেন। তার নাম চু ফেং পো। তিনি ১৯৩৭ সালের এপ্রিলে চীনের শানতোং প্রদেশের চিনানে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি 'চীনের নতুন লোকসংগীতের মাতা' এর খেতাব অর্জন করেছেন। তিনি চীনের প্রথম হালকা সংগীত দল গঠন করেন এবং চীনের আধুনিক পপ সংগীতের প্রতিষ্ঠাতা। তাকে 'চীনের বুলবুল' বলে অভিহিত করা হয়। তিনি গত শতাব্দীর ৭০ থেকে ৮০'র দশকে চীনের সংগীত মঞ্চে সবচেয়ে প্রাণবন্ত ও প্রভাবশালী কণ্ঠশিল্পী ছিলেন। চু ফেং পো চীনের রাষ্ট্রীয় পরিষদের বিশেষ ভাতা পান। বন্ধুরা, এখন শুনুন চু ফেং পোর গাওয়া 'একটি বাংলাদেশ, তুমি জাগ্রত জনতা' গানটি।

ওয়াং খুন

বন্ধুরা, ওয়াং খুন ১৯২৫ সালে চীনের হোপেই প্রদেশের থাং জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চীনের বিখ্যাত গীতিনাট্যের শিল্পী। ১৯৮৯ সালে চীনের প্রথম স্বর্ণ ডিস্ক পুরস্কার পান তিনি। ১৯৮২ সাল থেকে দীর্ঘদিন যাবত্ তিনি চীনের প্রাচ্য নৃত্যগীতি দলের প্রধান ছিলেন। তিনি পাকিস্তান প্রেসিডেন্টের দেওয়া 'অসাধারণ তারকা' পদক লাভ করেন। বাংলা পল্লীগীতি 'আল্লা মেঘ দে, পানি দে' গেছেয়েন তিনি। শুনুন এ গানটি।

বন্ধুরা, কুয়াংচৌ নৃত্যগীতি দল ১৯৬৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এ নৃত্যগীতি দল অনেক গীতিনাট্য অভিনয় করেছে এবং চীনের প্রথম পুরুষদের নৃত্য সান্ধ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। এ দলের পুরুষ গায়ক দলটি বাংলাদেশের বিদ্রোহী কবি নজরুল ইসলামের রণ সংগীত 'চল্ চল্ চল্'ও গেয়েছে। শুনুন গানটি।

বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের শেষে শুনুন ইয়ু শু ছিনের গাওয়া 'ও কি গাড়িয়াল ভাই'গানটি।

বন্ধুরা, আজকের সুর ও বাণী আসর এ পর্যন্তই। চীনের কণ্ঠশিল্পীদের গাওয়া বাংলা গানগুলো শুনে আপনাদের কেমন লেগেছে? আমাকে জানালে খুব খুশি হবো। আজ তাহলে বিদায় নেই। সবাই ভালো থাকুন। আবারও কথা হবে। (ইয়ু/তৌহিদ)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040