Web bengali.cri.cn   
সুর ও বাণী : গীতিকার লিউ ইউয়ান
  2016-09-14 18:43:22  cri


প্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা, আপনারা চীন আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলা অনুষ্ঠান শুনছেন। আমি 'আনন্দী' বেইজিং থেকে আপনাদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি 'সুর ও বাণী' আসর। আজ আপনাদের পরিচয় করিয়ে দেবো চীনের গীতিকার ও সুরকার লিউ ইউয়ানের সঙ্গে। শোনাবো তার সৃষ্টি করা অদ্ভূদ সুন্দর কিছু গান।

সুরকার লিউ ইউয়ান

বন্ধুরা, এখন আপনারা শুনছেন 'ঝরণার পানির ঝিরিঝিরি শব্দ' নামে একটি গান। এ গানের কথা লিখেছেন মা চিন সিং, সুর করেছেন লিউ ইউয়ান। এ গানটি গত শতাব্দীর ৭০'র দশকের শেষ দিকে রচিত। চীনে সাংস্কৃতিক বিপ্লবের পর এ গানটি চীনে প্রেমসঙ্গীতের সূচনা করে। এ গানে নৌবাহিনীর এক সৈনিকের সাথে একটি মেয়ের বর্ণীল প্রেমকাহিনীর কথা তুলে ধরা হয়েছে। এ গানে বলা হয়েছে, 'ঝরণার পানি, তুমি কোথায় বয়ে চলেছ? আমার হৃদয় সাথে নিয়ে যাও। ঝরণার পানি, তার কথা তোমার মনে আছে? আমি তাকে সীমান্তরক্ষী বাহিনীতে পাঠানোর সময় তোমার পাশে দাঁড়িয়েছিলাম। ঝরণার পানি তুমি ঝিরিঝিরি শব্দে গান গাইতে।'

লিউ ইউয়ান চীনের একজন বিখ্যাত গীতিকার ও সুরকার। ১৯২৯ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি চীনের লিয়াও নিং প্রদেশের ডানতোং শহরে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৪৬ সালে তিনি মুক্তি অঞ্চলের প্রচার দলে যোগ দেন। তখন থেকেই গান লেখা শুরু করেন। প্রায় ৫০ বছরের সংগীত জীবনে তিনি এক হাজারের বেশি গান রচনা করেছেন। এছাড়াও প্রায় ১০০টি গীতিনাট্য, মঞ্চনাটক, চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন নাটকের সংগীত সৃষ্টি করেছেন তিনি। লিউ ওয়েন খ্য, ইয়ু শু চেন, লিউ শি মিং এবং বিয়ান সিয়াও চেন প্রমূখ কণ্ঠশিল্পী তার গান গেয়ে খ্যাতি অর্জন করেছেন।

বন্ধুরা, এবার শুনুন লিউ ওয়েন খ্যর গাওয়া 'ক্লামাই এর গান'। ১৯৫৬ সালে ২৭ বছর বয়সী লিউ ইউয়ান প্রথমবারের মতো রহস্যময় 'ক্লামাই' অঞ্চলের নাম জানতে পারেন। তখন ক্লামাই ছিল জনশূন্য এক নির্জন এলাকা। তবে সেখানে তেল আবিষ্কৃত হয়। লিউ ইউয়ানের কল্পনায় ক্লামাই এক বিশাল স্থান। সেখানে অসীম নীল আকাশ ও সৈকত আছে। এমন কি সংগীত রচনার অনুপ্রেরণার জন্য তিনি একাই সাইকেলে চড়ে সিনচিয়াংয়ে গিয়েছিলেন। ক্লামাইয়ের প্রতি তার আকর্ষণ ও ভালোলাগা ছয় তারা বাদ্যযন্ত্রের মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। ১৯৫৯ সালে কণ্ঠশিল্পী লিউ ওয়েন খ্য বেইজিংয়ে প্রথমবার এ গান গেয়েছেন। চীনের কেন্দ্রীয় বেতার সে গান প্রচার করে। এরপর গানটি চীনে দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। শুনুন 'ক্লামাইয়ের গান'।

লিউ ইউয়ান সমৃদ্ধ শিল্পকর্ম সৃষ্টি করেছেন। তিনি গান লেখা এবং সুর করার পাশাপাশি কয়েকটি কবিতা সংগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তিনি বহুবার চীনের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, নাটক সমিতি এবং নৌবাহিনীর পুরস্কার পেয়েছেন। তার কবিতা সংগ্রহ 'সিয়াও তোং মু' জাতীয় পর্যায়ের দ্বিতীয় পুরস্কার পেয়েছে। তার গান 'গানের দেবতা' জাপানের শান্তি মৈত্রী শীর্ষক স্বর্ণ পুরস্কার পেয়েছে। তার সৃষ্টি 'ক্লামাইয়ের গান', 'উঁচু সিং আন লিংয়ে উঠেছি', 'আমাদের জীবন সূর্যালোকে ভরা' প্রভৃতি গানগুলো চীনের এক সময়ের প্রতিনিধিত্বশীল গানে পরিণত হয়েছে।

বন্ধুরা, এবার শুনুন ইয়ু শু চেনের কণ্ঠে 'আমাদের জীবনে সূর্যালোক ভরা' নামের গানটি। এ গানটি ১৯৭৯ সালে 'সুন্দর কর্মজীবন' নামে সিনেমার থিম সং। ইউনেস্কো এ গানকে এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সংগীত পাঠ্যপুস্তকে স্থান দিয়েছে। এ গানে গীতিকার বলেছেন, 'সুখের ফুল আমাদের মনে ফুটেছে। প্রেমের গান বাতাসে শোনা যাচ্ছে। আমাদের মন অনেক দূরে উড়ে যায়। প্রিয়জনের হাত ধরে দু'জনে সামনের দিকে এগিয়ে যাই। আমাদের জীবনে সূর্যালোক ভরা।'

লিউ ইউয়ান আর কণ্ঠশিল্পীদের সঙ্গে

চীনের বিখ্যাত লেখক ও সাবেক সংস্কৃতি মন্ত্রী হো চিং চি লিউ ইউয়ানকে 'গণ সংগীতবিশারদ' বলে প্রশংসা করেছেন। চীনের সংস্কার ও উন্মুক্তকরণের পর লিউ ইউয়ান অনেক জনপ্রিয় গান সৃষ্টি করেছেন। তবে তিনি কখনো ব্যবসায়ি বৃত্তে পা দেন নি। তিনি সবসময় সমাজের কল্যাণমূলক গানের প্রতি মনোযোগ দিয়েছেন। সমগ্র চীনা জাতির সংগীতের মান উন্নত করা তার মূল লক্ষ্য।

প্রিয় বন্ধুরা, এবার শুনুন 'পিয়নী ফুলের গান'। গানের কথা লিখেছেন ছিও ইয়ু, সুর করেছেন থাং খ্য এবং লিউ ইউয়ান। আর চমত্কার এ গানটি গেয়েছেন চিয়াং দা ওয়েই। এ গানটি আসলে ১৯৮০ সালে ছাং ছুন ফিল্ম গ্রুপ কর্পোরেশন নির্মিত 'লাল পিয়নী ফুল'নামের সিনেমার থিম সং। এ গানে বলা হয়েছে, 'শত ফুলের মধ্যে পিয়নী ফুল সবচেয়ে সুন্দর ও রঙিন। তুষার ঝরা শীতকালে তুমি নতুন জীবন অর্জনের চেষ্টা কর। বসন্তকালে মিষ্টি বাতাস আসার সাথে সাথে তুমি অসাধারণ সুন্দর বয়ে ওঠ।'

লিউ ইউয়ান একজন বিখ্যাত সুরকার এবং গীতিকার। তিনি উত্তর-পূর্ব চীন থেকে উত্তর-পশ্চিম চীন পর্যন্ত লোকসংগীত সম্পর্কে ভালো জ্ঞান রাখেন। তিনি ব্যাপকভাবে স্থানীয় সংগীতের মর্মকথা শিখেছেন। এসব স্থানীয় সংগীত তার সংগীত সৃষ্টির উতসে পরিণত হয়েছে। তার সুরের মধ্যে সমৃদ্ধ স্থানীয় বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যায়। ১৯৮০ সালে 'লিউ ইউয়ানের গান সংগ্রহ' প্রকাশিত হয়েছে। এর পাশাপাশি তিনি সংগীত সমালোচনাও লিখেছেন।

প্রিয় বন্ধুরা, এখন আপনারা 'প্রজাপতি হয়ে একসাথে উড়তে চাই' নামে একটি গান শুনছেন। গেয়েছেন গুয়ান মু ছুন। গানটি 'জেড প্রজাপতি' নামের সিনেমার থিম সং। এ সিনেমায় চীন ও জাপানের মৈত্রীর কথা তুলে ধরা হয়েছে। এ গানের সুরে জাপানী সংগীতের ভাব রয়েছে। সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার পর চীন ও জাপানে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয়। এ গানও ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়েছে।

১৯৫৬ সালে লিউ ইউয়ান অন্তঃমঙ্গোলিয়ার পাও থৌ গিয়ে স্থানীয় অধিবাসীদের জীবন সম্পর্কে জানেন। সেখানে তিনি লক্ষ্য করেছেন, মঙ্গোলীয় জাতি এবং হান জাতির লোকেরা তৃণভূমির জীবন উন্নত করতে একসাথে পরিশ্রম করছে। তা দেখে ও জেনে তিনি খুবই মুগ্ধ হন। তিনি মঙ্গোলীয় জাতির লম্বা লম্বা গানের সুর ব্যবহার করে মঙ্গোলীয় এবং হান জাতির জনগণের একসাথে স্বদেশ প্রতিষ্ঠার প্রশংসা করে গান লেখেন। এ গানের নাম 'উঁচু সিং আন লিংয়ে উঠেছি'। গানটি গেয়েছেন বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পী লিউ ওয়েন খ্য। শুনুন গানটি।

লিউ ইউয়ান আর কণ্ঠশিল্পী লিউ ওয়েন খ্য

বন্ধুরা, 'উত্তরাঞ্চলের বসন্তকাল' হচ্ছে জাপানের একটি লোকসংগীত। এ গানে স্বদেশকে মিস করার আবেগ প্রকাশিত হয়েছে। লিউ ইউয়ান এ গানের চীনা ভাষার সংস্করণ কম্পোজ করেছেন। চীনের বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পী চিয়াং দা ওয়েই গাওয়ার পর এ গানটি চীনাদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় জাপানী লোকসংগীতের অন্যতম একটি গানে পরিণত হয়েছে। এ গানে বলা হয়েছে, 'উত্তরাঞ্চলে বসন্তকাল এসেছে। আমার প্রিয়তমা তুমি ভালো আছো? আমাদের বিদায় হয়েছে পাঁচ বছর। যদিও আমরা পরস্পরকে ভালোবাসি, তবে আজ পর্যন্ত প্রকাশ করিনি। আমার স্বদেশ, আমি কবে ফিরে যাবো? আমি কবে তোমার কোলে আসবো?'

প্রিয় বন্ধুরা, আজকের 'সুর ও বাণী' অনুষ্ঠানে চীনের বিখ্যাত সুরকার লিউ ইউয়ানের সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরেছি। তার কয়েকটি গান আপনাদের শুনিয়েছি। আশা করি, এ পুরোনো গানগুলো আপনাদের ভালো লেগেছে। এ অনুষ্ঠান সম্পর্কে আপনাদের কোনো মতামত থাকলে আমাকে ইমেলে জানাবেন। ইমেল ঠিকানা : ben@cri.com.cn। বন্ধুরা, ভালো থাকুন সবাই। আবার কথা হবে। (ইয়ু/মান্না)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040