Web bengali.cri.cn   
সুর ও বাণী: বিখ্যাত পিয়ানো বাদক লিউ শি কুন
  2016-06-19 13:18:12  cri


লিউ শি কুন বিশ্বের সবচেয়ে বড় পিয়ানো প্রতিযোগিতায় সর্বোচ্চ পুরস্কার অর্জনকারী চীনা পিয়ানো বাদকদের অন্যতম। আজকের 'সুর ও বাণী' আসরে আপনাদের সাথে তার পরিচয় করিয়ে দেবো এবং তার বাজানো কয়েকটি পিয়ানোর সুর শোনাবো।

পিয়ানো বাদক লিউ শি কুন

লিউ শি কুন বিশ্ববিখ্যাত পিয়ানো বাদক। মাও ছে তোং, চৌ আন লাই, লিউ শাও ছি, তেং সিয়াও পিং এবং চিয়াং ছে মিন প্রমূখ চীনের রাষ্ট্রীয় নেতৃবৃন্দ তার বাজানো সুর শুনেছেন। এমন কি সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতা, মার্কিন প্রেসিডেন্ট, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ও বৃটেনের প্রধানমন্ত্রীসহ দশ বারোটি দেশের শীর্ষনেতারাও তার সঙ্গে সাক্ষাত্ করেছেন। বিদেশী গণমাধ্যম লিউ শি কুনকে 'চীনের শ্রেষ্ঠ পিয়ানো বাদক' এবং 'চীনের পিয়ানো সম্রাট' বলে অভিহিত করে। তার প্রতিনিধিত্বকারি কাজের মধ্যে অন্যতম 'যুব পিয়ানো কনসার্ট' এবং 'টাইফুনের সঙ্গে সংগ্রাম'।

সুপ্রিয় বন্ধুরা, এবার শুনুন 'টাইফুনের সঙ্গে সংগ্রাম' নামের সুরটি।

লিউ শি কুন মাত্র তিন বছর বয়সে পিয়ানো বাজাতে শেখেন। পাঁচ বছর বয়সে মঞ্চে পিয়ানো বাজাতে শুরু করেন। দশ বছর বয়সে চীনের জাতীয় কিশোর-কিশোরী পিয়ানো প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হন। তিনি ১৭ বছর বয়সে হাঙ্গেরিতে অনুষ্ঠিত 'লিস্ট আন্তর্জাতিক পিয়ানো প্রতিযোগিতা'য় বিশেষ পুরস্কার অর্জন করেন। ১৯৫৮ সালে ১৯ বছর বয়সে লিউ শি কুন মস্কোয় বিশ্বের শীর্ষ আন্তর্জাতিক পিয়ানো প্রতিযোগিতা---'প্রথম চেয়কোভস্কি আন্তর্জাতিক পিয়ানো প্রতিযোগিতায়' রানাসআপ হন। সে সময় থেকেই তিনি বিশ্ব সংগীত জগতে সুনাম অর্জন করতে শুরু করেন।

উন্নত বিশ্বের অধিকাংশ দেশে তিনি পিয়ানো বাজিয়েছেন। পেয়েছেন ব্যাপক সম্মান ও ভালোবাসা। তিনিই চীনের প্রথম শিল্পী যিনি সর্বপ্রথম হংকং, তাইওয়ান ও যুক্তরাষ্ট্র সফর করেন এবং নিজের বাজানো সংগীত পরিবেশনা করেন।

বর্তমানে তিনি চীনের হংকং, বেইজিং, শাংহাই, কুয়াংচৌ, শেনচেন, চুহাইসহ প্রায় ৩০টি শহরে 'লিউ শি কুন পিয়ানো কেন্দ্র' নামে প্রায় ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বেশ কিছু 'লিউ শি কুন সংগীত শিল্প কিন্ডারগার্টেন প্রতিষ্ঠা করেছেন। এ প্রতিষ্ঠানগুলোতে বর্তমানে ছাত্র সংখ্যা ১৫ হাজারের বেশি। লিউ শি কুন চীনের সংগীত জগতে শিক্ষাদান ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠায় ব্যাপকভাবে সফল।

বন্ধুরা, এবার শুনুন লিউ শি কুনের বাজানো 'আনন্দ দিবস' নামে একটি সুর।

লিউ শি কুন ১৯৩৯ সালে এক ধনী ব্যবসায়ী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা লিউ সিয়াও তোং শৈশব থেকে সংগীত অনুরাগী। তার বাবা শানতোং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক হওয়ার পর শাংহাইয়ের জাতীয় সংগীত কলেজে ভর্তি হন। সেখান থেকে পাশ করার পর তিনি সংগীতের মঞ্চে যান নি। তিনি ব্যবসার জগতে প্রবেশ করেন। তবে তিনি ছেলের সংগীতের প্রতিভা আবিষ্কার করেছেন। নিজের সংগীতের আদর্শ ছেলেকে দিয়েছেন। আমদানি করা চারটি পিয়ানো এবং দশ হাজার ডিস্ক তার সংগ্রহে ছিলো। তিনি পুরোদমে ছেলে লিউ শি কুনকে পিয়ানো বাদক মাস্টার বানানোর প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

১৯৫৬ সালে লিউ শি কুন হাঙ্গেরিতে অনুষ্ঠিত লিস্ট আন্তর্জাতিক পিয়ানো প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান লাভ করেন। তার বাজানো 'হাঙ্গেরি মহাকাব্য' বিশেষ পুরস্কার লাভ করে। তার প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে বিশেষ অনুমোদনের মাধ্যমে হাঙ্গেরি সরকার জাতীয় জাদুঘরে সংরক্ষিত লিস্টের এক গুচ্ছ চুল এ চীনা ছেলেকে উপহার দেয়। তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সাথে পিয়ানো বাজান বলে তাকে মস্কো সংগীত ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়।

১৯৫৮ সালের এপ্রিলে 'প্রথম চেয়কোভস্কি আন্তর্জাতিক পিয়ানো প্রতিযোগিতা' মস্কোয় অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ প্রতিযোগিতায় লিউ শি কুন দ্বিতীয় হন। তত্কালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতা ক্রুসচেভ চীনের প্রেসিডেন্ট মাও ছে তোং এবং প্রধানমন্ত্রী চৌ আন লাইকে অভিনন্দন বার্তা পাঠান।

প্রিয় বন্ধুরা, এবার শুনুন লিউ শি কুনের বাজানো 'শিশুদের সুর'।

 পিয়ানো বাদক লিউ শি কুন

১৯৯০ সালে লিউ শি কুন হংকংয়ে চলে যান। ১৯৯২ সালে হংকংয়ে প্রথম 'লিউ শি কুন পিয়ানো শিল্প কেন্দ্র' প্রতিষ্ঠিত হয়। তিনি ছাত্রদের পিয়ানো বাজানো শেখানোর পাশাপাশি নিজের ব্র্যান্ডের পিয়ানো বিক্রি করতে শুরু করেন। সে সময়ের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, 'হংকংয়ে টাকা না থাকলে কোনো কাজ করা যাবে না। কেবল সুনাম থাকলে হয় না; হাতে টাকা না থাকলে ভাতও খাওয়া যায় না।' পিয়ানো কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তিনি অর্থনৈতিক অভাব কাটিয়ে ওঠেন এবং তার পরবর্তী প্রতিষ্ঠানের ভিত্তি স্থাপন করেন।

লিউ শি কুন বলেন, তিনি ছোটবেলা থেকে বাচ্চাদের পছন্দ করেন। বাচ্চাদের জন্য কাজ করতে তার বেশ ভালো লাগে। ১৯৯৬ সাল থেকে তিনি বেইজিং, থিয়েনচিন ও চৌংছিংসহ প্রায় ৩০টি শহরে পিয়ানো শিল্প কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন এবং বেইজিং ও শাংহাইতে পাঁচটি সংগীত শিল্পকলা কিন্ডারগার্ডেন প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি একজন সংগীতজ্ঞ থেকে শিক্ষাবিদে পরিণত হয়েছেন। তারপর শিক্ষাবিদ থেকে শিল্পপতিতে পরিণত হয়েছেন।

লিউ শি কুন চীনের প্রয়াত নেতা মাও ছে তোং এবং চৌ আন লাইয়ের জন্যও পিয়ানো বাজিয়েছেন। প্র্রধানমন্ত্রী চৌ আন লাই পিয়ানো শুনতে পছন্দ করতেন এবং নিজেও ভালো বাজাতে জানতেন। একবার চৌ আন লাই লিউ শি কুনের বাজানো 'সাদা চুলের মেয়ে' নামে সুরটি শোনার পর বলেন, 'এখন তোমার বাম হাতের বাজানো সুর বেশি মিষ্টি লাগে। শ্রোতারা সহজে তোমার ডান হাতের বাজানো প্রধান সুর উপেক্ষা করবে।' এরপর লিউ শি কুন প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব চিন্তা করে এ সুর বাজানোর পদ্ধতির পরিবর্তন করেন। এবার শুনুন লিউ শি কুনের বাজানো 'সাদা চুলের মেয়ে' নামের সুরটি।

প্রিয় শ্রোতা, বর্তমান সময়ে চীনে অনেক বাবা-মা সন্তানকে কোনো না কোনও বাদ্যযন্ত্র শেখানোর ব্যবস্থা করেন। কিন্তু বাদ্যযন্ত্র বাজানো সহজ কাজ নয়।

কীভাবে পিয়ানো শেখা যায় এ প্রসঙ্গে লিউ শি কুন বলেন, "বাচ্চারা খেলতে পছন্দ করে, এটা স্বাভাবিক। বাচ্চাদের পিয়ানো বাজানো শেখাতে চাইলে বাবা-মার স্থির সিদ্ধান্ত নেওয়া দরকার। কারণ কেবল বাচ্চাদের আগ্রহ থাকলেই হবে না। এ জন্য প্রতিদিন কম পক্ষে আধা ঘন্টা সময় দরকার। অনেক সময় পিয়ানো বাজাতে কষ্ট হয় বলে বাচ্চারা কাঁদতে থাকে। আমাদের সমাজে হাজার হাজার পেশাগত বাদক প্রয়োজন নেই। তবে পিয়ানোর সুর উপভোগ করতে পারেন, নিজে বাজাতে পারেন এমন শিল্পী যত বেশি থাকে তত ভালো।

সুপ্রিয় বন্ধুরা, এতক্ষণ আপনারা চীনের বিখ্যাত পিয়ানো বাদক লিউ শি কুনের সংক্ষিপ্ত পরিচয় শুনলেন। তার বাজানো পিয়ানোর কয়েকটি সুরও শুনলেন। এ পর্বের 'সুর ও বাণী' এ পর্যন্তই। সবাই ভালো থাকুন। আবার কথা হবে। (ইয়ু/মান্না)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040