Web bengali.cri.cn   
সুর ও বানী: চীনের এ প্রজন্মের পিয়ানো বাদক লাং লাং
  2016-04-06 18:05:35  cri


পিয়ানো বাদক লাং লাং

লাং লাং, ১৯৮২ সালের ১৪ জুন চীনের লিয়াং নিং প্রদেশের শেনইয়াং শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি জার্মানির বার্লিন পিলহারমোনিয়া অর্কেস্ট্রা এবং মার্কিন পঞ্চম সিমফনি অর্কেস্ট্রায় নিয়োগপ্রাপ্ত প্রথম চীনা পিয়ানো বাদক। তিনি জার্মান ক্লাসিক্যাল প্রতিধ্বনি পুরষ্কার, ব্রিটিশ ক্লাসিক্যাল সংগীত পুরস্কার, আন্তর্জাতিক মেনডেলসসোন পুরস্কারসহ বিশ্বের বেশ কিছু ক্লাসিক্যাল সংগীত বিষয়ক পুরস্কার পেয়েছেন।

বেইজিং অলিম্পিক গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, চীনের ৬০তম জাতীয় দিবসের উদযাপনী অনুষ্ঠান, ২০১০ সালে শাংহাই বিশ্বমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, মার্কিন স্বাধীনতা দিবসের উদযাপনী অনুষ্ঠান, ফ্রান্সের জাতীয় দিবসের উদযাপনী অনুষ্ঠান, জাপানের আগ্রাসন বিরোধী যুদ্ধ জয়ের ৭০তম বার্ষিকীর অনুষ্ঠানসহ অনেক গুরুত্বপুর্ণ অনুষ্ঠানে পিয়ানো বাজিয়েছেন লাং লাং।

বন্ধুরা, এখন আপনারা শুনছেন লাং লাংয়ের বাজানো ফ্রাঞ্চ লিস্টেজ সুর 'প্রেমের স্বপ্ন'।

যখন লাং লাংয়ের বয়স মাত্র আড়াই বছর তখন টেলিভিশনে কার্টুন ছবি 'টম অ্যান্ড জেরি' দেখার সময় বিড়াল টমের বাজানো 'হাঙ্গেরির দ্বিতীয় র‌্যাপসোডি'সুরটি শুনে মুগ্ধ হন তিনি। পিয়ানো বাদকের আঙ্গুলের প্রতি তার গভীর কৌতুহল জেগে উঠে। এ আগ্রহ দেখে তার বাবা তাকে পিয়ানো শেখার জন্য নিয়ে যান।

তিন বছর বয়সে লাং লাং আনুষ্ঠানিকভাবে শেন ইয়াং সংগীত ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক চু ইয়া ফেনের কাছে পিয়ানো শিখতে শুরু করেন। পাঁচ বছর বয়সে তিনি প্রথমবার পূর্ব চীনের তিনটি প্রদেশের শিশুদের পিয়ানো বাজানোর প্রতিযোগিতায় অংশ নেন এবং প্রথম হন। এরপর তার জীবনের প্রথম একক সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ১৯৯৪ সালে ১২ বছর বয়সে লাং লাং জার্মান এটলিনগেন চতুর্থ আন্তর্জাতিক কিশোর-কিশোরী পিয়ানো প্রতিযোগিতায় অংশ নেন এবং বিশেষ পুরস্কার পান।

বন্ধুরা, এখন আপনারা শুনছেন লাং লাংয়ের বাজানো 'উড়ন্ত মৌমাছি' নামের সুরটি। এটি রুশ সুরকার নিকোলাই আন্দ্রেভিচ রিমস্কি-কোরসাকোভের বিখ্যাত একটি সুর। এ সুরের মাধ্যমে সুদানের এক রাজকুমারের মৌমাছিতে পরিণত হয়ে দুজন শত্রুকে আক্রমণ করার গল্প বলা হয়েছে। এ সুরের ছন্দ অতি দ্রুত। ফলে অনেক শিল্পী পিয়ানো বা বেহালা দিয়ে সুরটি বাজিয়ে এর নৈপন্য তুলে ধরেন।

১৯৯৭ সালের মার্চ মাসে ১৪ বছর বয়সে লাং লাং যুক্তরাষ্ট্রের ফিলাডেলফিয়ার বিশ্ববিখ্যাত সংগীত ইনস্টিটিউটে ভর্তি হন। তিনি কার্টিস সংগীত ইনস্টিটিউটে সংগীত শেখার পাশাপাশি স্থানীয় উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলে লেখাপড়া শুরু করেন। কার্টিস সংগীত ইনস্টিটিউট থেকেই তার আন্তর্জাতিক মঞ্চে যাওয়ার প্রথম সুযোগ হয়। এ কারণেই পরে বেশ কিছু বিশ্ববিখ্যাত অর্কেস্ট্রার সঙ্গে যোগাযোগের সুযোগ পেয়েছেন তিনি।

লাং লাং ক্লাসিক্যাল সংগীতের সুর বাজানোর পাশাপাশি চীনের কিছু বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পীর সঙ্গে নানা অনুষ্ঠানে পপ সংগীতের সুরও বাজিয়েছেন। এভাবেই তার নাম চীনের সাধারণ দর্শক-শ্রোতার কাছে আরো বেশি সুপরিচিত হয়েছে।

লাং লাং আর চৌ চিয়ে লুন

লাং লাংয়ের চীনের তরুণ শিল্পীর সঙ্গে ভালো বন্ধুত্বের সম্পর্ক আছে। ২০১৩ সালের ১৪জুন বেইজিংয়ের ছিংহুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে 'লাং লাং ও তার বন্ধুদের সংগীতানুষ্ঠান' শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানের আয়েজন করা হয়। চৌ চিয়ে লুন, লিন ডান, চাং লিয়াং ইং, হুয়াং হুয়াংসহ  তার বেশ কিছু বন্ধু মিলে চমত্কার অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন। লাং লাং এবং তাইওয়ানের শিল্পী চৌ চিয়ে লুন বেশ কয়েকবার মঞ্চে এক সাথে অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন এবং শ্রোতাদের ভালো প্রতিক্রিয়া পান। যদিও চৌ চিয়ে লুন কণ্ঠশিল্পী নামে সুনাম অর্জন করেন, তবে তিনিও ভালো পিয়ানো বাজাতে পারেন। তাই এ দুই শিল্পী ২০১৪ সালে QQ সংগীতানুষ্ঠানে আবার একসঙ্গে পিয়ানো বাজান। দর্শক-শ্রোতা তাদের পরিবেশনা খুব উপভোগ করেন। বন্ধুরা, এবার শুনুন চৌ চিয়ে লুন এবং লাং লাংয়ের বাজানো সুর।

১৯৯৯ সালের ১৪ অগাস্টে সংগীত পরিচালক মাস্টার এসেনবাচ জরুরিভাবে ১৭ বছর বয়সী লাং লাংকে ডেকে অসুস্থ অপর পিয়ানো বাদক আনদ্রে ওয়াটসের স্থালাভিষিক্ত করেন। এই সুযোগে তিনি রাভিনিয়া সংগীত উত্সবের শতাব্দী উদযাপনী তারকা সংগীতানুষ্ঠানে শিকাগো সিমফনি অর্কেস্ট্রার সঙ্গে যৌথভাবে 'চেকোভস্কির প্রথম পিয়ানো কানসার্টে' পিয়ানো বাজানোর সুযোগ পান। সংগীতানুষ্ঠান শুরুর আগে বিখ্যাত বেহালা বাদক আইজ্যাক স্টার্ণ দর্শকদের বলেন, 'আপনারা এ নবীন চীনা ছেলের কাছ থেকে বিশ্বের সবচেয়ে শ্রুতিমধুর আওয়াজ শুনতে পাবেন।' সত্যি লাং লাং সুর বাজানোর পর থিয়েটার হলের ৩০ হাজার দর্শক তার চমত্কার পিয়ানো বাজানোর নৈপন্যে মুগ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে হাততালি দিয়ে তাকে সম্মান জানান।

এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি বিশ্বমঞ্চে সুনাম অর্জন করেন। এরপর তিনি বিশ্বের বিভিন্ন প্রথম শ্রেণীর সংগীত দলের সঙ্গে চুক্তি করেন এবং পেশাগত সংগীতজ্ঞের জীবন শুরু করেন।

বন্ধুরা, এখন শুনুন লাং লাংয়ের বাজানো 'চেকোভস্কির প্রথম পিয়ানো কানসার্ট' নামের সুরটি।

বিশ্ব মঞ্চে ওঠার পর লাং লাং বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে পিয়ানো শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করেন। ২০০৮ সালে তিনি নিউইয়র্কে লাং লাং আন্তর্জাতিক সংগীত তহবিল প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি শেনচেনে 'লাং লাং সংগীত বিশ্ব' প্রতিষ্ঠিত হয়। এই প্রতিষ্ঠান পিয়ানো শেখানো, এ বিষয়ে মাস্টার কোর্স, সংগীতানুষ্ঠান ও পিয়ানো প্রতিযোগিতাসহ সার্বিক ও বড় আকারের সংগীত সংস্থা। তিনি পরবর্তীতে তরুণ-তরুণীদের জন্য আরো সুষ্ঠু পরিবেশ ও উন্নয়ন প্লাটফর্ম সৃষ্টি করার চেষ্টা চালান। তিনি আশা করেন, বহু বছর ধরে তার শিক্ষাগ্রহণের অভিজ্ঞতা ও আন্তর্জাতিক শিক্ষা সম্পদ চীনের নতুন প্রজন্মকে দিতে পারবেন। এরপর তিনি ব্রিটেন, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের নানা স্থানে সংগীত অনুরাগীদের জন্য বহু মাস্টার ক্লাসে পড়িয়েছেন।

লাং লাং আর বান কি মুন

২০১৩ সালের ২৮ অক্টোবর জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন নিউইয়র্কের জাতিসংঘ সদরদপ্তরে লাং লাংকে বিশ্ব শিক্ষা বিষয়ক জাতিসংঘের শান্তি দূত নিয়োগ করেন। তিনি জাতিসংঘের দ্বাদশ শান্তি দূত এবং প্রথম চীনা শান্তি দূত।

বর্তমানে মাত্র ৩৩ বছর বয়সী লাং লাং চীনের সফল তরুণ শিল্পীদের প্রতিনিধিত্বকারী ব্যক্তি। তিনি পিয়ানো বিশ্বে সুনাম অর্জনের পাশাপাশি সক্রিয়ভাবে নানা সামাজিক কাজও করছেন। ২০০৪ সালের অগাস্টে তিনি জাতিসংঘ শিশু তহবিলের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে তাঞ্জানিয়া সফর করেন। সেখানকার রোগ ও দারিদ্র্যক্লিষ্ট শিশুদের সঙ্গে দেখা করেন।

২০০৬ সালের ডিসেম্বরে তিনি চীনের সিছুয়ান প্রদেশের চেংতু শহরের পাণ্ডা কেন্দ্র পরিদর্শনের সময় একটি পান্ডা পোষ্য হিসেবে গ্রহণ করেন।

২০০৮ সালের ১২ মে চীনের ওয়েন ছুয়ান শহরে ভূমিকম্পের পর তিনি সর্বপ্রথম চাঁদা দেন এবং দাতব্য সংগীতানুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। সেই অনুষ্ঠানে তার বাজানো পিয়ানো নিলাম করে সব টাকা ভূমিকম্প কবলিত অঞ্চলে দান করে দেন।

লাং লাং, লিউ হুয়ান আর লিউ সি ছিং

বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের শেষে শুনুন পিয়ানো বাদক লাং লাং, বেহালা বাদক লিউ সি ছিং এবং কণ্ঠশিল্পী লিউ হুয়ানের পরিবেশনা 'অতীত মন্থর ছিল' নামের একটি গান।

প্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা, আজকের 'সুর ও বানী' আসরে আপনাদের সামনে চীনের বিখ্যাত পিয়ানো বাদক লাং লাংয়ের সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরলাম। অনুষ্ঠানটি শোনার জন্য ধন্যবাদ। ভালো থাকুন সবাই। আবার কথা হবে। (ইয়ু/মান্না)

© China Radio International.CRI. All Rights Reserved.
16A Shijingshan Road, Beijing, China. 100040